E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

সতিনকে সম্পত্তি বঞ্চিত করতেই ফন্দি আটেন শরিফা

হবিগঞ্জে এক নারী ও কাজীর বিরুদ্ধে ভুয়া তালাক নামা সাজিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

২০২২ আগস্ট ০৬ ১৫:০৯:৫৪
হবিগঞ্জে এক নারী ও কাজীর বিরুদ্ধে ভুয়া তালাক নামা সাজিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

তারেক হাবিব, হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জে ভুয়া তালাক নামা তৈরি করে সতিনকে বঞ্চিত করে স্বামীর সম্পত্তি একা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে শরীফা আক্তার নামে এক নারীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে বানিয়াচং উপজেলার কুর্শা খাগাউড়া গ্রামে। প্রতিকার পেতে ভুক্তভোগী অপর নারী শাহিনা আক্তার মিলন ঘুরে বেড়াচ্ছেন সমাজ পতিদের দ্বারে দ্বারে।

জানা যায়, প্রায় ৩৫ বছর আগে লক্ষীপুর জেলার এনায়েতপুর গ্রামের মৃত সাইদুল হক পাটোয়ারীর কন্যা শাহিনা আক্তার মিলনের সাথে পারিবারিক ভাবেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন বানিয়াচং উপজেলার কুর্শা খাগাউড়া গ্রামের মৃত জবেদ আলীর পুত্র হাজী লুৎফর রহমান। দাম্পত্য জীবনে পরপর তাদের টি সন্তান জন্ম গ্রহন করেন। ২০১১ সালে সাংসারিক প্রয়োজনে আবারও তিনি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন নবীগঞ্জ উপজেলার বাংলা বাজার এলাকার কদ্দুস মিয়ার কন্যা শরীফা আক্তারের সাথে।

২য় স্ত্রীকে নিয়ে চলমান দীর্ঘ সংসারে হঠাৎ করে বার্ধক্য জনিত কারনে রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০২০ সালের ২৩ মার্চ চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিলেট এমজি ওসমানী মেডিকেল কলেজে মৃত্যুবরন করেন। মৃত্যুর পর দুই স্ত্রী ও তার উত্তরাধিকারীদের মধ্যে সম্পত্তি সংক্রান্ত বিষয়াদি নিয়ে নানা বিরোধ দেয়া দেয়।

এদিকে, স্বামীর সম্পত্তি সব একাই কজ্বা করতে লাখাই উপজেলার নিকাহ ও তালাক রেজিস্ট্রার মাওঃ আব্দুল কাইয়ুমের মাধ্যমে যোগসাজসে ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর তারিখে সাজিয়ে ভূয়া তালাকনামা তৈরি করেন ২য় স্ত্রী শরীফা আক্তার। পরে তালাকের বিষয়টি জানা-জানি হলে প্রথমে তালাকের বিষয়টি সত্য এবং পরে লিখিত প্রত্যয়নের মাধ্যমে অস্বীকার করেন সংশ্লিষ্ট কাজী মাওঃ আব্দুল কাইয়ুম।

এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে ভুক্তভোগী শাহিন আক্তার মিলন জানান, স্বামী হাজী লুৎফর রহমানের বিষয় সম্পত্তি একা আত্মসাত করতে শরীফা আক্তার ও তার সহযোগীরা ভুয়া তালাকনামা তৈরি করেছেন। ২০১৮ সালের তালাকের বিষয়টি তার স্বামী তাকে কখনোই অবগত করেননি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি স্বামীর সেবায় ছিলেন।

অভিযুক্ত ২য় স্ত্রী শরীফা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনাটি সত্য নয়, ভুয়া তালাক নামা তৈরি সাথে তিনি জড়িত নন।

এর আগে শাহিনা আক্তার মিলনকে হাজী লুৎফর রহমান মৌখিক ভাবে তালাক দিয়েছেন। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়ে মামলা মোকদ্দমা শেষে আপোষে মিমাংসা হয়েছে। কাজী মাওঃ আব্দুল কাইয়ুমের মোবাইল নাম্বারে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

(টিএইচ/এসপি/আগস্ট ০৬, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

০৯ আগস্ট ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test