E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

আপত্তিকর পোস্ট শেয়ারের অভিযোগে সাতক্ষীরায় দুই সহোদর গ্রেপ্তার

২০২৪ মে ২৫ ২১:১০:৫৮
আপত্তিকর পোস্ট শেয়ারের অভিযোগে সাতক্ষীরায় দুই সহোদর গ্রেপ্তার

রঘুনাথ খাঁ, সাতক্ষীরা : বিদেশে অবস্থানরত বহুল আলোচিত ব্লগার আসাদ নূরের ফেইসবুকে মহানবী সম্পর্কে আপত্তিকর পোস্ট শেয়ার ও কবিতার মাধ্যমে ফেইসবুকে পোস্ট দিয়ে তা সমর্থন করার অভিযোগে দুই সহোদরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোরে তাদেরকে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার কাদাকাটি ইউনিয়নের মিত্র তেঁতুলিয়া গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, আশাশুনি উপজেলার মিত্র তেঁতুলিয়া গ্রামের মন্টু অধিকারীর ছেলে খুলনা বঙ্গবন্ধু কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র রাকেশ অধিকারী ও একই কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র রাহুল অধিকারী।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, বেশ কয়েক বছর আগে বহুল আলোচিত বøগার আসাদ নূর ইসলাম ধর্মের মহানবী হযরত মুহাম্মদসহ বিভিন্ন ধর্মের আরাধ্য দেব দেবীদের নিয়ে বিভিন্ন সময়ে নিজের মনগড়া বিবৃতি ফেইসবুকে লাইফ দিয়ে আলোচনায় আসেন। একপর্যায়ে তিনি দেশত্যাগ করে ঠিকানা গোপন রেখে নিজের কার্যক্রম চালিয়ে যান। আশাশুনি উপজেলার মিত্র তেঁতুলিয়া গ্রামের রাকেশ অধিকারী মহানবীকে অবমাননা সংক্রান্ত ফেইসবুকের একটি স্টাটাস গত ১৯ মার্চ ও প্রায় একই ধরণের স্টাটাস ২২ মার্চ শেয়ার করেন। বিষয়টি তাৎক্ষণিক অনেকের নজরে আসলেও তা নিয়ে কোন বিরুপ মন্তব্য করা হয়নি।

সম্প্রতি ২০ মে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগের দিন কাদাকাটি ইউনিয়নের শাহ্নগরের সেন্টু শাহ্ এর ছেলে দরগাহপুর কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র সৌরভ শাহ্ শেয়ার করা রাকেশের স্টাটাসের স্কিন সর্ট তুলে সোসাল মিডিয়ায় দিলে তা ছড়িয়ে পড়ে। ভোটে শাহানেওয়াজ ডালিম হেরে যাওয়ার পর তারই সমর্থনকারি হিসেবে বিষয়টি নতুন করে রাজনৈতিক উত্তাপ ছড়ায়। ২৩ মে রাহুল ফেইসবুকে একটি ছড়া পোস্ট করেন। যেটি ছিল ধর্মীয় অবমাননাকে সমর্থন করার শামিল।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক মসজিদের ইমাম জানান, ভীতসন্ত্রস্ত মন্টু অধিকারী ও তার স্ত্রী তাপসী অধিকারী ২৩ মে দিনভর এলাকার বিভিন্ন সমাজ সচেতন মানুষের কাছে ছুটে যান। পার্শ্ববর্তী দুটি মসজিদের ইমাম তাদেরকে গঠণমূলক পরামর্শ দেন। সে অনুযায়ি সন্তানের মঙ্গল কামনায় বাবা ও মা ছেলে রাকেশ এর ক্ষমা চাওয়া সংক্রান্ত ভিডিও ফেইসবুকে দেন। এ ঘটনায় একটি মহল আরো ক্ষুব্ধ হলে এলাকায় উত্তেজনা বাড়ে। একপর্যায়ে শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে গোয়েন্দা পুরিশের একটি টিম মন্টু অধিকারীর বাড়িতে আসেন। দুপুরে পুলিশের ২৫ সদস্যের একটি বড় টিম ওই বাড়িতে আসেন।

এ সময় ফকরাবাদ গ্রামের হাফেজ রুহুল আমিন গাজী, টেকা কাশীপুরের বাক্কার সানা এলাকার মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের একটি মহলকে একত্রিত করে রাকেশ ও রাহুল অধিকারীকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে স্থানীয় বাজারে মানববন্ধন কর্মসুচি আহবান করে। পুলিশের কঠোর ভূমিকার কারণে তাদের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ি দু ঘণ্টার মধ্যেই বিকেল তিনটায় রাকেশ ও রাহুল সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে চলে আসলে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শনিবার ভোরে তাদেরকে আটক করা হয়।

শনিবার সকালে মিত্র তেঁতুলিয়া গ্রামের মন্টু অধিকারীর বাড়িতে যেয়ে দেখা গেছে যে কোন ধরণের সহিংসতা রুখতে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তবে এলাকায় শান্তির পরিবেশ বিরাজ করছিল। তবে মন্টু অধিকারী ও তাপসী অধিকারীর চোখে মুখে ছিল আতঙ্কের ছাপ। রাকেশ ও রাহুলের নামে মামলা হলেও তাদেরকে শনিবার আদালতে না পাঠানোয় অসুস্থ হয়ে পড়েন মা তাপসী অধিকারী।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ অধিকারী জানান, রাকেশ এর মোবাইল চেক করে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এ ছাড়া তার ভাই রাহুল কবিতা লিখে পোষ্ট করায় রাকেশকে সমর্থন করেছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে। ইসলাম ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করার অভিযোগে তেঁতুলিয়া বাজারের পাশের বাসিন্দা মোঃ সাইফুল সরদারের ছেলে ইব্রাহীম হোসেন বাদি হয়ে রাকেশ ও রাহুলের নাম উল্লেখ করে ফৌজদারি দণ্ডবিধিতে সাইবার নিরাপত্তা আইনে শনিবার থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেপ্তারকৃতদের রবিবার আদালতে পাঠানো হবে। এলাকায় শান্তি বজায় রাখতে পুলিশ মোতয়েন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

(আরকে/এএস/মে ২৫, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২২ জুন ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test