E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

পঞ্চম শ্রেণিতে এমসিকিউ’র পরিবর্তে সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

২০১৮ এপ্রিল ১৫ ১৭:২২:৩১
পঞ্চম শ্রেণিতে এমসিকিউ’র পরিবর্তে সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

স্টাফ রিপোর্টার : প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বহুনির্বাচনী প্রশ্ন (এমসিকিউ) বাদ দিয়ে সংক্ষিপ্ত লিখিত প্রশ্ন যুক্ত করা হয়েছে। গত ১০ এপ্রিল জাতীয় কর্মশালায় পরিমার্জিত এই প্রশ্নপত্রের কাঠামো চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমির এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

নতুন প্রশ্ন কাঠামোতে দেখা গেছে, প্রাথমিক সমাপনীর প্রতিটি বিষয়ে বহুনির্বাচনী প্রশ্ন বাদ দিয়ে সেখানে সত্য-মিথ্যা, এক কথায় উত্তর, শূণ্যস্থান পূরণ, শব্দ অর্থ লিখন, বাক্য গঠন, বিরাম চিহ্ন লিখন, বাক্য গঠনসহ বিভিন্ন ধরনের সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন জুড়ে দেয়া হয়েছে। নতুন ধারার প্রশ্ন যুক্ত করে এবার থেকে প্রশ্নপত্র তৈরি হবে। এমসিকিউ প্রশ্ন বাদ দেয়া হলেও পরীক্ষার সময় আগের মতো আড়াই ঘণ্টাই থাকবে।

গত বছর প্রাথমিক সমাপনী পারীক্ষার প্রায় সব বিষয়ের প্রশ্ন পরীক্ষার আগের রাতে বা পরীক্ষার সকালে ফাঁস হয়ে যায়। অল্প সময়ের মধ্যে তা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় সমালোচনার মুখে পড়ে সরকার। এর ধারাবাহিকতা বজায় থাকে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জেএসসি-জেডিসি এবং এবারের এসএসসি পারীক্ষাতেও। প্রশ্ন ফাঁস মহামারীর আকার ধারণ করায় প্রশ্ন পদ্ধতি নিয়েই প্রশ্ন ওঠে। বিষয়টিকে আমলে নিয়ে প্রশ্ন ফাঁস রোধে পঞ্চম শ্রেণির পরীক্ষায় এমসিকিউ তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এসএসসিতে এমসিকিউ প্রশ্ন প্রবর্তন করা হয়েছিল ১৯৯২ সালে। তখন মোট ৫০টি বহু নির্বাচনী প্রশ্নের উত্তর দিতে হতো; প্রতিটির জন্য বরাদ্দ ছিল ১ নম্বর করে। দীর্ঘদিন ওই ব্যবস্থা চলার পর প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এখন এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় এমসিকিউ অংশ কমিয়ে আনছে সরকার। আর এবার থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা হবে শতভাগ যোগ্যতাভিত্তিক বা সৃজনশীল প্রশ্নে।

প্রাথমিক সমাপনীতে সৃজনশীল প্রশ্নের হার গত কয়েক বছর ধরেই ধাপে ধাপে বাড়নো হচ্ছিল। ২০১৬ সালে প্রতি বিষয়ে ৬৫ শতাংশ এবং ২০১৭ সালে ৮০ শতাংশ প্রশ্ন ছিল যোগ্যতাভিত্তিক, বাকি প্রশ্ন ছিল সনাতন ধরনের। ২০০৯ সালে সারা দেশে এক সঙ্গে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরুর পর ২০১২ সালে প্রথমবারের মতো ১০ শতাংশ সৃজনশীল প্রশ্ন সংযোজন করা হয়। এরপর ধাপে ধাপে বাড়িয়ে ২০১৩ সালে ২৫ শতাংশ, ২০১৪ সালে ৩৫ শতাংশ এবং ২০১৫ সালে ৫০ শতাংশ সৃজনশীল প্রশ্নে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের সমাপনী পরীক্ষা হয়। চলতি বছর শতভাগ যোগ্যতাভিত্তিক পদ্ধতিতে পরীক্ষার আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

(ওএস/এসপি/এপ্রিল ১৫, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

১৬ নভেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test