E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

ইউক্রেনের সম্মুখ যোদ্ধা ব্যালে নৃত্যশিল্পী ওলেসিয়া

২০২২ জুলাই ০২ ১৭:৩৫:০৮
ইউক্রেনের সম্মুখ যোদ্ধা ব্যালে নৃত্যশিল্পী ওলেসিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাশিয়ার আক্রমণ ঠেকিয়ে ইউক্রেনের সুরক্ষার দায়িত্বে রয়েছেন অস্ত্রধারী পুরুষ যোদ্ধারা। যাদেরকে পরিখা খনন এবং ঘাঁটি তৈরি করে যুদ্ধের ফ্রন্টলাইনে রাখা হয়। তারা বাজার-ঘাটে, সমুদ্রের ধারে ঘুরে বেড়ায় এবং ট্যাঙ্কের মধ্যে শুয়ে পড়ে-এই তাদের জীবন। কিন্তু ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে আরেক বীরত্বপূর্ণ অবদান চোখে পড়ছে। যুদ্ধের সম্মুখে দেখা যাচ্ছে অস্ত্রধারী নারীদেরও।

সম্মুখ নারী যোদ্ধাদের মধ্যে এরকম একজন হলেন ওলেসিয়া ভোরোৎনিক। তিনি একজন ব্যালে ড্যান্সার। ইউক্রেনের ন্যাশনাল অপেরার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। দেশকে রক্ষা করার জন্য চাকরি ছেড়ে দেন ওলেসিয়া।

৩০ বছর বয়সী ওলেসিয়া ভোরোৎনিক ২০০৯ সাল থেকে নৃত্যকেই বেছে নেন ক্যারিয়ার হিসেবে। ১০ বছর আগে ব্যালে ড্যান্স শুরু করার আগে একজন শিশু জিমন্যাস্ট ছিলেন তিনি। ভোরোৎনিক কিয়েভ কোরিওগ্রাফিক কলেজে পড়াশোনা করেন এবং তারপর জাতীয় অপেরার নৃত্য দলে যোগ দেন। তিনি বলেন যে, এই ক্যারিয়ারের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া কঠিন।

নাচের মতোই সামরিক চাকরি তার জীবনের গল্পের একটি অংশ। তিনি বিবাহিত এবং তার সংসারে তিন বছরের ছেলে রয়েছে। ২০১৪ সালে রাশিয়ান-সমর্থিত বিদ্রোহের পর, তিন বছর আগে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে সংঘর্ষে নিহত হন তার স্বামী।

তিনি বলেন, গত ফেব্রুয়ারিতে যখন নতুন করে যুদ্ধ শুরু হয়, তখন তিনি জানতেন যে তাকে কিছু একটা করতে হবে, কিন্তু কী করতে হবে তা নিশ্চিত ছিলেন না। তিনি আরও বলেন, ‘এটা আমার শখ। আমি জানতাম যে যদি সম্পূর্ণরুপে ইউক্রেন আক্রমণ হয় তবে আমি বিদেশে যেতে পারবো না। আমি যুদ্ধ করতাম।’

এরপর তিনি ব্যালে ছেড়ে দেন এবং একটি একে-৪৭ নিয়ে চেকপয়েন্টে অবস্থান নেন। তিনি বলেন, প্রথম কয়েকদিন ভয়াবহ পরিস্থিতি ছিল। রাশিয়ান সৈন্যরা শহরটিকে ঘিরে রাখেন। লোকেরা অন্যত্র আশ্রয় নেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিল। ভোরোৎনিক বেসামরিক লোকদের সরিয়ে নেওয়া শুরু করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি জানান, ‘আমি লোকেদের বের করার জন্য পেছনের রাস্তা ব্যবহার করেছি। তাদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিল আমার বন্ধু। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুরাও ছিল।

পরে তিনি দেশটির মিলিটারি রিজার্ভের টেরিটোরিয়াল ডিফেন্স ফোর্সে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু এতে যোগ দেওয়া সহজ ছিল না। যারা সেখানে যোগ দেওয়ার জন্য স্বাক্ষর করছিলেন তাদের মধ্যে সামরিক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন পুরুষদের অগ্রাধিকার ছিল। তিনি বলেন, একজন নারী ব্যালেরিনার কখনই টপ লিস্টে অগ্রাধিকার ছিল না। তবুও, তিনি মনে করেন, ব্যালে এবং সামরিক সেবার মধ্যে কিছু গুরুত্বপূর্ণ মিল রয়েছে।

তিনি বলেন, ব্যালে শৃঙ্খলা জাগিয়ে তোলে। এটি মনের শক্তি সঞ্চয় করে এবং ব্যথা সহ্য করার ক্ষমতা বাড়ায়। জুতা আঘাত; আপনার পায়ের আঙ্গুলের ব্যাথা সবই কাজে লাগে।

ভোরোৎনিক বলেন ‘তোমার পায়ে রক্ত পড়ছে। কিন্তু তুমি সব কিছুর মধ্যে দিয়ে নাচতে শিখো।’ তিনি এখন সেনাবাহিনীতে কর্মরত বেশ কয়েকজন নারীকেও চেনেন যারা রিদমিক জিমন্যাস্টিকস অধ্যয়ন করেছেন। যেটিকে, একই কারণে তিনি সামরিক প্রশিক্ষণের অনুরূপ বলে মনে করেন। তাই তিনি তার স্থানীয়ভাবে নিয়োগ করা অফিসে সারিতে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেছিলেন এবং অবশেষে সুযোগ পান।

এইভাবে কিয়েভের আশেপাশে পাহারা দেওয়ার জীবন শুরু হয়েছিল তার। তার কাঁধে বন্দুক ছিল এবং চেকপয়েন্টগুলোতে কাজ করেছিলেন। ‘এটি একটি দুঃস্বপ্ন’ ছিল বলেও মনে করেন তিনি। সর্বত্র নাশকতার ভয় ছিল। তিনি পশ্চিম ইউক্রেনে নিরাপত্তার জন্য একবার ১৯ ঘন্টা ড্রাইভিং করে আরও বেশি লোককে সরিয়ে নিতে সাহায্য করেছিলেন। রাশিয়ান সেনারা জাইটোমির হাইওয়েতে গোলাবর্ষণ করছিল, যা মোলদোভান সীমান্তের দিকে চলে গেছে, এবং তাকে গ্রামের গলি ব্যবহার করতে বাধ্য করা হয়েছিল।

নৃত্য ও শৃঙ্খলার পাশাপাশি, একটি ধার্মিক ইউক্রেনপন্থি পরিবারে ছোটবেলা থেকেই তার মধ্যে দেশপ্রেম জন্মেছিল। ২০১৪ সালে বিদ্রোহ শুরু হওয়ার পর, তিনি ডনবাস অঞ্চলে ভ্রমণ করতে এবং নিজের চোখে পরিস্থিতি দেখতে নাচ থেকে বিরতি নিয়েছিলেন। তিনি ১৯৩০-এর দশকে ইউক্রেনে স্টালিনের দুর্ভিক্ষ, হলোদোমোর-র মতো জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর ওপর ইউক্রেনীয় ভাষায় বই নিয়ে যান। এর উদ্দেশ্য ছিল দেশ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা এবং গর্বের সঙ্গে কাজ করা।

ভোরোৎনিকের কাছে, যুদ্ধ এবং এর ফ্যাক্টগুলো সরল। তিনি বলেন, ‘ইউক্রেন একটি মহান সার্বভৌম জাতি, যার জনগণ তাদের ঐক্য প্রদর্শন করছে। প্রতিটি নাগরিক তাদের ভূমিকা পালন করছে। আমরা চাই আমাদের সন্তানরা একটি শক্তিশালী, আত্মবিশ্বাসী ইউক্রেনের সঙ্গে বেড়ে উঠুক। সোভিয়েত ইউনিয়নের সময় আমাদের বিক্রি করে দেওয়া মিথ্যা নয়।’

এই সংগ্রামে শিল্পকলার বিশেষ ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করেন ভোরোৎনিক। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় হিংস্রতার শিকার হয়েছে ইউক্রেনের মানুষ। রাশিয়ান জার এবং সোভিয়েত শাসকরা শতাব্দী ধরে ইউক্রেনের সংস্কৃতিকে দমন করেছে। ইউক্রেনীয় শিল্পীদের নিপীড়ন করেছে, তাদের জাতীয় আকাঙ্ক্ষাকে উপহাস করেছে এবং তাদের ভাষাকে আঘাত করেছে।

পশ্চিমে রাশিয়ান সংস্কৃতি বর্জন করা নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলতেই থাকে। কীভাবে ব্যস্ততার সঙ্গে ক্ষোভের ভারসাম্য বজায় রাখা যায়, শাস্ত্রীয় এবং বর্তমান শিল্পীদের মধ্যে পার্থক্য করা যায়, অথবা যারা এখন ক্রেমলিনকে সমর্থন করে এবং যারা এটি প্রত্যাখ্যান করে তাদের মধ্যে পার্থক্য করা যায় এসবের। ভোরোৎনিক ও অন্য ইউক্রেনীয়দের জন্য, পরিস্থিতি একই। তিনি বলেন, ‘বিদেশিরা আমাদের অবস্থান পুরোপুরি বোঝে না কারণ ব্যালে সবসময় রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত’। ‘কিন্তু অধিকৃত মারিউপোলের লোকেরা রাশিয়ানদের কাছ থেকে খাদ্য এবং মানবিক সাহায্য নিতে অস্বীকার করেছিল। তারা অনাহারে থাকার পথ বেছে নিয়েছিল। ব্যালেদের জন্য রাশিয়ান কাজগুলো করা ঠিক নয় যখন তারা কষ্ট পায়।’

জুনের শুরুতে ভোরোৎনিক সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে এখন তার নাচের সময়। কারণ কিয়েভ থেকে সরে এখন রাশিয়ান সেনা ও ইউক্রেনীয়দের যুদ্ধ চলছে অন্যত্র।

ওলেসিয়ার পরবর্তী পারফর্মমেন্স হবে জোসেফ স্ট্রসের ‘দাই লিবেলে’ (‘দ্য ড্রাগনফ্লাই’)। ন্যাশনাল অপেরার ব্যালে মাস্টার ভিক্টর লিতভিনভ বলেছেন, একজন নৃত্যশিল্পী হিসেবে তার অসাধারণ গুণ হলো সাহস। একজন কুৎসিত নারীর চরিত্রে কাজ করার জন্য সাহসের প্রয়োজন, যা তিনি পরবর্তীতে করবেন।

ভোরোৎনিক জানেন যে তাকে যে কোনো সময় সেবার জন্য ডাকা হতে পারে। তিনি এখনও প্রায় প্রতিদিন শুটিং অনুশীলন করেন। তিনি এখনও তার পাড়ায় স্বেচ্ছাসেবক। শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার মধ্যে, তিনি জানেন যে সহিংসতা এখনো শেষ হয়নি।

তিনি বলেন ‘মহান রাশিয়া এবং তাদের মহান সেনাবাহিনী পৌরাণিক কাহিনী’। ওলেসিয়া বলেন, সমস্ত লুটপাট এবং লুটপাটের পরিপ্রেক্ষিতে, ‘আমরা সত্য দেখতে পাই: তারা এখানে আমাদের টয়লেটও চুরি করতে আসে।’

ভোরোৎনিক আরও বলেন যে তিনি বুচা এবং ইরপিনে রাশিয়ান সংস্কৃতি দেখেছেন, কিয়েভের কাছাকাছি জায়গা যেখানে আক্রমণকারীরা যুদ্ধাপরাধ করেছিল। তিনি আরও বলেন যে ‘আমি ভাবছি সেই রাশিয়ানরা পুশকিন পড়ে কিনা।’ রাশিয়ার শ্রেষ্ঠ কবি পুশকিন তার বিতর্কিত কবিতা ‘ওড টু লিবার্টি’ আবৃত্তি করেন, যার কারণে রাশিয়ার জার প্রথম আলেকজান্ডার তাকে নির্বাসন দেন। জারের রাজনৈতিক পুলিশ বাহিনীর কঠোর নজরদারি ও বাধা সত্ত্বেও পুশকিন তার সবচেয়ে বিখ্যাত নাটক বোরিস গোদুনোভ লিখেছিলেন। দ্য ইকোনমিস্ট।

(ওএস/এসপি/জুলাই ০২, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

০৭ আগস্ট ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test