E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

সালথা-নগরকান্দার রাজনীতি

২০১৬ জুলাই ০১ ১৪:০৬:৫০
সালথা-নগরকান্দার রাজনীতি

আবু নাসের হুসাইন, সালথা প্রতিনিধি: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ । এদেশে ৫ বছর  অন্তর সাংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি (জেপি), জাকের পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশসহ একাধিক রাজনৈতিক দল অংশগ্রহন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ফরিদপুর-২, (সালথা-নগরকান্দা) আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দীর্ঘদিন যাবত প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে আসছে।

এ আসনে বাংলাদেশের দুই প্রবীন রাজনীতিবিদ আওয়ামী লীগের দুঃহসময়ের কান্ডারী, প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য, বর্তমান জাতীয় সংসদের মাননীয় উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর এম.পি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে একাধিকবার বিএনপির প্রার্থী কে.এম ওবায়দুর রহমানের সাথে ভোটের লড়াই করেছেন। দুজনেই পর্যায়ক্রমে কয়েকবার সাংসদ নির্বাচিত হন। এরমধ্যে সাজেদা চৌধুরী এলাকার উন্নয়নের দিক দিয়ে কে.এম ওবায়দুর রহমানের চেয়ে অনেক এগিয়ে রয়েছেন। ওবায়দুর রহমান মারা যাওয়ার পরে এই আসনের বিএনপি দুর্বল হয়ে পড়ে।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে, সংসদ উপনেতার নেতৃত্বে এবং তার জ্যেষ্টপুত্র নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের বিপ্লবী সভাপতি, গণমানুষের প্রানপ্রিয় নেতা, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, শিক্ষানুরাগী বীরমুক্তিযোদ্ধা আয়মন আকবার বাবলু চৌধুরীর প্রচেষ্টায় সালথা-নগরকান্দার আওয়ামী লীগ আজ আরো শক্তিশালী হয়েছে। আর শত চেষ্টা করেও কে.এম ওবায়দুর রহমানের কন্যা শ্যামা ওবায়েদ রিংকু বিএনপিকে ধরে রাখতে পারছেন না।

মাঝারদিয়ার হাবিবুর রহমান হামিদ, যদুনন্দীর আঃ রব মোল্যা, রামকান্তপুরের আলতাফ মোল্যা, আটঘরের মোহাম্মাদ ফকির সহ একাধিক নেতাকর্মী ও মুক্তিযোদ্ধারা এ প্রতিবেদককে জানান, বাঙ্গালী জাতীর স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এম.পি ও তার সুযোগ্যপুত্র, সালথা-নগরকান্দার গণমানুষের প্রানপ্রিয় নেতা, গরীবের বন্ধু, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী বীর মুক্তিযোদ্ধা আয়মন আকবার চৌধুরী বাবলু সালথা- নগরকান্দায় নিরলসভাবে কাজ করে আসছেন।

বাবলু চৌধুরীর অক্লান্ত প্রচেষ্টায় আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগি সংগঠন সমূহ আজ সক্রিয় হয়ে উঠেছে। বাবলু চৌধুরী, সততা ও ন্যায়নিষ্ঠার সাথে কাজ করে অল্প সময়ের মধ্যে এই এলাকার মানুষের মন জয় করতে সক্ষম হয়েছেন। যার প্রমান- ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করেছে, আর বিএনপির ভরাডুবি হয়েছে। শুধু তাই নয় বাবলু চৌধুরীর অনুরোধে এই দুটি উপজেলায় বর্তমানে উন্নয়নের জোঁয়ার বইছে। আজ এলাকায় মাদকমুক্ত প্রায়। সব খানেই শান্তির বাতাস বইতে শুরু করেছে। সাজেদা চৌধুরী ও বাবলু চৌধুরীর সঠিক নেতৃত্বের জন্য ২০০৯ইং সাল থেকে এপর্যন্ত শত শত বিএনপির নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগদান করেছেন।

এদিকে মরহুম কে.এম ওবায়দুর রহমানের কন্যা শ্যামা ওবায়েদ রিংকুর সঠিক নেতৃত্ব না হওয়ায় সালথা-নগরকান্দার বিএনপি ঝিমিয়ে পড়েছে। এখানে বিএনপির কোন কার্যক্রম হচ্ছে না। ফরিদপুর-২, আসনের সাধারণ মানুষ বিএনপি থেকে আস্তে আস্তে আওয়ামী লীগের দিকে ধাবিত হচ্ছেন। এরমধ্যে সালথা উপজেলায় বিএনপির কোন কার্যক্রম একেবারেই নাই বল্লেই চলে। এর কারণ হচ্ছে, নেতৃত্বের অভাব। রিংকুর কারণে সালথা- নগরকান্দায় বিএনপি, সব দলের নিম্নে চলে যাবে বলে এলাকাবাসী ধারণা করেছেন। শুধু আয়মন আকবার বাবলু চৌধুরীর সঠিক নেতৃত্বের জন্য- আগামী দিনে আওয়ামী লীগ আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে।



(এএনএইচ/এস/জুলাই০১,২০১৬)

পাঠকের মতামত:

২২ মে ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test