E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

ধামরাইয়ে ঐতিহ্যবাহী চৈত্র পূজা শুরু 

২০১৮ এপ্রিল ১৩ ১৭:৩৯:৩২
ধামরাইয়ে ঐতিহ্যবাহী চৈত্র পূজা শুরু 

ধামরাই প্রতিনিধি : তিন শতাধিক বছর ধরে চলে আসা হিন্দু সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী চৈত্র বা চৈতালী পূজা উৎসব ৯ এপ্রিল থেকে শুরু হয়েছে। শেষ হবে আগামী ১৫ এপ্রিল ঐতিহ্যবাহী চৈত্র বা চৈতালী পূজা উৎসবের চরক পুজার মধ্য দিয়ে ।

চৈতালী পূজা উৎসব উপলক্ষে এবার ধামরাইয়ে ২০টি পূজা মন্ডপের পক্ষ থেকে এ উৎসবের আয়োজন করেছে। প্রতিটি পূজা মন্ডপের ২০ থেকে ৪০ জন পূজারী আমিষ হীন খাদ্য ও ফল খেয়ে উৎসবের এ কয় দিন অতিবাহিত করছেন।গ্রামীন জনপদ বৈশাখী ও চৈত্র-সংক্রান্তি উৎসবে মেতে উঠেছে।নতুন জামা কাপড়ও ক্রয় বিক্রয় হচ্ছে দেদারছে। ব্যবসায়ীরাও বলছেন পুজা-ঈদ উসবের চেয়ে বিক্রি কম নয় ,ভালই হচ্ছে।

পূজারীরা স্ব-স্ব মন্ডপ থেকে সকালে স্নানকার্য শেষ করে মন্দির থেকে ভগবান শিব (মহাদেবের) মূর্তি লাল সালু কাপড় দিয়ে ঢেকে মাথায় নিয়ে পুজারীরা বের হয়ে যায়। বিভিন্ন এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ী,বাড়ী গিয়ে ঢাক, ঢোল, কাঁসর, ঘন্টার তালে তালে ধর্মীয় গান, নৃত্য পরিবেশন করে প্রতিটি গহৃ থেকে চাল ডাল সহ অর্থ সংগ্রহ করে।

গভীর রাতে মন্ডপে ফিরে ফল ও নিরামিষ খাদ্য গ্রহন করে মন্দিরেই রাত্রি যাপন করে থাকে উৎসবের এ কয় দিন। লোক নাথ পঞ্জিকা মতে চৈত্র সংক্রান্তির দিন অনুষ্ঠিত হবে শিব-গৌরি সাজে নৃত্য। প্রতিটি গৃহে উপস্থিত হয়ে ঢাক, ঢোল, কাঁসর,ঘন্টার তালে তালে নৃত্য পরিবেশন করবে শিব-গৌরি।শনিবার ভোরে ধামরাই পৌর মা শশ্মানে অনুস্থিত হবে ঐতিহ্যবাহি হাজরা পূজা অনুস্থান। এসময় হাজারো ভক্ত নর নারী উপস্থিতি ঘটবে বলে জানান শিক্ষক নন্দ গোপাল সেন।

এ দিন ভোরে কালি দেবতা সাজে ঢাক, ঢোল, কাঁসর, ঘন্টার তালে তালে নৃত্য পরিবেশন করবে হাজারো ভক্তবৃন্দ। শত শত পুজারী একত্রিত হয়ে নৃত্য রত অবস্থায় প্রতিটি মন্ডপ থেকে যাবে মহাশশ্মানে। একই ভাবে সেখানে পূজা শেষে সকালেই ফিরবে পুনরায় মন্ডপে।

দিনব্যাপী চলবে নানা উৎসব আয়োজন। এদিনও কোন হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে আমিষের কোন আয়োজন থাকবেনা। বাংলাদেশের লোকনাথ পঞ্জিকা মতে পহেলা বৈশাখ অনুষ্ঠিত হবে ঐতিহ্যবাহী চৈত্র বা চৈতালী পূজা উৎসবের চরক পুজা।

চরক পূজায় পুজারীর পীঠে বর্শী বিধিয়ে যাকে ঘুরানো হয় সেই নিতাই মন্ডল বলেন,৩ শতাধিক বছরের এই ঐতিহ্যবাহী চরক পূজা পূর্ব পূরুষ থেকেই পালন করছেন। নিতাই বিগত ২২ বছর ধরে এই চরক পূজায় অংশ নিচ্ছেন বলে জানান।

তিনি বলেন, বর্শীতে বিধিয়ে শূন্যে ঝুলানোয় তার কোন প্রকার ক্ষতি বা অসুবিধা হয়না। যত দিন বেচে থাকবেন এই উৎসবের দায়িত্ব পালন করবেন বলেও জানান নিতাই।

(ডিসিপি/এসপি/এপ্রিল ১৩, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test