E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশনের চার্জ সহনীয় করার দাবি

২০২৪ ফেব্রুয়ারি ২৯ ২১:৪৯:২০
স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশনের চার্জ সহনীয় করার দাবি

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের স্থলবন্দর এবং শুল্ক স্টেশনসমূহে আমদানিকৃত পণ্যের বিদ্যমান লেবার হ্যান্ডেলিং চার্জ, পণ্য লোড-আনলোড চার্জ, ইকুইপমেন্ট চার্জ কমানোর দাবি জানিয়েছেন আমদানি ও রপ্তানিকারকরা।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মতিঝিলে এফবিসিসিআই কার্যালয়ে সিলেট বিভাগের ল্যান্ড পোর্ট, বর্ডার ট্রেড, ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রান্সশিপমেন্ট বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির এক সভায় এ আহ্বান জানানো হয়।

কমিটির চেয়ারম্যান আহমেদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন এফবিসিসিআইর সভাপতি মাহবুবুল আলম।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্প সম্প্রসারণের সাথে সাথে স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশনসমূহ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। শুধু ভারত থেকেই আমরা বছরে প্রায় ১৬ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করে থাকি। যার সিংহভাগই আসে স্থল বাণিজ্যের মাধ্যমে। এমন পরিস্থিতিতে, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্প্রসারণে স্থলবন্দর এবং শুল্ক স্টেশনসমূহের সক্ষমতা বৃদ্ধি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

স্থলবন্দর, শুল্ক স্টেশনসহ আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের বিদ্যমান সমস্যা সমাধানে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে লিখিত আকারে সুনির্দিষ্ট মতামত ও প্রস্তাবনা আহ্বান করেন এফবিসিসিআই সভাপতি। তিনি বলেন, এসব যৌক্তিক প্রস্তাবনা নিয়ে এফবিসিসিআই সরকারের সঙ্গে আলোচনা করবে।

স্ট্যান্ডিং কমিটির কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ এবং এফবিসিসিআই পরিচালক ফালাহ উদ্দিন আলী আহমেদ জানান, সিলেটের তামাবিল ও শেওলা স্থলবন্দর দিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে পাথর, চুনাপাথর, কয়লা, ফলসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানি হয়ে থাকে। বাংলাদেশ থেকে রপ্তানি করা হয় সিমেন্ট, প্লাস্টিক পণ্য, ফার্নিচার, পাটসহ প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য। বন্দরসমূহে কয়লা ও পাথর আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে লোড-আনলোড চার্জ অনেক বেশি, যা বাস্তবে বাজারমূল্যের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এর সঙ্গে যুক্ত হয় ১৫ শতাংশ ভ্যাট, যা আমদানিকারকদের ওপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করছে।

তিনি বলেন, আমদানিকৃত কয়লা ও পাথর দীর্ঘদিন রেখে বিক্রি করতে হয় বিধায় আমদানিকারককে এক বছর মেয়াদী ভাড়া বন্দোবস্ত প্রদান ও বন্দরে ডাম্পিং এরিয়া বৃদ্ধির করতে হবে।

স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশনগুলোতে সড়ক পরিবহন ও যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নের প্রস্তাবনা তুলে ধরেন আহমেদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী। তিনি বলেন, যোগাযোগের উন্নয়ন হলে পণ্য পরিবহনের ব্যয় কমবে। এর ফলে ব্যবসায়ীদের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়বে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, কমিটির কো-চেয়ারম্যান ও সদস্যরা ব্যবসায়ীরা।

(ওএস/এএস/ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

১৮ এপ্রিল ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test