Pasteurized and Homogenized Full Cream Liquid Milk
E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

দূর্গা পূজা উপলক্ষে নড়াইলে মৃৎশিল্পীদের ব্যস্ততা

২০১৯ সেপ্টেম্বর ১১ ১৬:৩২:৩৯
দূর্গা পূজা উপলক্ষে নড়াইলে মৃৎশিল্পীদের ব্যস্ততা

রূপক মুখার্জি, নড়াইল : সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দূর্গা পূজাকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছেন নড়াইলের লোহাগড়ার মৃৎশিল্পীরা। পূজা মন্ডব গুলোতে মৃৎশিল্পীরা প্রতিমা নির্মানে যেমন ব্যস্ত সময় পার করছেন পাশাপাশি মন্ডবগুলোর আয়োজকদের কাজকর্মও বেড়ে গেছে। শুরু করেছেন মন্ডব নির্মাণ সহ নানা সাজ-সজ্জার প্রস্তুতি। সব কিছু মিলে, আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসবকে ঘিরে লোহাগড়ার সনাতন ধর্মালম্বীদের মাঝে উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়েছে।

পত্র-পল্লবে, পুষ্পে-ফলে শরতের আকাশে ছড়িয়ে পড়েছে শারদীয় দূর্গোৎসবের আমেজ। লোহাগড়া পৌরসভা সহ উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মন্ডবগুলোতে আয়োজকরা কর্ম ব্যস্ত সময় পার করছেন। পূজা উদযাপন কমিটি গঠন, নিমন্ত্রণ পত্র ছাপানো, আলোক সজ্জা, সাউন্ড সিস্টেম সহ অন্যান্য আনুষাঙ্গিক কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে।

আসন্ন দূর্গা পূজার প্রস্তুতি বিষয়ে কথা হয় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ লোহাগড়া পৌর শাখার সভাপতি ও লক্ষ্মীপাশাস্থ শ্রী শ্রী সিদ্ধেশ্বরী কালিমাতা মন্দির পরিচালনা পর্ষদের সাংগঠনিক সম্পাদক কিশোর রায়ের সাথে। তিনি জানান, গত বছর লোহাগড়া পৌরসভার ৩৮টি পূজা মন্ডবে সার্বজনীন দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ বছরও ওই একই সংখ্যক মন্ডবে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও নড়াইল জেলা পরিষদের সদস্য প্রবীর কুমার কুন্ডু(মদন) জানান, এ বছর লোহাগড়ার কোথাও নতুন করে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। গত বছর এ উপজেলায় ১৬০টি মন্ডবে দূর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছিল। শান্তি-শৃঙ্খলার সাথে জাঁকজমক পূর্ণ পরিবেশে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠানের ব্যাপারে লোহাগড়া উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলে তিনি জানান।

লক্ষ্মীপাশাস্থ শ্রী শ্রী সিদ্ধেশ্বরী কালিমাতা মন্দিরের প্রধান পুরোহিত সুকান্ত চট্টোপাধ্যায় বিপ্লব জানান, আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর ‘মহালয়া’র অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ধরাধামে মায়ের আগমনী বার্তা বেজে উঠবে। আগামী ৪ অক্টোবর ষষ্ঠী পূজার মাধ্যমে দূর্গোৎসব শুরু হয়ে ৮ অক্টোবর বিসর্জনের মাধ্যমে ৫ দিন ব্যাপী এ উৎসব শেষ হবে।

বুধবার দুপুরে লোহাগড়া পৌরসভার লক্ষ্মীপাশা, কচুবাড়িয়া, রামপুর, লোহাগড়া, কুন্দশী, জয়পুর, পোদ্দারপাড়া, কলেজপাড়া, কামঠানা, গন্ধবাড়িয়া সহ অন্যান্য এলাকার মন্ডব গুলো ঘুরে দেখা গেছে, স্থানীয় মৃৎশিল্পীদের পাশাপাশি অন্যান্য জেলা উপজেলা থেকে আগত শিল্পীরা মনের মাধুরী মিশিয়ে দূর্গা প্রতিমা নির্মাণ করছেন। অধিকাংশ মন্ডবে প্রতিমার মাটির কাজ শেষ করেছেন শিল্পীরা। পূজা শুরুর ১ সপ্তাহ আগে থেকে এ সব নির্মিত মূর্তির ওপর রংতুলির আঁচড় দিবেন মৃৎশিল্পীরা।

কথা হয় দৈনিক পত্রিকা বিক্রেতা ও কুন্দশী পালপাড়ার মৃৎশিল্পী তপন পালের সাথে। তিনি জানান, ব্যস্ততার কারনে এ বছর বেশি সংখ্যক প্রতিমা নির্মাণ করছি না। মাত্র দুটি মন্ডবের প্রতিমা নির্মানে তিনি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

একই গ্রামের মৃৎশিল্পী অরবিন্দু পাল। আলাপকালে তিনি জানান, এ বছর ৯টি মন্ডবে দূর্গা প্রতিমা নির্মাণ করছেন। তাকে এ কাজে সহযোগীতা করছে তার পুত্র পবিত্র সহ ৩/৪ জন সহকারি।

নড়াইলের পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন পিপিএম(বার) জানান, আসন্ন দূর্গা পূজা উপলক্ষে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইতোমধ্যে তালিকা সংগ্রহ সহ নানা কর্মতৎপরতা শুরু করেছে। শান্তিপূর্ণ ভাবে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠানের ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

(আরএম/এসপি/সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

০৬ ডিসেম্বর ২০১৯

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test