E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

বর্ষা মৌসুমের আগেই নদী ভাঙন শুরু

২০২০ মে ৩১ ১৬:০৬:৪৯
বর্ষা মৌসুমের আগেই নদী ভাঙন শুরু

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, বরিশাল : বর্ষা মৌসুমের আগেই কীতর্নখোলা, সন্ধ্যা ও বিষখালীর ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে পরেছেন নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা। ইতোমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে বসতভিটা, হাট-বাজার, সড়ক, আবাদী জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

নদী ভাঙ্গন শুরু হওয়ায় বর্তমানে হুমকির মুখে রয়েছে সরকারী-বেসরকারি অসংখ্য স্থাপনা, ঘরবাড়ি ও বাজার। সর্বশেষ গত শুক্রবার রাতে জেলার বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের মসজিদবাড়ি গ্রামের দাসেরহাট বাজারের অদূরে হঠাৎ করে সন্ধ্যা নদীর ভাঙনে ১২টি পরিবারের বসতভিটা বিলীন হয়ে গেছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মৃধা জানান, আকস্মিকভাবে সন্ধ্যা নদীর তীরে বসবাসরত রতন বাড়ৈ, নিকুঞ্জ দেউরী, মনি বাড়ৈ, অনিল দেউরী, যশরত নাটুয়া, সুনীল মাল, হাবিব সিকদার, রাজে আলী সিকদার, নির্মল বাড়ৈ, অমৃত মধু, শ্যামল গাইন ও কৃষ্ণ বৈদ্যর বসতভিটা, গাছপালাসহ আবাদী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।
কীর্তনখোলার চরকাউয়া নদী ভাঙ্গনরোধে সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক মুনাওয়ারুল ইসলাম অলি বলেন, বর্ষা মৌসুমের আগেই গত কয়েকদিন ধরে নদী ভাঙ্গনে দিশাহারা হয়ে পরেছে এই এলাকার মানুষ। বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানানোর পর তারা ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন। তারা খুব শীঘ্রই ভাঙ্গন প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন।

বরিশাল পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোঃ শফিউদ্দিন বলেন, ইতোমধ্যে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই ভাঙ্গন প্রতিরোধে স্থায়ী সমাধান করা হবে।

অপরদিকে ঘূর্ণিঝড় আমফানের আঘাতে নিশ্চিহ্ন বিশখালী নদীর তীরবর্তী এলাকার হাজারো পরিবারের ঈদ কেটেছে চরম উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ও আতঙ্কের মধ্যদিয়ে। বিশখালীর ভয়াবহ ভাঙন ও তীর রক্ষা বাঁধ ধ্বসে যাওয়ায় ভিটে-মাটি হারানোর আশঙ্কায় তাদের মাঝে এ আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। আমফানের আঘাতে ভেঙে যাওয়া বিশখালীর তীরবর্তী কাঠালিয়া উপজেলার চারটি ইউনিয়নের ২৬ কিলোমিটারের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ প্রায় পাঁচ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ এলাকাবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কারের কাজ শুরু করেছেন। তবে জরুরি ভিত্তিত্বে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধের স্থায়ীভাবে পুনর্নির্মাণ ও নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে জোর দাবি করেছেন ওই উপজেলার আমুয়া, কাঠলিয়া সদর, শৌলজালিয়া ও আওরাবুনিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দারা।

সূত্রে আরও জানা গেছে, পুরো বাঁধ ভেঙে গেলে অরক্ষিত হয়ে পরবে গোটা কাঠালিয়া উপজেলা। হুমকিতে পরবে উপজেলা কমপ্লেক্সসহ সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।

এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমাদুল হক মনির বলেন, জরুরি ভিত্তিতে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ সংস্কার ও বিশখালীর ভাঙ্গন প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, জরুরি ভিত্তিত্বে ভয়াবহ নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধ করা না গেলে উপজেলার ৮০ শতাংশ এলাকার ঘরবাড়ি, ফসলী জমি ও সরকারি অফিস-আদালত ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হবে। স্থায়ীভাবে ভাঙ্গনরোধের জন্য আমুয়া ইউনিয়ন থেকে আওরাবুনিয়া পর্যন্ত ২৬ কিলোমিটার এলাকায় ব্লক দিয়ে টেকসই বাঁধ নির্মাণের জন্য তিনি জোর দাবি করেন।

সবশেষ আমফানে ক্ষতিগ্রস্থ কাঠালিয়ার বিশখালীর তীরবর্তী নিশ্চিহ্ন বেড়িঁবাধ ও নদীভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসক জোহর আলী বলেন, কাঠালিয়াকে আর ভাঙতে দেওয়া যাবেনা, ভাঙন থেকে রক্ষা করা হবে। এজন্য দ্রুত সময়ের মধ্যে বাঁধের সংস্কার ও নদীর তীর রক্ষায় ২৬ কিলোমিটার কাজ বাস্তবায়নে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

সূত্রমতে, দীর্ঘ দুই যুগের অধিক সময় ধরে বিশখালী নদীর ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে অসংখ্য হাট-বাজার, রাস্তা-ঘাট, হাজার হাজার একর ফসলি জমি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও আশ্রয়কেন্দ্রসহ বহু স্থাপনা। বর্তমানে হুমকির মুখে পরেছে উপজেলা কমপ্লেক্সসহ সরকারি-বেসরকারি অসংখ্য প্রতিষ্ঠান ও বাড়ি-ঘর।

(টিবি/এসপি/মে ৩১, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

০৮ জুলাই ২০২০

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test