E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

ডিএনডির পানি নিষ্কাশন না হওয়া পর্যন্ত ট্যাক্স না দেবার ঘোষণা

২০১৭ আগস্ট ২৬ ১৭:৪৩:৪৪
ডিএনডির পানি নিষ্কাশন না হওয়া পর্যন্ত ট্যাক্স না দেবার ঘোষণা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) বাধেঁর জলাবদ্ধতা নিষ্কাশন না হওয়া পর্যন্ত কোন রকমের কর না দেবার ঘোষণা দিয়েছে সচেতন নাগরিক সমাজ নামের একটি সংগঠন।

আজ (শনিবার) সকালে ডিএনডির জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে নগরীর চাষাড়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গণঅনশন কর্মসূচি থেকে সংগঠনটি এ ঘোষণা দেয়। এসময় বক্তারা আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জলাবদ্ধ ডিএনডির পানি নিষ্কাশন করার জন্য প্রশাসনকে সময় বেঁধে দেন।

বক্তারা বলেন, জনগণের ট্যাক্সের পয়সার জেলা প্রশাসকের বেতন হয়, কিন্তু জলাবদ্ধ ডিএনডিবাসীকে তিনি একদিনও দেখতে গেলেন না। সিটি কর্পোরেশনকে আমরা কর দেই, কিন্তু সেবা পাই নাই। তাই পানি নিষ্কাশন না হওয়া পর্যন্ত আমরা ট্যাক্স দিব না।

বক্তারা আরও বলেন, সংসদ সদস্য শামীম ওসমানকে সিংহপুরুষ বলা হয়, তিনি যদি একবার হুংকার দিতেন সরকারের টনক নড়ে যেত। কিন্তু তিনিও চুপসে গেলেন।

তারা আরও বলেন, মেয়র, এমপি ও জেলা প্রশাসক তাদের গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছেন। রাষ্ট্র ও জনগণেরকাছে দেয়া তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেননি। সুতরাং তাদের কাজের মধ্য দিয়ে এখন সেই ইমেজ উদ্ধার করার পালা। বক্তারা দাবি করেন, আমরা ইচ্ছে করলেই পাম্প হাউজ ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করতে পারতাম। কিন্তু তা করি নাই। কারণ আমাদের দূর্ভোগ কমাতে গিয়ে অন্যদের দূর্ভোগ বাড়াতে চাইনি।

সিদ্ধিরগঞ্জ সচেতন নাগরিক সমাজের আহবায়ক এম এ মাসউদ বাদলের সভাপতিত্বে গণঅনশনে আরও বক্তব্য রাখেন-আলহাজ্ব জয়দল হোসেন গাজী, সামসুল আলম জুলফিকার, আদমজীনগর কবরস্থান কমপ্লেক্সের সাধারণ সম্পাদক মাহিল উদ্দিন মাস্টার, সমাজসেবক আবুল কালাম দেওয়ান, মিজানূর রহমান রিপন, আব্দুর রশিদ পিন্টু, কবি আ: রাজ্জাক মোল্লা, আদমজীনগর ব্যবসায়ী সমাজের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো: ওয়াসেফ, লিয়াকত আলী, আব্দুল খালেক, দেলোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ সংযুক্ত তাঁতী সমিতির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক রাশিদা বেগম প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, এর আগে সংগঠনটি জলাবদ্ধতা নিরসন করতে ১৯ আগস্ট আয়োজিত একটি সংবাদ সম্মেলন থেকে জেলা প্রশাসনকে ৭দিনের আল্টিমেটাম দেয়।

সংগঠনের আহবায়ক কলামিস্ট এম এ মাসউদ বাদল জানান, প্রায় বিশ লক্ষ জনবসতির এই ডিএনডির দূর্ভোগ লাগবে কেউ এগিয়ে আসছে না। সংসদ সদস্য, মেয়র, জনপ্রতিনিধি এমনকি জেলা প্রশাসনও কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না। গণতান্ত্রিক একটি দেশে এতগুলো মানুষের হাহাকার কারো কানেই পৌছায় না। এরচে’ দু:খজনক আর কী হতে পারে।

(এমএনইউ/এসপি/আগস্ট ২৬, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

১৫ নভেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test