Pasteurized and Homogenized Full Cream Liquid Milk
E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

নাগরপুরে ব্রীজ আছে রাস্তা নেই, চরম দুর্ভোগে মানুষ

২০১৯ ফেব্রুয়ারি ১২ ১৭:০৫:০৬
নাগরপুরে ব্রীজ আছে রাস্তা নেই, চরম দুর্ভোগে মানুষ

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ব্রীজ নির্মাণের দেড় বছর অতি বাহিত হলেও দুপাশে মাটি ভরাটসহ সংযোগ সড়ক না থাকার কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছে উপজেলার ৭ টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ।

নাগরপুর উপজেলা সদরে আসতে মরনফাঁদ অতিক্রম করতে হচ্ছে উপজেলা সদর ইউনিয়নের আলোকদিয়া, আন্দিবাড়ি, পানান, পাইশানা ও ভাদ্রা ইউনিয়নের কোদালিয়া, সিংদাইর, খাগুরিয়াসহ আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামের কয়েক হাজার মানুষকে।

এলাকাবাসী জানান, আশেপাশের প্রায় ৭ টি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ উপজেলা সদরে আসার জন্য দীর্ঘদিনের চাওয়া ছিল টাঙ্গাইল-আরিচা আঞ্চলিক মহাসড়কের নাগরপুর উপজেলার ভালকুটিয়া পাকার মাথা থেকে একটি পাকা রাস্তা ও নোয়াই নদীর উপর একটি ব্রীজ। নোয়াই নদীর উপর ব্রীজ নির্মিত হলেও দুর্ভোগ কমেনি এলাকাবাসীর। সংযোগ সড়ক নির্মিত না হওয়ায় তাদের ভোগান্তি চরম আকার ধারন করেছে। ব্রীজনি র্মিত হলেও তারা ব্রীজ ব্যবহার করতে পারছে না। তার উপর তাদের যে পায়ে হাটার রাস্তা রয়েছে সেটিও বর্ষা মৌসুমের ছয় মাস পানিতে ডুবে থাকে।

উপজেলা প্রকৌশলী অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ভালকুটিয়া থেকে আলোকদিয়া যাওয়ার পথে নোয়াই নদীর উপর ৭২.৬ মিটার ব্রীজনি নির্মাণের কাজ শুরু হয়। মের্সাস দাস ট্রেডার্স নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রায় ১ বছর পর ২০১৭ সালে নির্মাণ কাজ শেষ করে।

ব্রীজ নির্মাণের পর ব্রীজের দুপাশে ২০০ মিটার করে মাটি ভরাট করার কথা থাকলেও মাটি ভরাট করা হয়নি। চলাচলের বিকল্প কোন রাস্তা না থাকায় ব্রীজের নিচ দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে এলাকাবাসী।

রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী চন্দনা আক্তার জানান, আগে ব্রীজ ছিলনা তখন যেভাবে নৌকায় ও কাপড় ভিজিয়ে রাস্তা পাড় হয়েছি ব্রীজ নির্মাণের পরও একই অবস্থা।

আলোকদিয়া গ্রামের আলম শিকদার জানান, আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়ন করছে ব্যাপক হারে কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম, অবহেলা এবং সরকারি কর্মকর্তাদের উদাসীনতা বর্তমান সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করছে।

নাগরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. আলম হোসেন জানান, এলাকাবাসীর প্রাণের দাবী ছিল ব্রীজ কিন্তু ব্রীজ নির্মিত হলেও এর কোন সুফল আমরা পাচ্ছি না। রাস্তা না থাকায় রোগী, শিক্ষার্থী ও ব্যবসায়ীদের যাতায়াত দুরহ হয়ে পড়েছে। মাটি ভরাটের কাজ নিয়ে এলাকাবাসী ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সাথে জটিলতা বাধে। তারা অন্যের জমিতে বাংলা ড্রেজার লাগিয়ে বালু তুলতে গেলে জমির মালিক বাধা দেয়। এরপর ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মাটি ভরাট না করেই চলে যায়।

বিষয়টি নিয়ে নাগরপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো.শাহীনুর আলম জানান, মামলা জটিলতার কারনে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শেষ করতে পারে নি। আমরা নতুন করে মাটি ভরাটের জন্য টেন্ডার আহবান করবো। আর পাকা রাস্তা থেকে ব্রীজ পর্যন্ত একটি রাস্তার জন্য আমরা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছি।

(আরএসআর/এসপি/ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test