Pasteurized and Homogenized Full Cream Liquid Milk
E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

চাঁদাবাজি মামলার আসামীর সঙ্গে ভুরিভোজ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা

২০১৯ আগস্ট ১৫ ২৩:৪৭:১৪
চাঁদাবাজি মামলার আসামীর সঙ্গে ভুরিভোজ করলেন পুলিশ কর্মকর্তা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: চাঁদাবাজি ও লুটপাটের অভিযোগে দায়েরকৃত মামলার আসামী ইয়ারব হোসেনসহ তিনজনকে পুলিশ দেড়মাসেও গ্রেপ্তার না করতে পারেনি। তবে বৃহষ্পতিবার দুপুরে ইয়ারবের পরিচালিত কৃষি ক্লাবে  তারই সঙ্গে সদর  সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান ও  পুলিশ পরিদর্শক মহিদুল ইসলাম ভুরি ভোজ করে জানিয়ে দিলেন আসামী পুলিশ ভাই ভাই।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাথরঘাটা গ্রামের আজাহারুল ইসলাম জানান, দাবিকৃত দু’ লাখ টাকা না দেওয়ায় গত পহেলা জুলাই রাত দেড়টার দিকে তার বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় ১৯৯৪ সালে সাতক্ষীরা শহরের শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্ক এর প্রাচীর ভাঙচুর ও মুক্তিযোদ্ধা হাসনে জাহিদ জজসহ কয়েকজনকে হামলার ঘটনার পর সমাবেশ থেকে পালিয়ে এসে আত্মরক্ষা করা সাংবাদিক ইয়ারব হোসেন, গ্রাম পুলিশ কামরুল ও হেলাল হোসেনসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে তার দায়েরকৃত অভিযোগের ভিত্তিতে আদালতের নির্দেশে গত ২ জুলাই থানায় মামলা হয়। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গণ্ডি পার না হওয়া ওই সাংবাদিক মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে ১৫ জুলাই থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়। বিষয়টি মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা উপপরিদর্শক কবীর হোসেনকে বললেও তিনি কোন ভ্রুক্ষেপ করেননি। এমনকি ঝাউডাঙা একটি মাদ্রাসা পরিচালনা পরিষদের সদস্য হয়ে সম্প্রতি ওই মাদ্রাসার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ ব্যবসায়িদের উচ্ছেদের নোটিশ এর ব্যবস্থা করে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে তাদের ঘরে তালা মারার উদ্যোগ নেন ইয়ারব হোসেন। এ ছাড়া তিনি থানায় যেয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত সাক্ষাৎ করছেন। ১৫ আগষ্ট উপলক্ষে বৃহষ্পতিবার দুপুরে তুজুলপুর কৃষি ক্লাবে উপস্থিত হয়ে ইয়ারবের সঙ্গে ভুরিভোজ করেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান ও পুলিশ পরিদর্শক মহিদুল ইসলাম। এ ছবি নিজ ফেইসবুকে ছেড়ে দিয়ে ইয়ারব হোসেন প্রমাণ করতে চেয়েছেন যে তিনি আইনের উর্দ্ধে। গত ২৭ জুলাই আবাদের হাটে আগরদাঁড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নজরুল ইসলাম হত্যার প্রতিবাদে আহুত প্রতিবাদ সমাবেশে সাংসদ মোস্তাক আহম্মেদ রবি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে পুলিশের উপস্থিতিতে মঞ্চে উপস্থিত থেকে নিজে প্রমান করতে চেয়েছেন যে নেতা গোতা ও পুলিশ সবই তার লোক। এক সময় সীমান্তে চোরাঘাট মালিক, মাদক ব্যবসায়িদের কাছ থেকে ব্যাপক চাঁদাবাজি, না পছন্দের লোকজনদের জামায়াত শিবিরের নেতা কর্মী বানিয়ে পুলিশকে দিয়ে ধরিয়ে দেওয়া ও ছাড়িয়ে নেওয়া বাণিজ্য করে বর্তমানে ইয়ারব দু’ কোটি টাকারও বেশি স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির মালিক হওয়া ইয়ারব হোসেনেসর সঙ্গে রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশের সখ্যতা নিয়ে নির্যাতিতরা হতাশ হয়ে আবারো ইয়ারব বাহিনীর হামলার আশঙ্কায় রয়েছেন।
স্থানীয় সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের অভিযোগ, সম্প্রতি বালিয়াডাঙার মসজিদের মধ্যে নামাজে দাঁড়ানো অবস্থায় আকবর হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা, কুচপুকুরে আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল হত্যার ঘটনায় প্রকৃত আসামীরা রয়ে গেছেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে। ইয়ারব হোসেন চাঁদাবাজি মামলার আসামী হয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও পুলিশের সঙ্গে প্রকাশ্যে দহরম মহরম চালিয়ে যাচ্ছে। জনগনের দৃষ্টিভঙ্গি অন্যদিকে ঘোরাতে ইয়ারবকে কাফনের কাপড় নাটক সাজানোর বিষয়টি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার দ্বারা তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে ঘটনার রহস্য। শহরে বেশ কয়েকটি চুরির ঘটনা ঘটলেও পুলিশ তার কিনারা করতে পারছে না। ফলে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এব্যাপারে সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে বৃহষ্পতিবার রাত নয়টা ৫ মিনিটে যোগাযোগের চেষ্টা করলে ফোনটি ব্যস্ত পাওয়া যায়।

(ওএস/পিএস/আগস্ট ১৫, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test