E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

কচুয়ায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

২০১৮ জুলাই ১৭ ২৩:২২:৪০
কচুয়ায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

উজ্জ্বল হোসাইন, চাঁদপুর : কচুয়ার সাদিপুরা গ্রামে যৌতুকের দাবিতে শ্বাসরোধ করে স্ত্রী শাহিনুর বেগম (২০)কে হত্যার অপরাধে স্বামী এরশাদ উল্যাহকে মৃত্যুদণ্ড এবং চাচা শ্বশুর আবু তাহের মুন্সীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেছে আদালত। 

একই সাথে প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। আসামীদের উপস্থিতিতেই গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ জুলফিকার আলী খাঁন এ রায় দেন। হত্যার শিকার গৃহবধূ শাহিনুর বেগম হাজীগঞ্জ উপজেলার পাতানিস গ্রামের শহীদুল্লাহ মিয়াজীর কন্যা। মৃত্যুদ-প্রাপ্ত এরশাদ উল্যাহ কচুয়া সাদিপুরা গ্রামের মুন্সী বাড়ির রুহুল আমিনের ছেলে এবং যাবজ্জীবন কারাদ-প্রাপ্ত আবু তাহের মুন্সী একই বাড়ির আব্দুল খালেক মুন্সীর ছেলে। এরশাদ উল্যাহ সম্পর্কে আবু তাহেরের ভাতিজা। শাহিনুরের বিয়ের মাত্র ৩২ দিনের মাথায় এ নির্মম হত্যার শিকার হলো সে।

মামলার বিবরণ থেকে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি এরশাদ উল্যাহর সাথে শাহিনুর বেগমের বিবাহ হয়। ওই সময় ছেলেকে কনের পিতা আড়াই লাখ টাকা যৌতুক দেন। কিন্তু আরো যৌতুকের দাবিতে এরশাদ উল্যাহ নিজ বাড়িতে পরিবারের লোকজনসহ শাহিনুরকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। ঘটনার দিন ২০১৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি দুপুরে এরশাদ উল্যাহ ও শাহিনুর বেগমের মধ্যে যৌতুক নিয়ে ঝগড়াবিবাদ হয়। এ সময় এরশাদ উল্যাহ তার চাচা আবু তাহের মুন্সীর সহযোগিতায় শাহিনুরকে মারধর করে এবং শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

মামলার সূত্রে আরো জানা যায়, ঘটনার পর চাচা শ্বশুর আবু তাহের শাহিনুর অসুস্থ বলে তার পিতাকে সংবাদ দেন। কিন্তু তারা এসে শাহিনুরকে এরশাদ উল্যাহর বসতঘরের বারান্দায় চাদর দিয়ে ঢাকা অবস্থায় দেখতে পান। এ সময় আবু তাহের ও এরশাদ উল্যাহ বলেন, শাহীনুর আত্মহত্যা করেছে এবং কোনো মামলা করার প্রয়োজন নেই বলে চাপ প্রয়োগ করেন। এরপরেও শাহিনুরের পিতা শহীদুল্লাহর বিষয়টি সন্দেহ হলে কচুয়া থানা পুলিশকে জানানো হয়। পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ১ মার্চ ২০১৫ তারিখে শাহিনুরের পিতা শহীদুল্লাহ কচুয়া থানায় মেয়ের জামাই এরশাদ উল্যাহ ও চাচা শ^শুর আবু তাহের মুন্সীকে আসামী করে ৩০২/৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ তাদেরকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করেন।

সরকার পক্ষে আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডঃ আমান উল্যাহ জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কচুয়া থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোস্তফা চৌধুরী একই বছরের ১০ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। প্রায় ৩ বছর মামলাটি চলমান অবস্থায় আদালত ১৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। সাক্ষ্যপ্রমাণ ও নথি পর্যালোচনা করে বিচারক আসামী এরশাদ উল্যাহকে মৃত্যুদণ্ড এবং চাচা আবু তাহের মুন্সীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডঃ হেলাল উদ্দিন জানান, আমরা এ রায়ে সন্তুষ্ট।

সরকার পক্ষের ছিলেন সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডঃ মোক্তার আহম্মেদ এবং আসামী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডঃ সেলিম আকবর। আসামী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডঃ সেলিম আকবর বলেন, আমরা ন্যায়বিচার পাইনি। আমরা আসামীদের মুক্তির ব্যাপারে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

(ই্‌উএস/এসপি/জুলাই ১৭, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test