E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

শেষ হলো গোপাল চাঁদ ঠাকুরের ১০২তম বারুণী স্নান ও ধর্মীয় মতুয়া মহামেলা

২০২৪ এপ্রিল ২১ ২০:৩৫:৪৮
শেষ হলো গোপাল চাঁদ ঠাকুরের ১০২তম বারুণী স্নান ও ধর্মীয় মতুয়া মহামেলা

সরদার শুকুর আহমেদ, বাগেরহাট : বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জ উপজেলার লক্ষ্মীখালীতে শুরু হয়েছে ঐতিহ্যবাহী গোপাল চাঁদের ঠাকুরের ১০২তম বারুণীস্নান ও ধর্মীয় মতুয়া মেলা। সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বীদের মদন ত্রয়োদশী তিথি অনুযায়ী শনিবার মধ্যরাত থেকে  শুরু হয়ে করে রবিবার বিকাল পর্যন্ত চলে স্নানোৎসব। হাজার হাজার ভক্তরা ইহজাগতিক পাপ মোচন ও পারামার্থিক কল্যান লাভের জন্য স্নানে অংশ নেয়। এই গরমের মেধ্যেও এবারের মেলায় কমপক্ষে ২ লাখ ভক্ত, পূর্ণার্থীর সমাগত হয়েছে। এবারের বারুণী স্নান ও ধর্মীয় মতুয়া মহামেলার দ্বিতীয় দিনে প্রধান অতিথি ছিলেন বাগেরহাট ৪ আসনের এমপি কেন্দ্রীয় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

মোরেলগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী গোপাল চাঁদ ঠাকুরের ‘স্নান ও বারুণী মেলা’ শুরু বাংলা ১৩২৮ সাল থেকে মেরেলগঞ্জের লক্ষ্মীখালী গ্রামে গোপাল সাধুর লীলাধামে। যা এখন ‘গোপাল সাধুর’ মেলা নামেও পরিচিত। সেই ধারাবাহিকতায় শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের ২১৩তম শুভ জয়ন্তী উপলক্ষে শ্রী শ্রী গুরুদাস ঠাকুরের নির্দেশে এবারের বারুণী স্নান ও ধর্মীয় মতুয়া মহামেলার আয়োজন করা হয়।

আয়োজকরা জানান, ভ্রম্মচারী শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুর বাংলা ১২১৮ সালে বৈশাখী পূর্ণিমায় সোমবার গোপালগঞ্জের ওড়াকান্দিতে জন্ম গ্রহন করেন। ধর্মীয় মতাদর্শে হরিচাঁদ ঠাকুর ওড়কিান্দি থেকে ভারত উপমহাদেশের শোষন নিস্পেশন বিরোধী ও গণমানুষের মুক্তির আন্দোলন শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন অঞ্চলে তার লাখ লাখ ভক্ত অনুসারী তৈরী হয়। যারা এখন মতুয়া সম্প্রদায় নামে পরিচিত।

মেলায় আসা পূর্ণার্থীরা জানান, মতুয়া ভক্তরা প্রতি বছর মধুকৃষ্ণা পূর্ণিমার ত্রয়োদশী তিথিতে ওড়াকান্দিতে হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মোৎসব পালন করেন। ওড়াকান্দির ১৫দিন পরে গোপাল চাঁদ ঠাকুরের লীলা নিকেতন মোরেলগঞ্জের লক্ষ্মীখালীতেও প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে মতুয়া সম্প্রদায়ে বারুণী স্নান ও ধর্মীয় মকুয়া মহামেলা।

(এসএসএ/এএস/এপ্রিল ২১, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২৩ মে ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test