E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

কূটনৈতিক উদ্বেগ, ভারসাম্য বজায় রাখার চ্যালেঞ্জ 

বাংলাদেশের ২০২৩ ইউপিআর এবং মানবাধিকারের চলমান অন্বেষণ

২০২৩ ডিসেম্বর ০৭ ১৫:১৯:৩২
বাংলাদেশের ২০২৩ ইউপিআর এবং মানবাধিকারের চলমান অন্বেষণ

দেলোয়ার জাহিদ


মানবাধিকার দিবসের শুভ উপলক্ষে, বিশ্বব্যাপী সকলের সহজাত মর্যাদা এবং সমান অধিকার উদযাপনের জন্য আমাদের একত্রিত হওয়া উচিত। যদিও বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতি মানবাধিকারের জন্য একটি নজিরবিহীন চ্যালেঞ্জ। ১০ই ডিসেম্বর একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসেবে চিহ্নিত। ১৯৪৮ সালে যখন মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণাপত্র গৃহীত হয়, তখন এটি একটি দূরদর্শী কাঠামো প্রতিষ্ঠা করে, যা সমস্ত মানুষের অনির্বাণ অধিকার এবং স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেয়। এই দিনটি ন্যায়বিচার, সমতা এবং মৌলিক মানবাধিকারের প্রচারে আমাদের ভাগ করা অঙ্গীকারের একটি মর্মস্পর্শী অনুস্মারক। যখন আমরা সংহতিতে একত্রিত হই, অগ্রগতির প্রতি প্রতিফলন করি, স্থায়ী চ্যালেঞ্জগুলো  স্বীকার করি এবং এমন একটি বিশ্বের চলমান সাধনার জন্য নিজেদের পুনরায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করি যেখানে প্রতিটি ব্যক্তির অধিকার সম্মানিত এবং সুরক্ষিত। আমরা এই ঘোষণাপত্রে বর্ণিত নীতিগুলিকে সম্মান করি এবং বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য আরও ন্যায্য, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং সহানুভূতিশীল বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে সম্মিলিতভাবে কাজ করি।

সম্প্রতি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার নির্বাচন, বিশেষ করে বাংলাদেশের বিষয়ে বক্তব্য দেওয়া বা মন্তব্য করা থেকে বিরত রয়েছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নতুন শ্রমনীতির সম্ভাব্য প্রভাব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ মিশন। যুক্তরাষ্ট্রের এই আপাত নীরবতা কূটনৈতিক মহলে উদ্বেগ ও কূটনৈতিক উদ্বেগ সৃষ্টি করছে, অনেকে এটাকে বাংলাদেশের জন্য সম্ভাব্য নেতিবাচক পরিণতির পূর্বাভাস হিসেবে ব্যাখ্যা করছেন।

এই বছর, সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল বাংলাদেশ ২০২৩ সার্বজনীন পর্যায়ক্রমিক পর্যালোচনা (ইউপিআর), মানবাধিকারের প্রচার ও সুরক্ষার জন্য বিশ্বব্যাপী অঙ্গীকারের একটি অপরিহার্য মুহূর্ত ছিল। পর্যালোচনা বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি পরীক্ষা করে, উল্লেখযোগ্য অর্জন এবং অব্যাহত চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরে।

প্রশংসনীয় অর্জন: ইউপিআর মানবাধিকারের নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বিশেষ করে লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি স্বীকৃতি দিয়েছে। বাল্যবিবাহের হার কমানোর প্রচেষ্টাও যথাযথভাবে স্বীকৃত, ইতিবাচক সামাজিক পরিবর্তনের জন্য সরকারের প্রতিশ্রুতি প্রতিফলিত করে। অধিকন্তু, রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটে বাংলাদেশের প্রতিক্রিয়া প্রশংসিত হয়েছে এবং মানবিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দেশটির স্থিতিস্থাপকতার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। বহু বাস্তুচ্যুত ব্যক্তি কে আতিথেয়তার বোঝা স্বীকার করে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই ধরনের সংকট পরিচালনায় আন্তর্জাতিক সহযোগিতার উপর জোর দিয়েছে।

মোকাবেলা করা চ্যালেঞ্জগুলি: পর্যালোচনা চলমান চ্যালেঞ্জগুলি কে তুলে ধরে যা অবিলম্বে মনোযোগের দাবি রাখে। সেন্সরশিপ এবং মিডিয়া আউটলেটে গুলিতে বিধিনিষেধ উল্লেখ করে মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং সংবাদপত্রের বিষয়ে উদ্বেগও উত্থাপিত হয়েছিল। ইউপিআর গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সংরক্ষণের গুরুত্ব ওপর জোর দিয়ে তথ্য ও মত প্রকাশের অবাধ প্রবাহকে বাধাগ্রস্ত করে এমন আইন ও অনুশীলন পুনর্মূল্যায়ন করার আহ্বান জানিয়েছে। উপরন্তু, মানবাধিকার রক্ষক এবং কর্মীদের অবস্থা হয়রানি এবং ভয় দেখানোর রিপোর্টের মাধ্যমে সামনে আনা হয়েছিল। ইউপিআর যারা মানবাধিকারের প্রচার ও সুরক্ষার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে তাদের জন্য একটি নিরাপদ এবং সক্ষম পরিবেশের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছে।

জোবায়ের আলম এবং আলী মাশরাফি (২০২৩) এর একটি নিবন্ধে একটি উত্তেজনাপূর্ণ অনুসন্ধান উঠে এসেছে। স্বাধীন ও স্বচ্ছ বিচারব্যবস্থার ওপর জোর দিয়ে বিচার বিভাগ এবং ন্যায়বিচারের প্রবেশাধিকার সম্পর্কিত বিষয়গুলো এখানে তুলে ধরা হয়েছে। চ্যালেঞ্জগুলো আইন ও জাতীয় রাজনীতির সাথে জড়িত জটিলতাগুলো আন্ডারস্কোর করে। বাংলাদেশে কার্যকর মানবাধিকার প্রয়োগে বাধা সৃষ্টিকারী বাধাগুলির অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে লেখকদ্বয় বিদ্যমান আইনী বিধান এবং তাদের বাস্তব প্রয়োগের মধ্যে ব্যবধানকে সমালোচনামূলকভাবে মূল্যায়ন করেছেন।

"মানবাধিকার প্রয়োগের পঞ্চাশ বছর" থেকে অন্তর্দৃষ্টি: আলম এবং মাশরাফির নিবন্ধটি ১৯৭১ সালে দেশের স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে মানবাধিকার প্রয়োগের ঐতিহাসিক ল্যান্ডস্কেপ নিয়ে আলোচনা করে। এটি আইনি কাঠামোর একটি উল্লেখযোগ্য বৈষম্য দ্বারা সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরে, তাত্ত্বিক ভিত্তি গুলোর উপর জোর দেয়। মানবাধিকার আইনগত এবং রাজনৈতিক উপকরণ হিসাবে, এবং তাদের বাস্তব বাস্তবায়নের ওপর আলোকপাত করে। লেখকরা আইনসভা, নির্বাহী বিভাগ এবং বিচার বিভাগ সহ প্রাসঙ্গিক স্টেকহোল্ডারদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার উপর জোর দিয়ে এই ব্যবধান পূরণের জন্য আইনী, প্রশাসনিক এবং বিচার বিভাগীয় সংস্কারের পরামর্শ দেন।

উপসংহারে, বাংলাদেশের ২০২৩ ইউপিআর মানবাধিকারের ক্ষেত্রে জাতির অগ্রগতি এবং চ্যালেঞ্জ গুলোর একটি মূল্যবান স্ন্যাপশট। যদিও প্রশংসনীয় সাফল্য গুলো স্বীকার করা হয়েছিল, অবিরাম সমস্যাগুলি মানবাধিকার কার্যকরভাবে বাস্তবায়নের জন্য সমন্বিত প্রচেষ্টা এবং একটি সহযোগিতামূলক পদ্ধতির দাবি করে। আলম এবং মাশরাফির দেওয়া ইউপিআর অনুসন্ধান এবং অন্তর্দৃষ্টি গুলি আইনি কাঠামো এবং জাতীয় রাজনীতির সাথে যুক্ত জটিলতার প্রতি ক্রমাগত মনোযোগ দেওয়ার আহ্বান জানায়, উন্নতির জন্য একটি রোডম্যাপ প্রদান করে এবং মানবতা রক্ষা ও সুরক্ষায় সকল স্টেকহোল্ডারদের ভাগ করা দায়িত্বের উপর ও জোর দেয়।

লেখক: মুক্তিযোদ্ধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি সদস্য, সভাপতি, বাংলাদেশ নর্থ আমেরিকান জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক, এবং নির্বাহী পরিচালক, স্টেপ টু হিউম্যানিটি এসোসিয়েশন, কানাডা।

পাঠকের মতামত:

০১ মার্চ ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test