E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

১৩ জুন, ১৯৭১

মুক্তিযোদ্ধাদের অভিযানে ৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়

২০১৮ জুন ১২ ২৩:০৩:১৩
মুক্তিযোদ্ধাদের অভিযানে ৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়

উত্তরাধিকার ৭১ নিউজ ডেস্ক : মৌলভীবাজারে মুক্তিবাহিনী শেরপুরের কাছে পাকবাহিনীর অবস্থানের ওপর আক্রমণ চালায়। মুক্তিযোদ্ধাদের এ অভিযানে ৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা বিপুল পরিমান সমরাস্ত্র দখল করে।

টাঙ্গাইলে কাদের সিদ্দিকীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা বাসাইল থানা আক্রমণ করে। এ সংঘর্ষে একজন দালাল ও একজন দারোগা নিহত হয়। এতে প্রচুর গোলাবারুদ ও অস্ত্রশস্ত্রসহ বাসাইল থানা মুক্তিযোদ্ধারা দখল করে।

কুমিল্লার মুক্তিযোদ্ধারা রাজাপুর রেলস্টেশনের পাশে পাঁচড়া গ্রামে পাকসেনাবাহিনীর অবস্থানের ওপর তীব্র আক্রমণ চালায়। এ সংঘর্ষে পাকসেনাদের ১১ জন নিহত ও ১২ জন আহত হয়।

সৈয়দপুরে পাকহানাদাররা তাদের আশ্রয় শিবির থেকে মারওয়ারী ও হিন্দু পরিবারদের ভারতে পৌঁছে দেবার কথা বলে একটি ট্রেনে তোলে। ট্রেনটি সৈয়দপুর রেল কারখানার উত্তর পাশে ফাঁকা জায়গায় পৌঁছলে ট্রেন দাঁড় করিয়ে দরজা জানালা বন্ধ করে দিয়ে ২/৩ জন করে নামিয়ে হানাদাররা গুলি চালায়। পাক বর্বরদের এ পৈশাচিকতায় ৩৩৮ জন নিহত হয়। আর মাত্র ৬৫ জন পালিয়ে বাঁচতে সক্ষম হন।

খুলনার সাদীপুর ও শাখরা নামক স্থানে মুক্তিবাহিনী ও পাক সেনাদের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ হয়।

বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত এক ভাষণে বলেন, গণপ্রতিনিধিদের দ্বারা গঠিত সরকারের প্রশাসনিক কাজে সরাসরি অংশগ্রহনের মধ্য দিয়ে একটি আত্মমর্যাদাবান জাতি হিসেবে আমরা বাঁচতে চাই। এই উদ্দেশ্যে দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে আমাদের মুক্তিবাহিনী মাতৃভূমি বাংরাদেশের স্বাধীনতা রক্ষার জন্য জীবনপণ লড়াই করছে। প্রয়োজনীয় অস্ত্র পেলে ইনশাআল্লাহ আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধারা অচিরেই দেশ থেকে হানাদার বাহিনীকে নিশ্চিহ্নকরতে সক্ষম হবেন।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে জাতীয় স্বাধীনতা যুদ্ধকে অধিকতর সুসংগঠিত ও জোরদার করার জন্য বৃহৎ শক্তিবর্গের কাছে প্রয়োজনীয় অস্ত্র সাহায্যের আবেদন জানান। তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তির ব্যাপারে ইসলামাবাদের ওপর চাপ সৃষ্টির জন্যও বৃহৎ শক্তিবর্গের প্রতি আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ বাংলাদেশকে স্বীকৃতিদানের জন্য পৃথিবীর সকল রাষ্ট্রের জনগণ ও সরকারের কাছে আবেদন জানিয়ে বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ পৃথিবীর মানচিত্রে স্থান করে নিয়েছে এবং ইনশাআল্লাহ সাড়ে সাত কোটি মানুষের ইচ্ছা বাস্তবায়িত হবেই। তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনসাধারণের ইচ্ছার ভিত্তিতে গঠিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন সরকারই দেশের একমাত্র বৈধ প্রতিনিধি। পশ্চিম পাকিস্তানের ঔপনিবেশিক শাসন সম্পূর্ণভাবে প্রথ্যাখার করে আমাদের জনগণ স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের এই সংগ্রাম রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বৈষম্যের অবসান ঘটানোর জন্য জনসাধারণের ইচ্ছা থেকে উৎসারিত।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দখলদার শত্রুরা এক নিদারুন অবস্থায় পড়েছে। আমাদের মুক্তিবাহিনী প্রতিদিন শত্রুর ওপর আক্রমণ চালিয়ে সরবরাহ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার গুরুতর বিপর্যয় ঘটাচ্ছে। পাকিস্তানি বাহিনী সুপরিকল্পিত হত্যা, লুন্ঠন ও ধর্ষণের নীতি গ্রহণ করে তারা নিজেদের মানুষ ও সভ্যতার শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তিনি বাংলাদেশ থেকে দখলদার সামরিক বাহিনী তুলে না নেওয়া পর্যন্ত ইসলামাবাদ সরকারকে কোনো সাহায্য না দেয়ার জন্য বৃহৎ শক্তিবর্গের কাছে আবেদন জানিয়ে বলেন, ইসলামাবাদকে সাহায্যদান মানেই পাকিস্তানের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি এবং সে শক্তি কেবল বাংলাদেশের মানুষকে দমন করার কাজেই ব্যবহৃত হবে।

প্রধানমন্ত্রী গণতান্ত্রিক শক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধরত পাকিস্তান সরকারকে সাহায্য না করার জন্য মুসলিম বিশ্বের প্রতি আবেদন জানিয়ে বলেন, জনসাধারণের ইচ্ছা ও মানবাধিকারকে বর্বরোচিতভাবে দমণ করে জেনারেল ইয়াহিয়া ইসলামের দোহাই পাড়ছেন। তিনি বলেন, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ বাঙালি জাতির স্বাধীনতা লাভের আকাঙ্ক্ষা থেকে উৎসারিত। এ যুদ্ধে জয় আমাদের হবেই তাতে কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই।

তথ্যসূত্র: মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর
(ওএস/এএস/জুন ১৩, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test