E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

নড়াইলে সাবেক চেয়ারম্যান বদর হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

২০২০ ফেব্রুয়ারি ২৭ ১৭:০২:৫৪
নড়াইলে সাবেক চেয়ারম্যান বদর হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান  বদর খন্দকার হত্যাকান্ডে জড়িতদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে লোহাগড়া ইউনিয়নবাসীর উদ্যোগে কালনা ঘাট থেকে একটি বিরাট বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। পরে যশোর-কালনা মহাসড়কের উপজেলা পরিষদের মূল ফটকের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘন্টাব্যাপী অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সহস্রাধিক মানুষজন উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন শেষে অনুষ্ঠিত সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে রক্তর‌্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিএম কামাল হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন ইতি, কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান, আ’লীগ নেতা আজিজুর রহমান আর্জু, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, নিহতের বড় ভাই বাবর খন্দকার প্রমুখ।

সমাবেশে নিহতের একমাত্র ছেলে যশোর ক্যান্টনমেন্ট দাউদ পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজের ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আবু সাঈদ খন্দকার সমাবেশে কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, ‘আমি আমার পিতাকে হারিয়েছি। আমার মতো আর কোন সন্তান যাতে পিতৃহীন না হয়, তার ব্যবস্থা করবেন। পরে আবু সাঈদ তার পিতার খুনিদের ফাঁসি দাবী জানিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে’।

এদিকে চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী চরকালনা গ্রামের ইরাদ মোল্যার ছেলে রুহুল মোল্যাকে (৫৫) পুলিশ বুধবার রাতে আটক করে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে প্রেরণ করেছে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে মামলার এজাহারভুক্ত আসামী মতিউর রহমান মুন্নাকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয় এবং মুন্না আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকরোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে। এ নিয়ে বদর হত্যা মামলায় দু’জন আসামী গ্রেফতার হয়েছে।

উল্লেখ্য: গত সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নিহত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বদর খন্দকার টি-চর কালনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে একদল দুর্বৃত্ত ধারালো ছ্যান ও রাম দা, দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে তার দুই হাত ও দুই পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে পালিয়ে যায়। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে পথিমধ্যে যশোরের নওয়াপাড়া নামক স্থানে পৌঁছালে রাত সাড়ে ৯টার দিকে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে নিতের স্ত্রী নাজনীন বেগম বাদী হয়ে ১৬জনকে আসামী করে লোহাগড়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

(আরএম/এসপি/ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

০৬ এপ্রিল ২০২০

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test