E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে যাচ্ছে সুন্দরবন, অস্তিত্ব সংকটে বন্যপ্রাণী

২০২২ আগস্ট ১২ ২২:৫৩:১৪
জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে যাচ্ছে সুন্দরবন, অস্তিত্ব সংকটে বন্যপ্রাণী

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট : বিশ্ব ঐতিহ্য এলাকা ম্যানগ্রেভ সুন্দরবন চব্বিশ ঘন্টায় জোয়ারে পানিতে এক থেকে দেড় ফুট পানিতে প্লাবিত হলেও এখন জলবায়ু পরিবর্তনসহ ঘন ঘন প্রাকৃতিক দূর্যোগে ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছাসে তলিয়ে যাচ্ছে। সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে গত তিন দিনে ৩ থেকে ৫ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে গেছে গোটা সুন্দরবন। 

সুন্দরবনের সব থেকে উচু এলাকা হিসেবে চিহ্নিত চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল ট্যুরিজম ও বন্যপ্রানী প্রজনন কেন্দ্র শুক্রবার দুপুরের জোয়ারে ৩ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এই অবস্থায় গোটা সুন্দরবনে বাঘ, হরিণসহ ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রানী আস্তত্ব সংকটে পড়েছে। পানির তোড়ে মারা পড়ছে অনের বন্যপ্রানী। গত তিন মাসে পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের লোকালয়ে ঢুকে পড়ে বাঘ, হরিণ ও অজগরসহ ৫০টি অধিক বন্যপ্রানী। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের পর বাগেরহাটের শরণখোলার বলেশ^র নদীতে মৃত অবস্থায় ভেসে আসা তিনটি হরিণ উদ্ধার করে স্থনীয়রা।

তবে, সুন্দরবন বিভাগ বলছে, জলবায়ু পরিবর্তনসহ ঘন ঘন প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময় গোটা সুন্দরবনে ৮৫টি পুকুরের উচু পাড়সহ বন বিভাগের অফিস ও টহল ফাঁড়ীর উচু এলাকায় বন্যপ্রানীরা আশ্রয় নিচ্ছে। বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ (বিশ্ব ঐতিহ্য) সাইডে শুষ্ক মৌসুমে ১২টি উচু মাটির টিলা বা কিল্লা নির্মান কাজ শেষে হলে প্রাকৃতিক দূর্যোগে বাঘ, হরিণ ও অজগরসহ বন্যপ্রানীদের আরো নিরাপদ রাখা সম্ভব হবে।

সুন্দরবন নিয়ে নিরান্তর গবেষনা করা প্রতিষ্ঠান সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাউন্ডশনের চেয়ারম্যান ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম জানান, জলবায়ু পরিবর্তনসহ ঘন ঘন প্রাকৃতিক দূর্যোগ ও মনুষ্য সৃষ্ট দূষনের কারনে শুধু বন্যপ্রানীরাই নয়, গোটা সুন্দরবন এখন অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। নিয়মিত জরিপ না হওয়ায় ৩৭৫ প্রজাতির ককোটি করে বন্যপ্রানী রয়েছে তার হাল নাগাদ কোন তথ্যই নেই সুন্দরবন ভিভাগের হাতে। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের পর বাগেরহাটের শরণখোলার বলেশ^র নদীতে মৃত অবস্থায় ভেসে আসা তিনটি হরিণ উদ্ধার করে স্থনীয়রা। এভাবে কতো বন্যপ্রানী যে মারা যাচ্ছে তার কোন ইয়াত্তা নেই। সুন্দরবনের সব থেকে উচু এলাকা হিসেবে চিহ্নিত চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল ট্যুরিজম ও বন্যপ্রানী প্রজনন কেন্দ্র শুক্রবার দুপুরের জোয়ারে ৩ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। তবে, এখনো এই কেন্দ্রের হরিণ, কুমির ও বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির কচ্ছপ বাটারগুল বাসকাগুলো নিরাপদ রয়েছে।

বর্তমানে সুন্দরবনে পর্যটনসহ সব ধরনের লোকজনে প্রবেশাধীকারে নিষেধাঞ্জা চলছে। সেকারনে গত ৩ দিনে সুন্দরবন ৩ থেকে ৫ফুট জলোচ্ছাসে প্লাবিত হলেও পানির তোড়ে অনেক বন্যপ্রানী ভেঁসে গেছে বা মারা পড়ছে এটা সত্য। তবে, সুন্দরবনে লোকজন না থাকায় ভেসে যাওয়া বা কতো বন্যপ্রাণী মারা পড়ছে সে বিষয়টি জানা যাচ্ছেনা।

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল পর্যটন ও বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজাদ কবির জানান, লঘুচাপের প্রভাব ও পূর্নিমার অস্বাভাবিক উচ্চতার জোয়ারের সুন্দরবনের করমজল ট্যুরিজম ও বন্যপ্রানী প্রজনন কেন্দ্র গত দুই দিনে (বুধ ও বৃহস্পতিবার) ২ থেকে আড়াই ফুট উচ্চতার জ্বলোচ্ছাসে তলিয়ে যায়। তবে শুক্রবার (১২ আগষ্ট) দুপুরের জোয়ারে তিন ফুটের অধিক পানি বেড়ে গোটা এলাকা তলিয়ে গেছে। এতে করমজলের রাস্তঘাটসহ পানি থৈথৈ করছে। তবে, এখনো করমজল বন্যপ্রানী প্রজনন কেন্দ্রের বন্যপ্রানী হরিণ, কুমির ও বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির কচ্ছপ বাটাগুর বাসকা নিরাপদ রয়েছে।

সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) আতু নাসের মোহম্মদ মহসিন হোসেন জানান, জলবায়ু পরিবর্তনসহ ঘন ঘন প্রাকৃতিক দূর্যোগে সুন্দরবনে পানির উচ্চতা বাড়ছে। প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময় গোটা সুন্দরবনে ৮৫টি পুকুরের উচু পাড়সহ বন বিভাগের অফিস ও টহল ফাঁড়ীর উচু এলাকায় বন্যপ্রানীরা আশ্রয় নিচ্ছে। বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ (বিশ্ব ঐতিহ্য) সাইডে শুষ্ক মৌসুমে ১২টি উচু মাটির টিলা বা কিল্লা নির্মান কাজ শেষে হলে প্রাকৃতিক দূর্যোগে বাঘ, হরিণ ও অজগরসহ বন্যপ্রানীদের আরো নিরাপদ রাখা সম্ভব হবে।

(এসএকে/এসপি/আগস্ট ১২, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test