E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

অপরাধীদের নিরাপদ অভয়ারণ্য ‘চরফ্যাশন’

২০১৭ সেপ্টেম্বর ২১ ১৫:১২:১২
অপরাধীদের নিরাপদ অভয়ারণ্য ‘চরফ্যাশন’

আদিত্য জাহিদ, চরফ্যাশন (ভোলা) : ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার ২১ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বৃহৎ এলাকা বর্তমানে অপরাধীদের নিরাপদ অভয়ারণ্য হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ইয়াবা, মাদক,ধর্ষণ, স্কুল ছাত্রীকে বিস্কুট দেওয়ার নামে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে নৈশ প্রহরী কাম দপ্তরী তার কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ, অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে স্বামী স্ত্রী একই রশিতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা, গৃহবধূর আত্মহত্যা,  বিষপান, জমি জমা বিরোধকে কেন্দ্র করে লাঠিয়াল বাহিনী ভাড়া করে এনে জোর পুর্বক জমি দখল চরফ্যাশনে প্রতিদিন এখন নিত্যনৈমিভোলার চরফ্যাশন উপজেলার ২১ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বৃহৎ এলাকা বর্তমানে অপরাধীদের নিরাপদ অভয়ারণ্য হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ইয়াবা, মাদক,ধর্ষণ, স্কুল ছাত্রীকে বিস্কুট দেওয়ার নামে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে নৈশ প্রহরী কাম দপ্তরী তার কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ, অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে স্বামী স্ত্রী একই রশিতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা, গৃহবধূর আত্মহত্যা,  বিষপান, জমি জমা বিরোধকে কেন্দ্র করে লাঠিয়াল বাহিনী ভাড়া করে এনে জোর পুর্বক জমি দখল চরফ্যাশনে প্রতিদিন এখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।ত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।

উপজেলার ৩টি থানার আওতায় আরো ৩টি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র থাকলেও পুলিশের এসব অপরাধীরা পুলিশের উপর মরিচের গুড়া মেরে পিটিয়ে আহত করে অপরাধীরা পালিয়ে যাওয়ার মত ঘটনা ঘটছে। হাসপাতাল ও পুলিশ সুত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সম্প্রতি শশীভুষণ থানার জোর মসজিদ এলাকা থেকে পুলিশ গাজাঁ সহ পারুল বেগমকে গ্রেপ্তার করলে তার স্বামী ইয়াবা ব্যবসায়ী ধরাছোয়ার বাহিরে রয়েছে।

চরফ্যাশন থানা পুলিশ জানান, নীলকমল ইউনিয়নের চর যমুনায় মাদক ব্যবসায়ী শাহিনকে পুলিশ গ্রেপ্তারের পর পুলিশের উপর মরিচের গুড়ি মেরে, কামড়িয়ে হাতকড়া পড়া অবস্থায়া আসামী ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। এতে সহকারী ইন্সপেক্টর তারিকুল ইসলাম, গোবিন্দ, হাবিব, এএসআই শামিম, ও কনেষ্টবল পলাশ আহত হয়। পুলিশ বাদী হয়ে ২৮ জনকে জ্ঞাত এবং ৪০/৫০ জন কে অজ্ঞাত করে মামলা নং ৭ তারিখ ৬/৯/১৬ দায়ের করে। মামলা দায়েরের পর এ সংবাদ লেখা পযন্ত শাহিনকে আটক করতে পারেনি পুলিশ । চরফ্যাশন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ম. এনামূল হক আরো জানান, শাহিনের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য আইনে মামলা রয়েছে। দীর্ঘদিন যাবৎ সে পলাতক ছিল। সংবাদ পেয়ে আটক করতে গেলে তাদের উপর হামলা চালিয়ে আবার পালিয়ে যায়।

অপর ইয়াবা ও গাজাঁ আমদানী কারক রুবেল, কামাল, এখন পযন্ত পুলিশের ধরাছোয়ার বাহিরে রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। বিশ্বস্থ সুত্রে জানা গেছে রুবেল ঢাকার সদর ঘাটে লেবারের কাজ করার সুবাধে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হত্যার সাথে জড়িয়ে পড়ে এলাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়ি চলে আসে। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানার চর মানিকা ইউনিয়নে এসেও সে থেমে নেই। ঢাকার তৈল ঘাটের লিটন নামক এক লেবারের মাধ্যমে লঞ্চে করে ভোলার লালমোহন ও চরফ্যাশন উপজেলার ৪টি থানার বিভিন্ন ঘাটে লঞ্চ থেকে বাহকের মাধ্যমে পাচার করে মাদক সেবীদের হাতে পৌছে দেয়। সম্প্রতি শশীভূষণ থানা পুলিশের অভিযানে এক মহিলা মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে।

এসআই গোলাম মাওলা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী কামালের স্ত্রী পারভীন ওরফে নূরতাজকে আটক করা হয়। এসময় নূরতাজের কাছে ১২ পিজ ইয়াবা ও ৭০০ গ্রাম গাঁজা পাওয়া যায় বলে তিনি জানান।

স্থাণীয়রা জানান, আটক পারভীন বেগম রুবেলের মাদকের পাইকার । এঘটনায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া জেলার চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানার নজরুল নগর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে ১৮ আগষ্ট রাত আনুমানিক ৮টার সময় মীরা বাড়ির পুত্রবধূ সেলিনার সহযোগিতায় পাশ্ববর্তী ষোড়শী যুবতীকে ডেকে নিয়ে একই এলাকার রুবেল, আবু তাহের, খোকন, মিনহাজ কর্তৃক গণধর্ষণ করার অভিযোগ দক্ষিণ আইচা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সত্যতা স্বীকার করেছেন।

ধর্ষিতাকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করা হলে গাইনী চিকিৎসক ফাতেমা আক্তার ডলি তাকে রাত ১২টার সময় বরিশাল হাসপাতালে প্রেরণ করার পরামর্শ দেন।

ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শুক্রবার বিকেলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নজররুল নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রুহুল আমিন হাওলাদার ও ইউপি সদস্য মো. বশির জানান, রাত ৯ টার সময় তারা গণধর্ষণের সংবাদ পেয়ে ধর্ষিতাকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করেন। মীরার বাড়ির উঠানে রক্ত ও বীর্যের নমুনা পাওয়া যায় বলে পুলিশ স্বীকার করেছে। গণধষর্ণের ৮ মাস পর পার হলেও পুলিশ ধর্ষক রুবেলকে গ্রেপ্তার করেছে।

উপজেলার তিন থানার পুলিশ জানান, আমরা মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্ছার আছি। তথ্য পেলেই অভিযান পরিচালনা করি। এলাকাবাসীর অভিযোগ আমদানীকারকদের গডফাদার সবসময় ধরা ছোয়ার বাহিরে থাকে। এদেরকে আটক করতে পারলে মাদকের আমদানী বন্ধ সহ বিভিন্ন অপরাধ কমে যাবে।

(এজে/এসপি/সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

১৩ নভেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test