E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

জমি নিয়ে বিরোধের জের

টঙ্গীবাড়িতে ভাই-ভাতিজার হাতে ভাই খুন 

২০২৪ এপ্রিল ২৫ ১৬:২৫:০৭
টঙ্গীবাড়িতে ভাই-ভাতিজার হাতে ভাই খুন 

নবারুণ দাশগুপ্ত, টঙ্গীবাড়ী : মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার তৈলকাই গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ভাতিজা ও ভাই মিলে ভাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, তৈলকাই গ্রামের মোবারক হালদার তার জমি বিক্রয় করতে চাইলে সেই জমি তার অপর ভাই নিহত কাদির হালদার (৬৫) ও ফারুক হালদার কিনতে চায়। কিন্তু জালাল হালদার এর বড় ছেলে রুবেল হালদার অন্য চাচাকে না জানিয়ে গোপনে একমাস আগে ওই জমি মোবারক হালদার থেকে নিজ নামে রেজিস্ট্রি করে নেয়। এ নিয়ে রুবেল হালদারকে নিহত কাদির হালদার সহ তার অন্যান্য চাচারা জিজ্ঞাসাবাদ করলে রুবেল হালদার বলে পরে ওই জমি অন্যান্য চাষাদের নামে টাকা নিয়ে লিখে দিবে।

পরে বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাত এগারোটার দিকে নিহত কাদির হালদার আর তার ছেলে আরিফ হালদার, ফয়সাল হালদার, তার ভাই ফারুক হালদার মিলে তার অপর ভাই জালাল হালদারের বাড়িতে গিয়ে জালাল হালদারের ছেলে রুবেল হালদারকে জমি ফিরিয়ে দিতে বলে এই নিয়ে কথা কাটাকাটি একপর্যায়ে রুবেল হালদার, মোবারক হালদার, লাবু হালদার, শহীদ শেখ, বাক্কার শেখ সহ ১০ হতে ১২ জন মিলে নিহত কাদির হালদার ও তার দুই ছেলে আরিফ হালদার ও ফয়সাল হালদারকে পিটিয়ে গুরুতর যখম করে। গুরুতর অবস্থায় কাদির হালদার কে উদ্ধার করে টঙ্গীবাড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে নিহত কাদিন হালদারের পুত্রবধূ জানান, জমি নিয়ে বিরোধের কারণে আমার শ্বশুরকে তারা পিটিয়ে গুরুতর যখন করে এবং হাসপাতলে আমার শ্বশুর মারা যায়। আমার স্বামী ও আমার দেবরকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে এবং আমার স্বামীর হাতের আঙ্গুল ভেঙে দেয়। ওখানে উপস্থিত রুবেল হালদার, মোবারক হালদার, লাভু হালদার, শহীদ শেখ, বাক্কার শেখ সহ ১০-১২ জন লোকে আমার শ্বশুরকে এবং আমার স্বামী ও আমার দেবরকে একত্রিত হামলা চালায় এবং মারধর করে গুরুতর আহত করে, আমি তাদের উপযুক্ত বিচার চাই। আমার স্বামী আরিফ হালদার বাদী হয়ে থান অভিযোগ দায়ের করেছে।

এ ব্যাপারে টঙ্গীবাড়ী থানার এস আই আল মামুন বলেন, নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। জমি নিয়ে বিরোধ সে কথা বলতে গিয়ে মারা যায়। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

টঙ্গীবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোল্লা শোয়েব আলী বলেন, খুনের বিষয়ে আমরা মৌখিকভাবে শুনেছি। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে তবে নিহতের আত্মীয়-স্বজন আমাদের কাছে লিখিত কোন অভিযোগ এখনো করেননি। লিখিত অভিযোগ করলে বিস্তারিত জানা যাবে ও আইন কত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

(এনডি/এসপি/এপ্রিল ২৫, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২৪ মে ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test