E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

শিরোনাম:

ঘুষ না দেওয়ায় ঋণ বন্ধ!

২০১৮ আগস্ট ১৩ ২৩:৪৬:৪১
ঘুষ না দেওয়ায় ঋণ বন্ধ!

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : ঘুষ দিতে রাজি না হওয়ায় ৩০ জন সদস্যকে ঋণ না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা পল্লী জীবি করণ প্রকল্প কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

আজ সোমবার তাদের প্রত্যেককেই ঋণ দেওয়ার কথা ছিলো তবে হতাশ হয়েই ফিরতে হয়েছে সকলকে।

জানা যায়, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ১১৫টি সমিতির মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা করে ঋণ প্রদান করে পল্লী জীবি করণ প্রকল্প এর মাধ্যমে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি)। এমন একটি সমিতির মাধ্যমে প্রায় ১৮ বছর ধরে চলে ঋণ গ্রহণ ও পরিশোধ করে আসছে উপজেলার চিথলিয়ার ৩০ কৃষক পরিবার। নিয়মিত ঋণ পরিশোধ করেও তারা এবছর ঋণ পায়নি বলে অভিযোগ করছেন। সেই সাথে তাদের অভিযোগ প্রকল্পের কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক এবং চিথলিয়া এলাকার ইনচার্জ আব্দুল মতিন তাদের কাছ থেকে এক হাজার টাকায় ২’শ টাকা দাবী করে। তারা টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাদের ঋণ দেয়নি।

পল্লী জীবি করণ প্রকল্পের চিথলিয়া সমিতির প্রধান জাহানারা খাতুন অভিযোগ বলেন, আমরা ১৮ বছর ধরে এই সমিতি সাথে রয়েছি। প্রতিবছর আমরা ঋণ নিয়ে কৃষি কাজ করি, গবাদী পশু পালন করি। বছর শেষে একবারে সেই টাকা পরিশোধ করি। তবে এবছর ম্যানেজার আব্দুর রাজ্জাক হাজারের মুখে দুইশত টাকা করে চাইছে। না দিলে ঋণ দেবে না। আমরা ৩০ জন সদস্য রয়েছি আমাদের সকলের ক্ষেত্রে একই অবস্থা। আমরা সারের পা পর্যন্ত ধরেছি তবে লোন দেয়নি।

রাশিদা খাতুন ও হাসি খাতুন জানান, আমরা যদি এক হাজারে যদি ২০০ টাকা করে দিতে হয়। তাহলে আমারা ২৬ হাজার টাকা করে পাবো। সেই সাথে বছরে সুদ হিসাবে ৭ হাজার টাকা করে দিতে হয়। এই লোনটা পেলে আমাদের কৃষিকাজ করা ভালো হবে।

আরেকজন সেফালী খাতুন জানান, আমরা একমাস আগে একযোগে ৩০জনই ঋণ পরিশোধ করেছি। আমাদের এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন ঋণ দেওয়া কথা। তবে এক মাস পার হয়ে গেলেও আমরা ঋণ পায়নি। প্রতি সপ্তাহে আমরা আসি আর ঘুরে যায়।

ঋণের টাকা পেলে পরিবারের স্বচ্ছলতা ফিরত মর্জিনা খাতুনের। তিনি জানান, এই টাকা পেলে আমি পাখি ভ্যান কিনতাম। তা দিয়ে আমার সংসার চলতো। তবে ঘুষ না দেওয়ায় ঋণ দেয়নি ম্যানেজার।

পল্লীজীবীকরণ প্রকল্পের কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক জানান, আমরা ৩০ জনের কাউকেই এবছর ঋণ প্রদান করিনি। তবে তাদের কাছ থেকে কোন টাকা দাবী করিনি। তারা সময় মতো ঋণ পরিশোধ করে না। এজন্য ঋণ দেয়নি।

এ ব্যপারে বিআরডিবি’র উপপরিচালক ফিরোজ আহম্মেদ জানান, এমন কোন অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। যদি আসে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

(কেকে/এসপি/আগস্ট ১৩, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test