E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

‘খেলা হবে, প্রস্তুত ছিলাম আছি থাকবো’

২০১৭ আগস্ট ১২ ১৯:১৬:৪৩
‘খেলা হবে, প্রস্তুত ছিলাম আছি থাকবো’

মোহাম্মদ নেয়ামত উল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ : নিজেকে আওয়ামী লীগের দু:সময়ের কর্মী উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, আমরা প্রস্তুত ছিলাম, আছি এবং থাকবো। খেলা হবে, এবং আমরা জিতবো। কারণ আমরা খেলোয়ার। তিনি বলেন, শকুনীরা জোট বাধঁছে, ওরা যে কোনসময় হামলা করবো। কিন্তু নারায়ণগঞ্জে কোন শকুনকে হামলা করতে দেয়া হবে না। তাদের গলা টিপে মেরে ফেলব আমরা।

শনিবার নগরীর চাষাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত বিশাল শোক র‌্যালী পূর্ব সমাবেশে বক্তব্যে এসব কথা বলেন আলোচিত এই সাংসদ।

শামীম ওসমান বলেছেন, দেশে ও নারায়ণগঞ্জে নানা ধরণের ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। বিচার বিভাগ থেকেও ষড়যন্ত্র হচ্ছে। যারা খেলছেন খেলতে থাকেন। মনে রাখবেন আমরা কিন্তু খেলোয়াড়। সেই খেলা সুপ্রিম কোর্ট হউক, বিএনপি হউক, খালেদা জিয়া তারেক হউক, জামায়াত হউক কোন সমস্যা না। ওই খেলায় আমরাই জিতবো। পরে শামীম ওসমানের নেতৃত্বে কালো পতাকা সম্বলিত একটি বিশাল মিছিল শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

আগে থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল এ র‌্যালীতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য ও আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড. আনিসুর রহমান দীপু, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা মালা থাকছেন না। তারা কেউ আসেননি।

শামীম ওসমান বলেন, শেখ হাসিনা, শেখ হাসিনাই। বাংলাদেশ পাকিস্তান না। শেখ হাসিনা নওয়াজ শরীফও না। বাংলাদেশের মানুষ পাকিস্তানে বসবাস করে না। যদি কেউ মনে করে, পাকিস্তানের আদালত দিয়ে পাকিস্তানে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা বাংলাদেশেও একই পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হবে-তাহলে তারা বোকার রাজ্যে বসবাস করছেন। দেশে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। সমস্ত শকুন একদিকে হয়েছে মরণ আঘাত হানার জন্য।

শামীম ওসমান আরও বলেন, বাংলাদেশে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। ষড়যন্ত্র শুরু না হলে রূপগঞ্জে এত আস্ত্র পাওয়া যায় না। এ অস্ত্র সরকারকে সাহায্য করার জন্য আনা হয় নাই। সেখানে শতাধিক হেভি মেশিনগান পাওয়া গেছে। রকেট লাঞ্চার পাওয়া গেছে। গ্রেনেড পাওয়া গেছে। এসএমজি পাওয়া গেছে, এলএমজি পাওয়া গেছে।

ওরা কি করতে চায় প্রশ্ন করে শামীম ওসমান আরো বলেন, ওদের টার্গেট একটাই। আর সেটা হচ্ছে আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করা। তিনি বলেন, সমস্ত্র শক্তি, সমস্ত ষড়যন্ত্রকারী এক হয়েছে। তাদের এখন একটাই উদ্দেশ্য। তারা শেখ হাসিনাকে ধ্বংস করতে চায়।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদল, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নেতা চন্দন শীল, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সামিউল্লাহ মিলন, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আহসান হাবিব, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ রশিদ, মহিলা লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান খাঁন স্মৃতি, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু প্রমুখ।

বৃষ্টি উপেক্ষা করে র‌্যালীতে হাজার হাজার মানুষ
বৃষ্টি উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে সাংসদ শামীম ওসমান আয়োজিত শোক র‌্যালী জনসমুদ্রে পরিণত হয়। র‌্যালীতে হাজার হাজার নেতাকর্মী কালো পতাকা ও মাথায় কালো কাপড় বেধে দলে দলে মিছিল নিয়ে আসে। নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে নগরীর প্রাণকেন্দ্র চাষাড়া কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে আশপাশ এলাকাও ভরে যায়।

এর আগে সমাবেশ উপলক্ষে দুপুর থেকেই দলীয় নেতাকর্মীরা দলে দলে এসে যোগ দিতে থাকে সমাবেশে। মূল র‌্যালি শুরু হবার আগেই বিকেল সাড়ে ৩টার মধ্যেই সমাবেশস্থল সম্পূর্ণ পরিপূর্ণ হয়ে উঠে দলের নেতাকর্মীদের দিয়ে।

সমাবেশে হঠাৎ বোমা আতঙ্ক দৌড়াদৌড়ি
মঞ্চে বক্তব্য দিচ্ছেন সাংসদ শামীম ওসমান। বক্তব্যের মাঝপথে সমাবেশের পূর্ব দিক থেকে হঠাৎ বোমা বলে চিৎকার করে উঠেন কয়েকজন। সাথে যোগ দেয় বেশ কিছু কর্মীও। এরপর শুরু হয় আতঙ্কে দৌড়াদৌড়ি। এসময় কিছু না বুঝেই সমাবেশস্থলে আতঙ্কগ্রস্ত পশ্চিম দিকে দৌড় শুরু করে। এতে কয়েকজন মাটিতে লুটিতে পড়ে আহতও হয়।

বিষয়টি বুঝতে পেরে শামীম ওসমান মাইকে সবাইকে শান্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে বলেন। এরপর তিনি জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান তুলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেন। পরে তিনি বক্তব্য শেষ করে র‌্যালীর নেতৃত্বে দিতে কর্মীদের নির্দেশ দেন।

শনিবার নগরীর চাষাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত বিশাল শোক র‌্যালীপূর্ব সমাবেশে এ ঘটনা ঘটে।

(এনইউ/এএস/আগস্ট ১২, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test