E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

শিরোনাম:

নব্য মহামারি বায়ু দূষণের ক্ষতি থেকে আগামী প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে 

২০২৩ জানুয়ারি ২৮ ১৬:২২:৩১
নব্য মহামারি বায়ু দূষণের ক্ষতি থেকে আগামী প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে 

মোহাম্মদ ইলিয়াছ


ক্ষতিকারক পদার্থ বাতাসে মেশার ফলে বায়ুদূষণ হয়। বায়ু দূষণের ফলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়, পরিবেশ এবং সম্পদও নষ্ট হয়। বায়ুমন্ডলে ওজোন স্তর পাতলা হয়ে যায়। এর প্রভাব পড়ে জলবায়ুর উপর এবং বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনেরও কারণ হয়। শিল্প, যানবাহন, জনসংখ্যার বৃদ্ধি এবং নগরায়ন বায়ুদূষণের কয়েকটি প্রধান কারণ। নানা কারণে বায়ুদূষণ ঘটে যার অনেকগুলোই আবার মানুষের নিয়ন্ত্রণে নেই। মরুভূমি অঞ্চলে ধুলোঝড় এবং অরণ্যে বা ঘাসে আগুন লাগার ফলে নির্গত ধোঁয়া বাতাসে রাসায়নিক ও ধুলিকণাজনিত দূষণ ঘটিয়ে থাকে।

মূলত প্রাকৃতিকভাবে অথবা মানুষের কর্মকাণ্ডের ফলে সৃষ্ট ক্ষতিকর ও বিষাক্ত পদার্থের দ্বারা বায়ুমন্ডলের দূষণ ঘটে। বায়ুদূষণপূর্ণ কোন একটি এলাকায় বায়ুতে অবমুক্ত ক্ষতিকর পদার্থসমূহের পরিমাণ অন্যান্য স্থানের তুলনায় অধিকতর হওয়ায় সহজেই দূষণের ক্ষতিকর প্রভাবসমূহ শনাক্ত করা যায়। বায়ুদূষণের প্রধান উৎসসমূহ হচ্ছে, গাড়ি থেকে নির্গত ধোঁয়া, বিদ্যুৎ ও তাপ উৎপাদনকারী যন্ত্র থেকে উৎপন্ন ধোঁয়া, শিল্পকারখানা এবং কঠিন বর্জ্য পোড়ানোর ফলে সৃষ্ট ধোঁয়া। বায়ুদূষণের আরও একটি কারণ অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশের ঊর্ধ্বে বায়ুমন্ডলের ওজোন স্তরে ক্রমবর্ধমান ফাটল সৃষ্টি হওয়া। মানবজাতি, উদ্ভিদরাজি, পশুপাখি এবং জলজ প্রতিবেশ ব্যবস্থার ওপর অ্যাসিড বৃষ্টি সংঘটনের মাধ্যমেও বায়ূদূষণ নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে আসছে।

সাম্প্রতিককালে বিশ্বের অন্যান্য স্থানের মতো এশিয়াতেও পরিবেশগত ইস্যুগুলোর মধ্যে বায়ুদূষণ অধিকতর প্রাধান্য লাভ করেছে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রগুলিতে সমস্যাটি প্রকট আকার ধারণ করেছে। চট্টগ্রাম, খুলনা, বগুড়া এবং রাজশাহী অঞ্চলের নগর এলাকাগুলোতে বায়ুদূষণের স্বাস্থ্যগত প্রতিক্রিয়া ঢাকার তুলনায় কম। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শহর এলাকায় অনেক সময় এমন সব শিলা ও মৃত্তিকার উপর বাড়ি-ঘর নির্মাণ করা হয় যাদের ভিত্তি থেকে তেজষ্ক্রিয় গ্যাস বিকীর্ণ হয়। দীর্ঘসময় এই গ্যাস নিঃশ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করলে ফুসফুসের ক্যান্সার হতে পারে। বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায় বায়ুদূষণ এখনও তেমন কোন সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত হয়নি। এ সকল এলাকায় যন্ত্রচালিত গাড়ির সংখ্যা যেমন কম, তেমনি শিল্প কারখানার সংখ্যাও অল্প। তবে ইটের ভাটা এবং রান্নার চুল্লি থেকে শহরতলী ও গ্রামীণ এলাকায় যথেষ্ট পরিমাণে বায়ুদূষণ ঘটছে। গ্রামাঞ্চলে কাঠ, কয়লা এবং বিভিন্ন ধরনের জৈববস্তু জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ফলে গ্রামাঞ্চলে প্রধান বায়ুদূষক হলো কোন নির্দিষ্ট কণিকা উপাদানে গঠিত বস্তু এবং উদ্বায়ী জৈব যৌগ।

বাংলাদেশে প্রধানত দুটি উৎস থেকে বায়ুদূষণ ঘটছে। এ দুটি উৎস হচ্ছে, শিল্প কারখানা এবং যানবাহন থেকে নির্গত ধোঁয়া। ইটের ভাটা, সার কারখানা, চিনি কল, কাগজ কল, পাটকল, বস্ত্র কারখানা, স্পিনিং মিল, ট্যানারী শিল্প, গার্মেন্ট ফ্যাক্টরী, রুটি ও বিস্কুট কারখানা, রাসায়নিক ও ঔষধ শিল্প, সিমেন্ট কারখানা, মেটাল ওয়ার্কশপ, করাত কল প্রভৃতি শিল্প কারখানা প্রধানত বায়ুদূষণ ঘটাচ্ছে। এছাড়াও কর্ষিত জমি থেকে উৎপন্ন ধুলা এবং উপকূলীয় দ্বীপসমূহ ও উপকূলীয় ভূমি এলাকায় সন্নিকটস্থ সমুদ্র তরঙ্গসৃষ্ট লবণ কণা দ্বারা বায়ুদূষণ হয়ে থাকে। বায়ুদূষণের এসকল উৎস থেকে প্রচুর পরিমাণে ধোঁয়া, বাষ্প, গ্যাস ও ধুলিকণা উৎপন্ন হয় যা কুয়াশা ও ধোঁয়াচ্ছন্ন পরিবেশ সৃষ্টি করে।

বাংলাদেশের কয়েক প্রকার শিল্প কারখানা যেমন ট্যানারী কারখানাগুলি প্রতিনিয়ত হাইড্রোজেন সালফাইড, অ্যামোনিয়া, ক্লোরিনসহ আরও কয়েক প্রকার গন্ধহীন রাসায়নিক পদার্থ নির্গত করছে যেগুলো একদিকে যেমন বিষাক্ত তেমনি স্থানীয় জনগণের বিরক্তি ও পীড়ার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এসকল দূষক মাথাধরা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যগত সমস্যা সৃষ্টি করছে। অধিক হারে নগরায়নের কারণে নগরে যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, যার ফলে অধিকতর হারে বায়ুদূষণ ঘটছে। পরিবেশ অধিদপ্তর এবং পরিবেশ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থা মিনি-ট্রাক ও মোটর সাইকেলকে প্রধান বায়ুদূষণকারী যান হিসেবে চিহ্নিত করেছে। মাত্রাতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল বোঝাই করা, দুর্বল ইঞ্জিনবিশিষ্ট পুরাতন বাস ও ট্রাকসমূহ কালো ধোঁয়া ও বিষাক্ত গ্যাস নির্গত করে নগরীর রাস্তায় চলাচল করছে। প্রকৃতপক্ষে ঢাকার রাস্তায় প্রতিদিন চলাচলকারী অনেক যানবাহন ত্রæটিযুক্ত যেগুলো প্রতিদিন সহনীয় মাত্রার অধিক ধোঁয়া নির্গত করে চলেছে। ডিজেল চালিত যানবাহনগুলো কালো ধোঁয়া নির্গত করে যাতে দহন সম্পূর্ণ না হওয়ায় কার্বনকণা বিদ্যমান থাকে।

বায়ুদূষণ বর্তমান বিশ্বে বৃহত্তম পরিবেশগত স্বাস্থ্য হুমকি হিসেবে বিবেচিত। দূষণের কারণে গড়ে সাত বছর করে আয়ু হারাচ্ছে বাংলাদেশিরা। শহরের বাতাসে এখন ধুলা, ধোঁয়া, কার্বন আর সিসা। বায়ুদূষণ আমাদের জীবনের একটি অংশ হয়ে উঠেছে। বাড়ির বাইরে পা রাখতেই দূষণের কারণে অনিচ্ছাকৃতভাবে আমাদের শরীর বিভিন্ন জটিল রোগ এবং অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হয়। অস্বাভাবিক মাত্রায় বায়ুদূষণের কারণে হৃদরোগ, লিভার-কিডনির রোগ, এমনকি ক্যানসারের পরিমাণও দিন দিন বাড়ছে। শিশুদের মস্তিষ্কের বিকাশও ব্যাহত হচ্ছে। বাতাসে কার্বন ও সালফারের দূষণে ক্ষতি হয় ত্বক ও চোখেরও। বায়ুদূষণের কারণে সাধারণ সর্দি, কাশি, হাঁচি আপনাকে গুরুতরভাবে অসুস্থ করতে পারে এবং হাঁপানি বা ব্রঙ্কাইটিসের কারণে শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখা দিতে পারে। জেনে নিন বায়ুদূষণের ক্ষতি থেকে নিজেকে রক্ষা করতে হবে

ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতা ধূলার অ্যালার্জি থেকে আপনাকে সুরক্ষিত রাখে। বাইরে গেলে মাস্ক পরুন। বাড়ি ফেরার পর সর্বদা মেডিকেটেড সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে আপনার হাত ধুয়ে নিন। এছাড়াও, ময়লা এবং দূষণ থেকে পরিত্রাণ পেতে একটি হট শাওয়ার নিন।

ইন্ডোর এয়ার ফিল্টার বায়ু দূষণের সঙ্গে মোকাবিলা করার সেরা উপায়গুলোর মধ্যে একটি। এই পিউরিফায়ারগুলো কেবল ক্ষতিকারক দূষিত বায়ু এবং অ্যালার্জেনগুলো আটকায় না বরং সামগ্রিক বায়ুর গুণমানকে উন্নত করে। কিছু এয়ার ফিল্টার সুন্দর সুগন্ধযুক্ত হয় যা আপনাকে ফ্রেশ বাতাস নিতে সাহায্য করে। এইচইপিএ ফিল্টারযুক্ত এয়ার পিউরিফায়ারগুলো সবচেয়ে কার্যকর বলে পরিচিত।

যেহেতু জানালা দিয়েই মূলত ধুলো এবং দূষিত বাতাস ঘরে আসে, তাই জানালা বন্ধ রাখার চেষ্টা করুন। এই দূষিত বাতাস আপনার নাকে প্রবেশ করলে শ্বাসকষ্ট এবং ক্রমাগত হাঁচির সমস্যা হতে পারে। আপনার বাথরুমের একটি জানলা খোলা রাখুন যাতে ঘরে ভালভাবে বাতাস যাতায়াত করে। আদ্রতা রুখতে বাথরুমের ভেন্টিলেশন খোলা রাখতে হবে।

ধূলা এবং ব্যাকটেরিয়া প্রায়শই আপনার বিছানার চাদর এবং বালিশের সাথে লেগে থাকে, যা অদৃশ্য হলেও অ্যালার্জির আউটবার্স্ট হতে পারে। প্রতি সপ্তাহে একবার অন্তত বিছানার সরঞ্জাম ধোবেন এবং গদিটিও ভ্যাকুয়াম করুন। আরেকটি বিকল্প হল অ্যালার্জেন-প্রুফ বালিশের কভার, বিছানার চাদর এবং গদি কেনা।

আপনার ঘরকে মিষ্টি সুগন্ধে ভরে দেওয়ার পাশাপাশি, ল্যাভেন্ডার, গ্রীন টি , গোলাপজাতীয় তেলগুলি ঘরে রাখুন যাতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং যেটা আপনাকে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া, চোখ লাল হওয়া এবং অন্যান্য বায়ু দূষণের প্রভাব থেকে মুক্তি দেয়।

বায়ুদূষণ থেকে ত্বক বাঁচাতে সান ব্লক ব্যবহার করুন। বেবি ওয়েল বা নারিকেল তেল তুলার বলে নিয়ে তা দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন এবং পরে ঠাণ্ডা পানি ও ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। লোমকূপ টানটান করতে এবং আর্দ্র রাখতে টোনার ব্যবহার করুন। হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে মুখে ফেইস মাস্ক ব্যবহার করুন। যেমন- ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ পেঁপের মাস্ক ব্যবহার করা যেতে পারে। হলুদের মাস্ক ত্বক পরিষ্কার রাখতে এবং ব্রণের দাগ কমাতে সাহায্য করে। আলুর তৈরি মাস্ক চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে সহায়তা করে।

একটি গ্লাসে পানির সঙ্গে আখের গুড় ও তেঁতুলের ক্বাথ মেশান। আখের গুড়ে দূষণ প্রতিরোধী ক্ষমতা থাকে। তেঁতুলও প্রাকৃতির ভাবেই শরীরে অম্লের ভাগ বেশি রাখে। এই দুইয়ের মিশ্রণে যে পানীয় তৈরি হয় তা শরীরে টক্সিন সরায়।

পানির মধ্যে কয়েকটা তুলসীপাতা, পিষে নেওয়া আদা ও দু’ চামচ আখের গুড় মেশান। এই মিশ্রণ খানিক ক্ষণ ফুটিয়ে দু’বেলা খালিপেটে গরম গরম খান। তুলসী প্রাকৃতিকভাবেই জীবাণুনাশক ক্ষমতার অধিকারী। গুড়ও দূষণ রুখতে ওস্তাদ। তাই এই পানীয় খুবই কার্যকর।

পানিতে একটা গোটা পাতিলেবু, এক চামচ মধু ও এক চিমটে লবণের মিশ্রণ শরীরের টক্সিন দূর করতে পারা পানীয়দের মধ্যে অন্যতম সেরা। সব ক’টি উপাদানের মধ্যেই অ্যান্টিটক্সিন থাকায় শরীরে প্রবেশ করা দূষণের সঙ্গে লড়তে সক্ষম। শ্বাসজনিত সমস্যা দূর করা তো বটেই সঙ্গে ব্রঙ্কাইটিসের কষ্টও অনেকটা লাঘব করে এই পানীয়।

দুধের মধ্যে তুলসী পাতা ও হলুদ মিশিয়ে সেই পানীয় ঈষদুষ্ণ অবস্থায় পান করুন। হলুদ প্রাকৃতিকগতভাবেই অ্যান্টিসেপ্টিক, তুলসী পাতার মধ্যেও জীবাণু রোধের ক্ষমতা আছে। শরীরের টক্সিন দূর করার পাশাপাশি এই পানীয় শ্বাসনালীর পথ পরিষ্কার করে শ্বাসপ্রশ্বাসের পথকে বাধাহীন করে তোলে।

এছাড়া দূষণজনিত ফুসফুসের রোগ থেকে সুস্থ থাকতে ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ ফলমূল ও শাকসবজি খান। ভিটামিন সির কার্যকারিতা ২৪ ঘণ্টার বেশি থাকে না। প্রতিদিন একটু হলেও লেবু, আমলকী, আনারস, জাম্বুরা, আমড়া, পেয়ারা, কাঁচামরিচ, জলপাই, টমেটো, কমলালেবু ইত্যাদি খান বিশ্বব্যাপী যেসব অসংক্রামক রোগে মানুষের সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটে তার অধিকাংশই বায়ু দূষণজনিত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, বিশ্বব্যাপী বায়ু দূষণের কারণে বছরে ৪২ লাখ মানুষের অকাল মৃত্যু হচ্ছে।

সাম্প্রতিক গবেষণা অনুসারে, বায়ুদূষণে বাংলাদেশিদের গড় আয়ু কমেছে ৭ বছর। আর রাজধানীবাসীর গড় আয়ু কমছে ৮ বছর করে। যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব শিকাগোর এনার্জি পলিসি ইনস্টিটিউটের গবেষণায় এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

ওই গবেষণায় বাংলাদেশকে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বায়ুদূষণের শিকার দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ইপিআইসি এয়ার কোয়ালিটি লাইফ ইনডেক্স নির্ণয়ে গবেষকেরা বাতাসে পিএম২.৫ এর মাত্রা হিসাব করতে স্যাটেলাইট তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করেছেন।

লেখক : সহকারী পরিচালক (অর্থ ও বাজেট), অবসর সুবিধা বোর্ড,শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ঢাকা।

পাঠকের মতামত:

২৫ এপ্রিল ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test