Pasteurized and Homogenized Full Cream Liquid Milk
E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

ইউপি সদস্যদের অনাস্থা অনিয়ম-দুর্নীতি

মুখ থুবড়ে পড়েছে রাজারহাটের উমর মজিদ ইউপির কার্যক্রম!

২০১৯ মার্চ ১৪ ১৬:৫৮:৪৯
মুখ থুবড়ে পড়েছে রাজারহাটের উমর মজিদ ইউপির কার্যক্রম!

প্রহলাদ মন্ডল সৈকত, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) : দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার,সমন্বয়হীনতা এবং স্বজনপ্রীতির স্বর্গরাজ্যে পরিনত হয়েছে কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়ন পরিষদ। ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরদারের লাগামহীন অনিয়ম যেন দেখার কেউ নেই। প্রতিকার চেয়ে সকল ইউপি সদস্যরা তার বিরুদ্ধে অনাস্থা জানিয়ে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ কে সুনিদ্রিষ্ট বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ এনে তার প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তর বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে। 

লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তর আয়ের ১% এর আওতায় ৩লক্ষ ৩ হাজার ৪৫ টাকা ও ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে ১লাখ ৯০ হাজার টাকার ভূয়া প্রকল্প দেখিয়ে কোনো প্রকার রেজুলেশন ছাড়াই প্রকল্প ও প্রকল্প কমিটি দাখিল করেন। উক্ত প্রকল্পের বরাদ্দকৃত টাকা ইউনিয়ন পরিষদের হিসাব নম্বরে জমা না করে উপজেলা ইউএনও কর্তৃক প্রদানকৃত চেকের মাধ্যমে সরাসরি সোনালী ব্যাংক রাজারহাট শাখা হতে উত্তোলন করে সমূলে আত্মাসত করেছেন।

২০১৭-২০১৮অর্থ বছরে টিআর প্রকল্প (সাধারন) ২ লাখ টাকা নতুন ইউপি ভবন ঠিকাদারের হস্তান্তরের আগেই ভুয়া সংস্কার দেখিয়ে সমুদয় টাকা নিজে পকেটস্থ করেছেন। ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের এডিপি প্রকল্পের ২ লক্ষ টাকা এবং ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের এডিপি প্রকল্পের ২ লক্ষ টাকা প্রকল্প ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক রেজুলেশন ছাড়াই দাখিল করে ভূয়া প্রকল্প দেখিয়ে উক্ত টাকা আত্মসাত করেন।

অপরদিকে, ইউনিয়ন পরিষদের পুরাতন ভবনের টিন, কাঠ, ছাদ সহ বিভিন্ন সামগ্রীর ৪ লক্ষ টাকা, বিভিন্ন ওয়ার্ডে অবস্থিত পুরাতন ৪টি ব্রিজ যার আনুমানিক মূল্য ৬ লক্ষ টাকা। ইউনিয়ন পরিষদে দরপত্র আহবান ও অনুমোদনের রেজুলেশন ছাড়াই অবৈধ ভাবে বিক্রি করে সমুদয় অর্থ আত্বসাৎ করেন।

২০১৬-২০১৭ ও ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের ভিজিডি ৪’শ ৪২জন কার্ডধারীর নিকট হতে প্রতি মাসে জনপ্রতি ২০ টাকা হারে ২ বছরে ২ লক্ষ ১২ হাজার ১শত ৬০ টাকা মালামাল পরিবহনের খরচ ও বস্তা বাবদ উল্লেখপূর্বক উক্ত টাকা সরাসরি কার্ডধারীর নিকট গ্রহণ করে আত্মসাত করেই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরদার একের পর এক অনিয়ম ও বেপরোয়া দুর্নীতি লাগামহীন হয়ে পড়েছে।

ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদ এ প্রতিবেদক কে জানান, চেয়ারম্যান সদস্যদের নিয়ে কোন মাসিক মিটিং কিংবা আমাদের সাথে কোনপ্রকার কাজে সমন্বয়ন করেন না। ভূয়া রেজুলেশন তৈরি করে একের পর এক বেআইনি কাজ করেই যাচ্ছেন। অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ইউনিয়ন পরিষদটির অচলাবস্থা বিরাজ করছে। দ্রুত আইনি পদক্ষেপ প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে উমর মজিদ ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরদার বলেন-একটি মহল আমার জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে। ইউনিয়ন পরিষদ চালানোয় সবসময় তাদের সঙ্গে পরামর্শ নিয়ে থাকি। ছোট-খাটো ভুল-ত্রুটি হতেই পারে। তাদের সঙ্গে বসে বিবদমান সমস্যার সমাধান করব।

রাজারহাট প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সজিবুল করিম জানান, অভিযোগ এখন পর্যন্ত পাইনি। তবে ইউএনও স্যার বিষয়টি বলতে পারবেন।

এ বিষয়ে ১৪মার্চ বৃহস্পতিবার রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উমর মজিদ ইউনিয়নের সকল ইউপি সদস্যচেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্দ্ধতন কর্মকর্তার কাছে প্রতিবেদন দাখিল করলেও কোন কাজে আসছেনা এসব অভিযোগ। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের তদারকির দায়িত্বহীনতার এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বেপরোয়া অনিয়ম-দুর্নীতিকে নিয়মে পরিণত করেছেন চেয়ামরম্যান মোহাম্মদ আলী সরদার।

এমতাবস্থায় দুর্নীতি পরায়ণ ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরদারের সকল অনিয়ম দুর্নীতি সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে শাস্তিমূলক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানিয়েছেন ইউপি সদস্যরাসহ এলাকাবাসী।

(পিএমএস/এসপি/মার্চ ১৪, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

২৪ মার্চ ২০১৯

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test