E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

বাড়ীর আঙিনা নিয়ে বিরোধে লালপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবারের সদস্যদের মারধর

২০১৮ জুলাই ৩১ ১৭:০৬:৫৭
বাড়ীর আঙিনা নিয়ে বিরোধে লালপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবারের সদস্যদের মারধর

লালপুর (নাটোর) প্রতিনিধি : বাড়ীর আঙ্গীনায় বৃষ্টির পানিপড়া, পায়খানার অবস্থান ও সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে নাটোরের লালপুরে প্রতিপক্ষরা একজন মুক্তিযোদ্ধার প্রাণনাশের চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আহত মুক্তিযোদ্ধাকে বাচাতে এগীয়ে এলে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে ও মেয়েকেও মারধর করেছে প্রতিপক্ষরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বিলমাড়ীয়া ইউনিয়নের মোহরকয়া ভাঙ্গাপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন ভ্যাগল (৭৫) ও প্রতিবেশী ন্যাড়া মালিথা নামক এক ব্যক্তির ছেলেরা সরকারী জমিতে দীর্ঘদিন যাবৎ পাশাপাশি বাড়ী করে বসবাস করে আসছেন। পাশাপাশি বসতবাড়ী হওয়ায় দু’পরিবারের মাঝে বাড়ীর আঙ্গীনায় বৃষ্টির পানিপড়া, পায়খানার অবস্থান ও সীমানা নিয়ে মাঝে মাঝে বিরোধ হয়।

স্থানীয় চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিরা বিভিন্ন সময় উভয়পক্ষের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে মিমাংসা করে দেন এবং দু’পরিবারের বাড়ীর সীমানা নির্ধারন করে ইটের প্রাচীর তুলে দেন। তবুও দু’পরিবারের মাঝে ছোট-খাটো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া চলে আসছিলো।

এরই সূত্র ধরে গতকাল সোমবার (৩০ জুলাই) বিকেলে দু’পরিবারের মাঝে ঝগড়ার এক পর‌্যায়ে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এ সময় মৃত ন্যাড়ার ছেলে মধু, রিপন, শিপনের লাঠির আঘাতে মারাত্মক আহত হন মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন। আবুল হোসেনকে বাচাতে এগীয়ে এলে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে আতিকুর (১৪) ও মেয়ে আজমিরা (১৭) কে মারধর করেছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাস্থল থেকে আহতদের লালপুর থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

মুক্তিযোদ্ধার ছেলে আহত আতিকুর জানায়, মধু একজন মাদকসেবী। সে ছোট-খাটো বিষয় নিয়ে আমাদের উপর অত্যাচার চালায়। আমার বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা, তার প্রাণনাশের জন্য মধু ও ওর অন্যান্য ভাইয়েরা আক্রমন করে। আমি ঐ সকল ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এ ব্যাপারে বিলমাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু জানান, উভয় পক্ষের মধ্যে মাঝে মধ্যে বিরোধ হতো। কয়েকবার তাদের মধ্যে সমঝোতাও করে দেয়া হয়েছে।

থানা অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) তৌহিদুল ইসলাম জানান, মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনের মেয়ে আজমিরা এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে দোষীদের আটকের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

(এমএইচ/এসপি/জুলাই ৩১, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

১৬ নভেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test