E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

চীনে রহস্যময় নিউমোনিয়া, বাংলাদেশে আতঙ্ক নয় প্রয়োজন সতর্কতা 

২০২৩ নভেম্বর ২৫ ১৬:২১:০৬
চীনে রহস্যময় নিউমোনিয়া, বাংলাদেশে আতঙ্ক নয় প্রয়োজন সতর্কতা 

ডা. মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ


কোভিড-১৯ অতিমারির প্রভাব থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে আসার আগেই এবার চীনের উত্তরাঞ্চলে ‘রহস্যময়’ নিউমোনিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এই রোগে বিশেষভাবে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। অসুস্থ শিশুদের ভিড় সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে বেজিংয়ের হাসপাতালগুলো। যা বিশ্বের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কপালে ভাঁজ ফেলেছে।

চীনে শ্বাসতন্ত্রের রোগ বেড়ে যাওয়া এবং শিশুদের মধ্যে গুচ্ছাকারে ছড়িয়ে পড়া ফ্লুয়ের মতো নতুন এক ধরনের নিউমোনিয়ার প্রকোপের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের কাছে বিস্তারিত তথ্য চেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

বিবৃতিতে ডব্লিউএইচও বলেছে, চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন থেকে চীন কর্তৃপক্ষ গত ১৩ নভেম্বর একটি সংবাদ সম্মেলনে জানায়, দেশটিতে শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত রোগের প্রকোপ বেড়েছে।

কারণ হিসেবে কোভিড বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া এবং কোভিড সৃষ্টিকারী ভাইরাসের পাশাপাশি ইনফ্লুয়েঞ্জা, মাইকোপ্লাজমা নিউমোনিয়া (এক ধরনের ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমণ যা মূলত ছোট শিশুদের মাঝে দেখা দেয়) এবং রেসপিরেটরি সিনসিটিয়াল ভাইরাস (আরএসভি) সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার কথা জানায় তারা।

বিবিসি জানিয়েছে, ফ্লুয়ের মতো নতুন ধরনের ‘রহস্যময়’ নিউমোনিয়া রোগটি চীনের উত্তরাঞ্চলে শিশুদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। গণমাধ্যমে বলা হচ্ছে, সেখানকার হাসপাতালগুলো আক্রান্ত শিশুতে ভরে গেছে। তবে চীনে ডব্লিউএইচওর দপ্তর বলেছে, এটি একটি ‘রুটিন’ কাজ।

ডব্লিউএইচও বলছে, চীনের উত্তরাঞ্চলে অক্টোবর থেকেই ‘ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো রোগ’ বেড়ে যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। সাধারণত, চীনে এ সময়টিতে ঋতু পরিবর্তনের কারণে স্বাভাবিকভাবেই ইনফ্লুয়ঞ্জা বা সর্দিজ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। কিন্তু এবার রোগটি যত বেশি দেখা যাচ্ছে তেমনটি গত তিন বছরের অক্টোবর-নভেম্বরেও দেখা যায়নি।

বিশেষ করে শীতের সময় শিশু ও বয়স্কদের এ রোগের প্রকোপ বেশি বৃদ্ধি পায়।সারা বিশ্বে কোটি কোটি মানুষকে শ্বাসতন্ত্রের জটিল এই অসুখ থেকে বাঁচানোর লক্ষ্যে জনগণের মধ্যে ব্যাপক সচেতনতা তৈরি করতে দিবসটির গুরুত্ব অনেক।সারা পৃথিবীতে নিউমোনিয়ায় প্রতিবছর প্রায় ৪৫ কোটি লোক আক্রান্ত হয়। আইসিডিডিআর-বির তথ্যমতে, ২০২২ সালে সারা বিশ্বে পাঁচ বছরের কম বয়সী প্রায় ৫০ লাখ শিশুর মৃত্যু হয়েছিল। এর ১৪ শতাংশ ছিল নিউমোনিয়ায় মৃত্যু। একই সময়ে বাংলাদেশে পাঁচ বছরের কম বয়সী প্রায় এক লাখ শিশুর মৃত্যু হয়। এর মধ্যে প্রায় ২৪ হাজার বা ২৪ শতাংশই মারা যায় নিউমোনিয়ায়। দেখা যাচ্ছে, নিউমোনিয়ায় বাংলাদেশে মৃত্যুহার বৈশ্বিক হারের চেয়ে বেশি। গত চার-পাঁচ বছরে পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হয়নি।বাংলাদেশে প্রতি বছর নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ২৫ হাজার শিশুর মৃত্যু হয়।আর উন্নয়নশীল দেশে নিউমোনিয়ার ব্যাপকতা বেশি।

পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশু ও বৃদ্ধরাই নিউমোনিয়ায় বেশি আক্রান্ত হয় এবং শিশুরা বেশি মারা যায়। তুলনামূলকভাবে নারীদের চেয়ে পুরুষরা এতে বেশি আক্রান্ত হয়।ফুসফুস বা শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহজনিত জটিল একটি রোগ নিউমোনিয়া। ফুসফুসের প্যারেনকাইমা বা বায়ুথলিতে জীবাণু যেমন—ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস ইত্যাদি সংক্রমণের ফলে বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, কাশি এসব উপসর্গ দেখা দেয়, যা নিউমোনিয়া নামে পরিচিত। এটি ফুসফুসের অত্যন্ত প্রচলিত ও প্রাচীন একটি রোগ। আধুনিক চিকিৎসাশাস্ত্রের জনক হিপোক্রেটস আড়াই হাজার বছর আগে এ রোগের বর্ণনা দিয়েছেন। শিশুদের ক্ষেত্রে বয়সভেদে রোগজীবাণুতে কিছু পার্থক্য থাকে।ক্রনিক ঠাণ্ডা লাগা, বুকে শ্লেষ্মা জমে থাকার সূত্র ধরেই পরতে হয় নিউমোনিয়ায়। বর্ষার পর হঠাৎ গরম তাতেই এই অসুখের প্রাদুর্ভাব বাড়ে। ঠাণ্ডা লাগলেই যে সবার নিউমোনিয়া হবে তা কিন্তু নয়, তবে যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, মূলত বয়স্ক ও শিশুরাই এই রোগে বেশি আক্রান্ত হয়।

তাদের মতে, নিউমোনিয়ার প্রাথমিক লক্ষণ খুব জ্বর। ওষুধে জ্বর নামলেও আবার ওষুধের প্রভাব কাটলেই হু হু করে বেড়ে যায় জ্বর। ১০৩-১০৪ ডিগ্রি উঠতে পারে জ্বর। এর সঙ্গে শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা ইত্যাদি তো থাকেই। অনেক সময় মাথা যন্ত্রণা, ক্রমে দুর্বল হয়ে পড়া, খাওয়া-দাওয়ায় অনীহা এসবও নিউমোনিয়ার লক্ষণ। তবে নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীকে ছুঁলেই নিউমোনিয়ার জীবাণু শরীরে ছড়ায় না। তবে আক্রান্তের কাশি বা হাঁচি থেকে তা ছড়াতে পারে। তবে সর্দি-জ্বরের সঙ্গে নিউমোনিয়ার বেশ কিছু তফাৎ থাকে। একটু লক্ষ্য রাখলেই তাই রোগ নির্ণয় করা সহজ।

চিকিৎসকের মতে, প্রাথমিকভাবে সাধারণ জ্বর-সর্দি-কাশি দিয়ে এই রোগ শুরু হলেও দেখা যায় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে জ্বর, শ্বাসকষ্ট বাড়ছে, কাশিও বাড়ছে। অনেক সময় জ্বরের ওষুধের কড়া ডোজে জ্বর নামলেও ফিরে ফিরে আসে তা। অবস্থা গুরুতর হলে কাশির সঙ্গে রক্তও উঠতে পারে।এসব লক্ষণ দেখা দিলেই দেরি না করে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। একমাত্র চিকিৎসকই বুঝতে পারেন ব্যক্তি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে কিনা। তবু নিশ্চিত হতে কিছু পরীক্ষা করাতে হয়।

নিউমোনিয়ার লক্ষণ

জ্বর; এটি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে উচ্চমাত্রার হয়ে থাকে। পাশাপাশি কাশি, শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত নেওয়া, শ্বাস গ্রহণের সময় বাঁশির মতো শব্দ হওয়া, শ্বাস নিতে কষ্টবোধ বা কষ্টকর শ্বাস-প্রশ্বাস, বুকের খাঁচা দেবে যাওয়া, বুকে ব্যথা, খেতে না চাওয়া বা খেতে না পারা, শিশুর চঞ্চলতা কমে যাওয়া বা নিস্তেজ হয়ে যাওয়া, বমি করা।নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে শিশুর শ্বাস-প্রশ্বাস খুব দ্রুত হয়। দুই মাসের কম বয়সী শিশুদের মিনিটে ৬০ বার বা তার চেয়ে বেশি শ্বাস নিতে দেখা যায়। দুই মাস থেকে ১২ মাস বয়সী নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু মিনিটে ৫০ বার বা তার চেয়ে বেশি শ্বাস নেয় এবং এক বছরের বড় শিশু ৪০ বার বা তার চেয়ে বেশিবার শ্বাস নেয়। দ্রুত শ্বাসের সঙ্গে বুকের খাঁচা দেবে যায়।

এ লক্ষণগুলো দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসককে দেখাতে হবে। মনে রাখবেন নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু মৃত্যুর কারণ কিন্তু দেরি করে চিকিৎসা শুরু করা। শীতকালে নিউমোনিয়া আক্রান্তের হার অনেক বেশি। তাই শীতকালে উপরের লক্ষণগুলো দেখা দিলে দেরি করবেন না।নিউমোনিয়া মারাত্মক রোগ হলেও এটা কিন্তু প্রতিরোধ করা যায়। শিশুদের ছয় মাস পর্যন্ত শুধু বুকের দুধ খাওয়ালে নিউমোনিয়ার ঝুঁকি কমে। শিশুকে কৌটার দুধ খাওয়াবেন না। যেসব শিশুকে কৌটার দুধ খাওয়ানো হয় তাদের এ রোগে আক্রান্তের হার অন্যদের চেয়ে চার গুণ বেশি। শিশু অপুষ্টি নিউমোনিয়া আক্রান্তের কারণ। তাই শিশু পুষ্টি নিশ্চিত করতে হবে।শীতকালে সুস্থ শিশুকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুর কাছে যেতে না দেওয়া। হাঁচি-কাশি আক্রান্ত লোকের সামনে বাচ্চাদের যেতে না দেওয়া। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা। অর্থাৎ বাইরে থেকে এসে হাত-মুখ সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলা। শিশুকে ভিড়ের মধ্যে অর্থাৎ বেশি লোক সমাগমের মধ্যে যেতে না দেওয়া।

শিশুদের নিউমোনিয়া হওয়ার কারণ

নিউমোনিয়া বিভিন্ন জীবাণু দ্বারা সৃষ্ট হতে পারে, যেমন, ভাইরাস, ব্যাকটিরিয়া, ছত্রাক এবং পরজীবী - বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া অ্যাডেনোভাইরাস, রাইনো ভাইরাস, ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস, শ্বাসযন্ত্রের সিনসিটিয়াল ভাইরাস এবং প্যারাইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের কারণে হয়। আর বয়স অনুসারে পরিবর্তিত হতে পারে। অর্থাৎ, শ্বাসকষ্টের ভাইরাসজনিত নিউমোনিয়া, স্ট্রেপ্টোকোকাস নিউমোনিয়া এবং হেমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। মাইকোপ্লাজমা নিউমোনিয়া প্রায়শই ৫ থেকে ১৩ বছর বয়সের বাচ্চাদের মধ্যে দেখা যায়। ব্যাক্টেরিয়াজনিত নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুরা সাধারণত দ্রুত অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং যারা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয় তাদের লক্ষণগুলি ধীরে ধীরে দেখা দেয় এবং কম মারাত্মক হয়।

নিউমোনিয়া সংক্রমনের পদ্ধতি

এই রোগের সংক্রমন প্রধানত উচ্চ শ্বাস নালীতে হয়। শ্বাস যন্ত্রের এই অংশ শ্বাসনালী এবং ফুসফুস কে রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুর হাত থেকে রক্ষা করে। সংক্রমিত উচ্চ শ্বাসনালীর প্রতিরোধী ক্ষমতা কমে যায়। ধীরে ধীরে অপর থেকে শ্বাসনালীর নিম্নাংশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পরে। নিউমোনিয়ার সংক্রমণের মাত্রা জীবাণু সংক্রামক ক্ষমতার উগ্রতা (virulence), রোগীর ইমুনিটির অপর নির্ভর করে। কাশি ও হাঁচির সাথে সংক্রামিত রোগীর নাক এবং মুখ থেকে থেকে জীবাণুযুক্ত তরলের ক্ষুদ্র ফোঁটা (droplets) বাতাসে ছড়িয়ে পরে। অন্য কেউ প্রশ্বাসের সময় জীবাণুযুক্ত বাতাস গ্রহন করলে তার শরীরে সংক্রমন ছড়িয়ে পরতে পারে। এই জন্য নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের নাক-মুখ ঢেকে রাখতে বলা হয়।

> শিশুদের মধ্যে নিউমোনিয়ার লক্ষণ শিশুদের মধ্যে লক্ষণগুলি কম সুনির্দিষ্ট হতে পারে এবং তারা বুকে সংক্রমণের স্পষ্ট লক্ষণ দেখাতে পারে না। শিশুদের মধ্যে সংক্রমণের কয়েকটি সাধারণ লক্ষণ হল - ১. জ্বর। ২. শক্তির অভাব। ৩. দ্রুতগতিতে অগভীর শ্বাস শ্বাসের সাথে জোরে জোরে শব্দ। ৪. খাওয়ানোতে অসুবিধা হওয়া। ৫. ক্লান্তি বা ঝিমুনি ভাব।

> শিশুদের ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া প্রতিরোধ শিশু বা বাচ্চাদের এই সংক্রমণের ঝুঁকি হ্রাস করতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করা যেতে পারে -ক) বাচ্চার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে স্তন্যপান করান খ) ঘরের পরিবেশ গরম এবং ভাল বায়ু চলাচল যাতে করে সে ব্যবস্থা করুন গ) সর্দি, ফ্লু বা অন্যান্য সংক্রমণ রয়েছে এমন ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ এড়ান আর শিশুর তাপমাত্রা প্রতিদিন সকালে এবং সন্ধ্যেয় কমপক্ষে একবার দেখে নিন। যদি তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের বেশি হয় তবে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

নিউমোনিয়া রোগীর জন্য প্রাথমিক কিছু পরামর্শ

* আক্রান্ত রোগীকে ধূমপান থেকে দূরে রাখতেই হবে। সঙ্গে প্যাসিভ স্মোকিং থেকেও দূরে রাখতে হবে রোগীকে।

* দূরে রাখতে হবে যে কোন দূষণ থেকেও। ধোঁয়া, ধূলাবালি, মশা মারার কয়েল রোগীর ঘর থেকে বাদ দিতে হবে।

* পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন নিউমোনিয়া রোগীর জন্য খারাপ। তাই প্রচুর পানি ও ফ্লুয়িড জাতীয় খাবার খাওয়াতে হবে রোগীকে।

* জ্বর কমানোর ওষুধ ঘন ঘন খাইয়ে জ্বর নামানোর চেষ্টা না করে বরং চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে ওষুধ খাওয়ানো প্রয়োজন।

* রোগীকে ঠাণ্ডা আবহাওয়া থেকেও দূরে রাখতে হবে।

* অ্যাজমা থাকলে অভিজ্ঞ হোমিও চিকিৎসকের নির্দেশ মতো ব্যবহারের বিধি-নিষেধ মানতে হবে।

* হার্ট ও লিভারের রোগে আক্রান্ত রোগী ও ডায়াবেটিকরা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিউমোনিয়া প্রতিরোধক হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিতে পারেন।

নিউমোনিয়া পরীক্ষা করার পদ্ধতি

নিউমোনিয়ার সংক্রমণ এবং তার তীব্রতা নির্ণয় করার জন্য ডাক্তাররা বিশেষ কিছু ল্যাব টেস্টের নির্দেশ দেন। যেমন - ব্লাড কালচার * ব্লাড কাউন্ট * চেস্ট এক্স-রে * চেস্ট স্ক্যান * স্পুটাম কালচার

নিউমোনিয়া রোগীদের খাবারের তালিকা

নিউমোনিয়ার সাথে লড়াই করার জন্য সুষম খাবার অত্যন্ত দরকার। শরীরে শক্তির জোগান বেশি প্রয়োজন। তাই কি খাওয়া উচিত তা নিচে দেওয়া হল -

* সহজ পাচ্য কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন এবং চর্বি
* গরম দুধ

* নারকেলের জল, তাজা রস এবং বাটার মিল্ক বা ঘোল।

* পনির, ডাল, লেবুর মত খাবার।

* সবুজ শাক।

* গরম স্যুপ।

* টক দই জাতীয় প্রোবায়োটিক খাবার।

কোন কোন খাবার এড়িয়ে চলা উচিত?

* ঠাণ্ডা পানীয় * ঠাণ্ডা খাবার * খাবারে অতিরিক্ত লবণ * স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ট্রান্স ফ্যাট যুক্ত খাবার।

হোমিও প্রতিকার

রোগ নয় রোগীকে চিকিৎসা করা হয় এই জন্য একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসককে ডা. হানেমানের নির্দেশিত হোমিওপ্যাথির নিয়মনীতি অনুসারে নিউমোনিয়া রোগ সহ যে কোন জটিল ও কঠিন রোগের চিকিৎসা ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্য ভিওিক লক্ষণ সমষ্টি নির্ভর ও ধাতুগত ভাবে চিকিৎসা দিতে পারলে আল্লাহর রহমতে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা পদ্ধতিতে আরোগ্য সম্ভব। অভিজ্ঞ চিকিৎসক গন প্রাথমিক বাবে যে সব ঔষধ নির্বাচন করে থাকে :-ব্রায়োনিয়া, একোনাইন, অ্যান্টিমোনিয়াম টারটারিকাম, ইপিকাক, ফসফরাস, সালফার, নিউমোক্কাস, স্ট্যাফাইলোক্কাস সহ আরো অনেক ঔষধ লক্ষণের উপর আসতে পারে। তাই ঔষধ নিজে ব্যবহার না করে অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথ'র পরামর্শ নিন।

পরিশেষে বলতে চাই, বিশেষ কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে নিউমোনিয়া সাধারণত মারাত্মক হয়ে ওঠেনা। শিশু এবং বেশি বয়স্কদের অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া দরকার। শীতকালের শুকনো আবহাওয়ায় নিউমোনিয়ার সম্ভাবনা বেরে যায়। তাই এই সময় শ্বাসনালী কে আর্দ্র রাখা খুবই জরুরী। এতে শ্বাসনালীতে সংক্রমণ প্রতিরোধ করা সম্ভব।আর নিউমোনিয়া রোগটি হোমিওপ্যাথির চিকিৎসায় খুব সহজেই সারানো যায়। নিউমোনিয়ার মূল লক্ষণ হলো ঘনঘন শ্বাস নেওয়া এবং শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের গরীব দেশগুলোতে একশটি শিশু মারা গেলে দেখা যায় তার পঁচানব্বই জনেরই মৃত্যুর কারণ নিউমোনিয়া। সাথে জ্বর, কাশি, মাথা ব্যথা, বুকে ব্যথা, ভীষণ শীত বোধ করা ইত্যাদি থাকে। শিশুদের শ্বাস নিতে কষ্ট হলে প্রত্যেক পিতা-মাতাকে অবশ্যই বিষয়টিকে একটি ইমারজেন্সী সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। তবে নিউমোনিয়ার এলোপ্যাথিক চিকিৎসায় যে-সব হাই পাওয়ারের ভয়ঙ্কর বিষাক্ত এন্টিবায়োটিক শিশুদের খাওয়ানো হয়, তাদের বিষাক্ত ছোবলে শিশুদের স্বাস্থ্য চিরস্থায়ীভাবে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে কেউ কেউ কয়েক বছরের জন্য এবং কেউ কেউ সারাজীবনের জন্য কঙ্কালে পরিণত হয়ে থাকে।তাই এই রোগ সম্বন্ধে জানুন এবং লোক কে জানান।

লেখক : চিকিৎসক, কলাম লেখক ও গবেষক।

পাঠকের মতামত:

০৫ মার্চ ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test