E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

মাদারীপুরে কলেজছাত্রীকে লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে মানববন্ধন

২০২১ ডিসেম্বর ০৫ ১৭:২৫:০৮
মাদারীপুরে কলেজছাত্রীকে লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে মানববন্ধন

ওহিদুজ্জামান কাজল, মাদারীপুর : মাদারীপুরে এক কলেজ ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবি সংগঠনের আয়োজনে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে বিচারের দাবীতে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। এতে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা অংশগ্রহণ করে। 

এ সময় বক্তারা অভিযোগ করেন, শনিবার দুপুরে শহরের সরকারি গণগ্রন্থাগারে বই পড়তে যায় সরকারী সুফিয়া মহিলা কলেজের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রী। এ সময় বই চুরির অভিযোগ এনে প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরিয়ান মো. বেলায়েত হোসেন তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। এ ঘটনার বিচার ও লাইব্রেরিয়ান বেলায়েত হোসেনের অপসারণের দাবী করেন বক্তারা। পরে জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুনের কাছে বিচারের দাবীতে স্মারকলিপি দেন। ওই ছাত্রী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বপ্নের সবুজ বাংলাদেশের সদস্য।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নকশি কাথার সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আয়শা সিদ্দিকা আকাশী, উপদেষ্টা এসএম আরাফাত হাসান, দুরন্ত মাদারীপুরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাকিব হাসান বকুল, বিডি ক্লিন মাদারীপুরের জেলা সমন্বয়কারী রাহাত হোসেন সোহান, স্বপ্নের সবুজ বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ইমরান মুন্সি, বন্ধনের সভাপতি জিল্লুর রহমান সম্রাট তালুকদার, কেএম জুবায়ের জাহিদ প্রমুখ।

ভুক্তভোগী কলেজ ছাত্রী ও তার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে কলেজ ছাত্রী মাদারীপুরের সরকারী গণগ্রন্থাগারে তিন বান্ধবী মিলে বই পড়তে যায়। এসময় ওই ছাত্রীর ব্যক্তিগত প্রাইভেট শিক্ষক ডাক দেন। এসময় ওই ছাত্রী এগিয়ে গেলে সরকারী গণগ্রন্থাগারের লাইব্রেরীয়ান বেলায়েত হোসেন তাকে ডেকে নিয়ে বই চুরির অভিযোগ দেন। এক পর্যায়ে অকাট্যভাষায় গালি দেন এবং তাকে চড় থাপ্পড় মারেন। এ অপমান সইতে না পেরে ওই শিক্ষার্থী আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরিবার টের পেয়ে আত্মহত্যার হাত থেকে তাকে রক্ষা করেন।

কলেজ ছাত্রীর মা বলেন, “আমার মেয়ের শরীরে হাত তুলেন লাইব্রেরীয়ান বেলায়েত হোসেন। সে এই কাজ করে বড় অন্যায় করেছেন। আমার মেয়ে এই অপমান সইতে না পেরে আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছেন। আমি এই জঘন্য ঘটনার বিচার চাই।” ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বলেন, “আমি বই চুরি করিনি। যদি আমি কোন অন্যায় করে থাকি তাহলে আমাকে আইনের হাতে তুলে দিতে পারতেন। কিন্তু আমাকে চড়থাপ্পড় মেরেছেন। তা কিছুতেই মানতে পারছিনা। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।” নকশি কাথার উপদেষ্টা এসএম আরাফাত হাসান বলেন, “লাইব্রেরীয়ান বেলায়েত হোসেন কলেজ ছাত্রীর শরীরে হাত তুলেছেন। এটা কোন ভাবেই মানা সম্ভব না। আমরা এর বিচার চাই। বিচারের দাবীতে প্রয়োজনে আরো বড় আন্দোলন করা হবে।” নকশি কাথার সাধারণ সম্পাদক আয়শা সিদ্দিকা আকাশী বলেন, “একজন কলেজ ছাত্রীর উপর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনকারী বেলায়েত হোসেনের বিচার দাবী করছি। যদি সঠিক বিচার না হয় তাহলে আমরা বৃহত্তম আন্দোলন করবো।”

অভিযুক্ত লাইব্রেরীয়ান বেলায়েত হোসেনের কাছে এই ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আসলে ভুল বোঝাবুঝির কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে। এজন্য আমি ক্ষমা চাচ্ছি।”

এ ব্যাপারে মাদারীপুুর মহিলা অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক মাহমুদা আক্তার কণা বলেন, “ঘটনাটি খুবই জঘন্যতম। কোনভাবেই একজন লাইব্রেরীয়ান একজন কলেজ ছাত্রীর শরীরে হাত তুলতে পারেনা। অবশ্যই অপরাধীর বিচার হওয়া উচিত।”

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, “এই ঘটনার ব্যাপারে তদন্ত কমিটি করা হবে। আর ঘটনার সত্যতা পেলে অবশ্যই অপরাধীকে আইনের মাধ্যমে বিচার করা হবে।”

(ওকে/এসপি/ডিসেম্বর ০৫, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

১৯ জানুয়ারি ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test