E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

২২ ডিসেম্বর আগৈলঝাড়া-গৌরনদী হানাদার মুক্ত দিবস

২০২৩ ডিসেম্বর ২১ ১৮:০১:২৫
২২ ডিসেম্বর আগৈলঝাড়া-গৌরনদী হানাদার মুক্ত দিবস

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, বরিশাল : ১৯৭১ সালের ১৬ডিসেম্বর দেশের সর্বত্র বিজয় ঘোষিত হলেও এর ৬দিন পর আজকের এই দিনে বিজয়ের পতাকা উড়েছিল বরিশালের আগৈলঝাড়া ও গৌরনদীতে। ২২ ডিসেম্বর আগৈলঝাড়া ও গৌরনদী উপজেলা পাকহানাদার মুক্ত হয়। 

বীর মুক্তিযোদ্ধাগন জানিয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে সর্ব প্রথম সাবেক মন্ত্রী আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, প্রয়াত এ্যাড. আঃ করিম সরদার এমএলএ-র উদ্যোগে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গঠন করা হয়। ওই দলের প্রধান ছিলেন মতিয়ার রহমান তালুকদার। তার সহযোগী ছিলেন প্রয়াত নুর মোহম্মাদ গোমস্তা। কোটালীপাড়ার হেমায়েত উদ্দিনের নেতৃত্বে গঠন করা হয় হেমায়েত বাহিনী। হেমায়েত ও তার বাহিনী আগৈলঝাড়া-রামশীল-পয়সারহাট-সিকিরবাজার এলাকায় পাকবাহীনির সাথে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। সর্বশেষ মুজিব বাহিনীর একটি দল ভারত থেকে ট্রেনিং শেষে আগৈলঝাড়া-গৌরনদীতে এসে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। ওই দলের নেতৃত্বে ছিলেন সাবেক চিফ হুইপ, মন্ত্রী মর্যাদায় পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন ও পরীবিক্ষন কমিটির আহ্বায়ক আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ (এমপি)।

এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধা রকিব সেরনিয়াবাত, ফজলুর রহমান হাওলাদার ও মেজর শাহ আলম তালুকদার ছিলেন তার সহযোগী। বরিশালের বিভিন্ন এলাকায় পাকসেনারা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে ১৬ডিসেম্বরের পূর্বে আত্মসমর্পণ করলেও এ এলাকায় পাক সেনারা দীর্ঘ ২৮দিন যুদ্ধের পরে ২২ ডিসেম্বর গৌরনদীতে মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

দীর্ঘ ২৮দিন মুক্তি বাহিনী ও মুজিব বাহিনীর যৌথ আক্রমণের পর বাধ্য হয়ে এই দিন শতাধিক পাকসেনা মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। ফলে বাংলাদেশের সর্বশেষ হানাদারমুক্ত এলাকা হল আগৈলঝাড়া-গৌরনদী।

বিজয়রে এই দিনটি পালনের জন্য উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করেছে।

(টিবি/এসপি/ডিসেম্বর ২১, ২০২৩)

পাঠকের মতামত:

০৫ মার্চ ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test