E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

চট্টগ্রাম বন্দরে স্ক্র্যাপের বদলে আসল পাথর, দেড় কোটি টাকা পাচারের প্রচেষ্টা!

২০২০ নভেম্বর ২৪ ১৫:৩৬:২৯
চট্টগ্রাম বন্দরে স্ক্র্যাপের বদলে আসল পাথর, দেড় কোটি টাকা পাচারের প্রচেষ্টা!

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রাম বন্দরে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ৫৩৬ টন স্ক্র্যাপ ঘোষণা দিয়ে আনা হয়েছে মূলহীন ১১৫ টন কনক্রিট ব্লক (পাথরের টুকরো)। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস কর্তৃক পণ্য ও কনক্রিটভর্তি ২০টি কন্টেইনার জব্দ করেছে।  এতে করে অন্তত দেড় কোটি টাকা বিদেশে পাচার করা হয়েছে বলে ধারণা করছে সংশ্লিষ্টরা।

কাস্টমস সুত্রে জানা গেছে, আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান-সাকুরা স্টীল লি: (ঠিকানা-সিন্দুরিয়া পাড়া, ময়নামতি বাজার, বুড়িচং, কুমিল্লা) সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ৫৩৬ টন স্ক্র্যাপ আমদানির জন্য রুপালী ব্যাংক লি: এর দিলকুশা শাখায় একটি ঋণপত্র খোলেন। ঋণপত্রে পণ্যের মূল্য ধরা হয় ১,৭১,৫৭৪ মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ১ কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা। উক্ত ঋণপত্রের আওতায় গত ২১/০৪/২০১৯ খ্রি: তারিখে দুবাই এর জাবেল আলি বন্দর থেকে এমভি স্মাইলি লেডি জাহাজ যোগে আয়রণ শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে স্ক্র্যাপ ঘোষণায় ২০ টি কন্টেইনার চট্টগ্রাম বন্দরে আসে। শিল্পের কাঁচামাল হওয়ায় তড়িৎ খালাসের লক্ষ্যে কন্টেইনারগুলো সিসিটিসিএল ডিপোতে (বেসরকারি অফডক) প্রেরণ করা হয়।

পণ্য আমদানীতে বড় ধরণের এই জালিয়াতির বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম কাস্টমসের এআইআর শাখার সহকারী কমিশনার রেজাউল করিম জানান, পণ্য খালাসের জন্য আমদানিকারক দীর্ঘদিন কোন ধরণের উদ্যোগ না নেয়ায় এবং কাস্টমস কর্তৃপক্ষের নিকট কোন ডকুমেন্ট দাখিল না করায় আমদানীকৃত পণ্য নিয়ে সন্দেহ সৃষ্টি হয়।

পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের অডিট, ইনভেস্টিগেশন এন্ড রিসার্চ টিম (এআইআর) কন্টেইনারগুলো পরীক্ষার উদ্যোগ নেয় এবং কন্টেইনার খুলে দেখা যায় ৫৩৬ টন স্ক্র্যাপের পরিবর্তে বাণিজ্যিকভাবে মূল্যহীন কিংবা স্বল্প মূল্যের ১১৫ টন কনক্রিট ব্লক পাওয়া যায়।

এক্ষেত্রে অনুসন্ধান শুরু করেছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের এন্টি মানিলন্ডারিং ইউনিট।

(জেজে/এসপি/নভেম্বর ২৪, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

২০ জানুয়ারি ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test