E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

‘ইউক্রেনের পরিচয়-সংস্কৃতি মুছে ফেলার চেষ্টা করছেন পুতিন’

২০২২ মে ২৮ ১৩:৫৪:৩৭
‘ইউক্রেনের পরিচয়-সংস্কৃতি মুছে ফেলার চেষ্টা করছেন পুতিন’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন অভিযোগ করেছেন যে, ইউক্রেনের পরিচয় এবং সংস্কৃতি মুছে ফেলার চেষ্টা করছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

ইউএস নাভাল একাডেমির এক অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তৃতায় বাইডেন বলেন, পুতিন শুধু ইউক্রেনকে দখলের চেষ্টা করছেন তা নয়, তিনি আক্ষরিক অর্থে ইউক্রেনীয় জনগণের পরিচয় এবং তাদের সংস্কৃতি মুছে ফেলার চেষ্টা করছেন।

তিনি বলেন, রুশ বাহিনী ইউক্রেনের স্কুল, হাসপাতাল এবং জাদুঘরে হামলা চালাচ্ছে। একটি সংস্কৃতি নির্মূল করা ছাড়া এর পেছনে আর কোনো উদ্দেশ্য থাকতে পারে না। বাইডেন বলেন, এই যুদ্ধ শাসনভিত্তিক আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার মৌলিক নীতির উপর সরাসরি আক্রমণ।

এদিকে পূর্ব ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে রুশ অভিযান চলতে থাকার মধ্যেই সেখানকার রুশ-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহীরা বলছে, তারা লিমান নামে একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর দখল করে নিয়েছে।

ইউক্রেনের স্লোভিয়ানস্ক শহরে যাওয়ার রাস্তার ওপর এই লিমানের অবস্থান এবং এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ রেল-সংযোগস্থল। রাশিয়া যেভাবে পুরো ডনবাসের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা করছে সেই প্রয়াসে এ শহরটি একটি গুরুত্বপূর্ণ টার্গেট।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির উপদেষ্টা ওলেক্সেই আরেস্টোভিচ বলেছেন, তাদের পাওয়া খবর অনুযায়ী তারা লিমান হারিয়েছেন এবং রুশপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীরা এখন শহরটি নিয়ন্ত্রণ করছে। তিনি আরও বলেন, লিমানের ওপর রুশ বাহিনী যে আক্রমণ চালিয়েছে তা ছিল সুসংগঠিত।

তবে লিমানের পতনের খবর কতটা সঠিক তা এখনো স্পষ্ট নয়। এক ইউক্রেনীয় কর্মকর্তা বলেন, শহরটির উত্তর ও দক্ষিণের কিছু অংশে ইউক্রেনীয়রা এখনো লড়াই করে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ সেভারোডোনেৎস্ক এবং লিসিচানস্ক শহর দুটির চারপাশেও প্রচণ্ড যুদ্ধ চলছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। এসব এলাকায় ইউক্রেনীয় বাহিনী শক্ত অবস্থান নিয়ে থাকলেও রুশ বাহিনী বিক্ষিপ্তভাবে কিছু সাফল্য পেয়েছে।

এই শহর দুটির ওপর প্রায় সার্বক্ষণিক গোলাবর্ষণ করা হচ্ছে। শহরটির মেয়র বলেছেন, সেভারোডোনেৎস্কের ৬০ শতাংশ আবাসিক বাড়িঘর পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। মস্কো সম্প্রতি ডনবাস অঞ্চলকে তাদের যুদ্ধপ্রয়াসের মূল কেন্দ্রে পরিণত করেছে। লুহানস্কের ৯০ শতাংশেরও বেশি এলাকা এখন রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে। অন্যদিকে দনেৎস্ক অঞ্চলের যুদ্ধেও রাশিয়া সম্প্রতি বড় অগ্রগতি ঘটিয়েছে।

(ওএস/এএস/মে ২৮, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

২৬ জুন ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test