E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

আরেক দফা দাম বাড়ল ব্রয়লার মুরগির

২০২০ মে ২৪ ১৪:০১:২৫
আরেক দফা দাম বাড়ল ব্রয়লার মুরগির

স্টাফ রিপোর্টার : কয়েকদিন ধরে বাড়তে থাকা ব্রয়লার মুরগির দাম ঈদের আগের দিন আরও এক দফা বেড়েছে। রাজধানীর বিভিন্ন অঞ্চলে পোল্ট্রি মুরগির কেজি ২০০ টাকা ছুঁয়েছে। এর মাধ্যমে রোজার ভেতর পোল্ট্রি মুরগির দাম ৮২ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ল। রোজার আগে পোল্ট্রি মুরগির কেজি ১১০ টাকায় নেমেছিল।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঈদের কারণে একদিকে পোল্ট্রি মুরগির চাহিদা বেড়েছে, অন্যদিকে সরবরাহ কমেছে। করোনার কারণে অনেক খামার মালিক নতুন করে উৎপাদনে যাননি, ফলে খামারে মুরগির পরিমাণ কমে গেছে। এমনকি অনেক খামার বন্ধও হয়ে গেছে। এ কারণে পোল্ট্রি মুরগির দাম বেড়ে গেছে।

তারা বলছেন, ঈদের কারণে এখন পোল্ট্রি মুরগির চাহিদা আছে। কিন্তু ঈদের পর এই চাহিদা থাকবে না। যে কারণে লোকসানের ভয়ে খামার মালিকদের একটি অংশ বড় ধরনের উৎপাদনে যাচ্ছেন না। তারা সীমিত আকারে উৎপাদনে যেয়ে বাজার ধরে রাখছেন। এ কারণে ঈদের পর চাহিদা কমলেও পোল্ট্রির দাম নাও কমতে পারে।

রবিবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, পোল্ট্রি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজি। যা গতকাল ছিল ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা। অর্থাৎ একদিনে পোল্ট্রি মুরগির দাম কেজিতে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

পোল্ট্রি মুরগির দাম বাড়লেও লাল লেয়ার ও পাকিস্তানি কক মুরগির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। লাল লেয়ার মুরগির কেজি আগের মতো ২১০ থেকে ২২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আর পাকিস্তানি কক মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকা।

খিলগাঁওয়ে ভ্যানে ২০০ টাকা কেজিতে পোল্ট্রি মুরগি বিক্রি করা মিঠু বলেন, গতকাল ১৮০ টাকা কেজি মুরগি বিক্রি করেছি। আজ পাইকারি বাজারে গিয়ে দেখি মুরগির দাম কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে গেছে। বাড়তি দামে কেনার কারণে দাম বাড়াতে বাধ্য হয়েছি।

তিনি বলেন, ঈদের কারণেই পোল্ট্রি মুরগির এই দাম বেড়েছে। কাল ঈদ হওয়ার কারণে আজ পাইকারি বাজারে মুরগির পরিমাণ তুলনামূলক কম ছিল। তাছাড়া খামারেও কয়েকদিন ধরে মুরগি কম। যে কারণে দাম বেড়েই চলেছে। তবে আমাদের ধারণা ঈদের পর দাম কিছুটা কমে যাবে। কারণ তখন মুরগি চাহিদা কমবে।

খিলগাঁওয়ের ব্যবসায়ী আজিজুর রহমান বলেন, আমাদের মুরগি দুদিন আগে কেনা। আমরা আগের দামেই অর্থাৎ ১৮০ টাকা কেজি বিক্রি করছি। ঈদের পর কয়েকদিন মুরগির চাহিদা কম থাকবে, এ কারণে নতুন করে মুরগি আনিনি। বাজার পরিস্থিতি বুঝে এরপর মুরগি আনব।

তিনি বলেন, ঈদের মূল বিক্রি আগেই হয়ে গেছে। আজ বিক্রির পরিমাণ কম। মাঝে মধ্যে কিছু ক্রেতা আসছেন। পোল্ট্রির দাম বেশি হওয়ায় ক্রেতাদের কেউ কেউ লাল লেয়ার কিনি নিয়ে যাচ্ছেন। তবে যারা পোল্ট্রির মাংস পছন্দ করেন, দাম বড়ার পরও তারা পোল্ট্রি মুরগিই কিনছেন।

মালিবাগ হাজিপাড়ায় ১৯০ টাকা কেজি পোল্ট্রি মুরগি বিক্রি করা বাবু বলেন, আগে যে মুরগি এনেছিলাম তার সবই কাল বিক্রি হয়ে গেছে। কাল ঈদ হওয়ার কারণে আজ অল্প কিছু মুরগি এনেছি। কিন্তু বিক্রি তেমন একটা হচ্ছে না। মনে হচ্ছে কিছু মুরগি থেকে যাবে। আবার ভাগ্য ভালো হলে বিকেলের মধ্যে বিক্রি হয়ে যেতে পারে

(ওএস/এসপি/মে ২৪, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

০২ জুলাই ২০২০

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test