E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

‘তারেক রহমানকে শাস্তি দেওয়াই সরকারের মূল লক্ষ্য’

২০২৪ মে ২৭ ১৪:১১:০৩
‘তারেক রহমানকে শাস্তি দেওয়াই সরকারের মূল লক্ষ্য’

স্টাফ রিপোর্টার : জনগণের সেবা করা বা তাদেরকে রক্ষা করা নয়, তারেক রহমানকে শাস্তি দেওয়াই সরকারের মূল লক্ষ্য বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

সোমবার (২৭ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে ঢাকা জেলা বিএনপির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যের জবাবে এ মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু আশফাক, কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেনসহ সকল কারাবন্দির মুক্তি দাবি এবং ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবন ও সাবেক সংসদ গোলাম মাওলা রনির ওপর হামলার প্রতিবাদ এবং দায়িদের গ্রেপ্তারের দাবিতে এই মানববন্ধন হয়।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে দেশের অনেক মানুষ, সম্পদ ও জনপদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে-এই নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত। দেশে যখন এই চরম সংকট, যখন উপকূলীয় এলাকায় ১০ নম্বর সংকেত, তখন দেশের প্রধানমন্ত্রীকে আমরা বলতে শুনলাম-তারেককে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে বিচার করার কথা। দেশ যখন দুর্যোগে, তখন তার কাছে দেশের মানুষকে বাঁচানো, জনগণের সম্পদ রক্ষা গুরুত্বপূর্ণ কাজ নয়। একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো-তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি করা।

তিনি আরও বলেন, আরাফাত রহমান কোকোকে বিদেশে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে, খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। জিয়া পরিবারে আছেন শুধুমাত্র তারেক রহমান। জিয়া পরিবারকে এতই অপছন্দ যে, তাকে দেশে এনে শাস্তি দিতে হবে।

নজরুল ইসলাম বলেন, কী অপরাধ তারেক রহমানের? একজন বিচারক তাকে একটি মামলায় খালাস দিয়েছিলেন। ওই বিচারক পরে দেশে থাকতে পারেননি। এসকে সিনহার মতো তাকেও দেশত্যাগ করতে হয়েছে। উচ্চ আদালতে তাকে সাজা দেওয়া হয়েছিল। আরেকটি মামলার এজারসহ কোথাও তারেক রহমানের নামই ছিল না। একজন অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কমকর্তা আবদুল কাহার আকন্দ, তিনি তার এলাকায় নৌকা মার্কার ব্যানার লাগিয়ে প্রচারণা করেছিলেন। তাকে সেখান থেকে এনে উচ্চতর পদে নিয়োগ দিয়ে এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হল। এই কাহার আকন্দ মুফতি হান্নানকে এক’শ দিনের বেশি রিমান্ডে নিয়ে অত্যাচার করে তাকে দিয়ে তারেক রহমানের নাম বলিয়েছে। সেই মামলায় বিদেশে থাকা অবস্থায় তারেক রহমানকে সাজা দেওয়া হলো। তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগও দেওয়া হয়নি। মুফতি হান্নান ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় বলেছিল, তাকে জোর করে এটা করানো হয়েছে। আবার সেই মামলার রায়ের আগেই গুরুত্বপূর্ণ এমন আসামিকে অন্য মামলায় ফাঁসি কার্যকর করা হলো?

তিনি বলেন, তারেক রহমানের ওপর মূল রাগের কারণ হচ্ছে, তারেক রহমান আজ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনকে বেগমান করেছে, জোরদার করেছে। দেশের ইতিহাসে তারেক রহমান দেশের ডান, বাম, সমাজতান্ত্রিক, ইসলামপন্থি সব রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধ করে গণতন্ত্রের পক্ষে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলেছে।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড়, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, টাকার অবমূল্যায়ন, দুর্নীতি, অনাচার, মানবাধিকার হরণ, রাষ্ট্রীয় ব্যাংকলুট, রাষ্ট্রীয় দেনা বৃদ্ধি, সাবেক সেনা ও পুলিশ প্রধান আন্তর্জাতিক স্যাংশনের মুখে পড়ার পরেও সেগুলো কোনোটাই মূল কাজ নয়। মূল কাজ তারেক রহমানকে এনে শাস্তি দেওয়া।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা বাকশালের বিরুদ্ধে শহীদ জিয়ার নেতৃত্বে বহু দলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলাম। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এরশাদের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলাম। সংসদীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলাম। এই সরকার যে গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। পুনরায় তারেক রহমানের নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবো। তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনতে হবে না। তিনি নিজেই আসবেন। তিনি আসবেন বীরের মতো।

ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীর পরিচালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বেনজীর আহমেদ টিটো, নির্বাহী কমিটির সদস্য তমিজ উদ্দিন প্রমুখ।

(ওএস/এএস/মে ২৭, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

১৪ জুন ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test