E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধের জন্য জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনায় স্বাস্থ্যের মাত্রাকে একীভূত করা

২০২৪ মার্চ ০৫ ১৭:০৪:৪৬
অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধের জন্য জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনায় স্বাস্থ্যের মাত্রাকে একীভূত করা

দেলোয়ার জাহিদ


জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবে বাংলাদেশের নারী ও শিশুসহ ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর জন্য সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত জরুরি হয়ে পড়েছে। দাতব্য সংস্থা ‘স্টেপ টু হিউম্যানিটি বাংলাদেশ' আয়োজিত ‘জলবায়ু-ভালনারেবল নারী ও শিশুদের স্বাস্থ্য সংকট মোকাবেলা’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনায় বক্তারা বিষয়গুলো তুলে ধরেন। অসংক্রামক রোগ এবং পরিবেশগত পরিবর্তনের উপর ও জলবায়ু পরিবর্তনের মতো পরিবেশগত কারণগুলির সাথে সম্পর্কিত অসংক্রামক রোগ (এনসিডি) মোকাবেলায় জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনা (এনএপি) এর সাথে স্বাস্থ্যের মাত্রাগুলির একীকরণকে সম্বোধন করে আয়োজিত একটি সিম্পোজিয়ামে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরীর এ বক্তব্য তুলে ধরেন। স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার উন্নতি এবং স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার আপগ্রেড করার জন্য সরকারের প্রচেষ্টার কথা সংক্ষিপ্তভাবে উল্লেখ করে, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী অধ্যাপক ডঃ সামন্ত লাল সেন বলেছেন স্বাস্থ্যখাত নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাশা পূরণ করা হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যতটা কনসার্ণ ততটা কনসার্ণ আর কেউ সম্ভবত নেই। প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার মান বৃদ্ধি করতে অনেক কিছুই চিন্তা করেন। প্রধানমন্ত্রী আমাকে একজন ডাক্তার থেকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বানিয়েছেন। প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও একজন পেশাদার ডাক্তারকেই দিলেন তিনি। সুতরাং প্রধানমন্ত্রীর মেসেজ একদম পরিস্কার। তিনি দেশের স্বাস্থ্য খাতে দৃশ্যমান উন্নতি করতে চান।

দুইজন মন্ত্রীর বক্তব্যের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো হলো ন্যাপে স্বাস্থ্যের মাত্রা: মন্ত্রী সাবের হোসেন ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া এবং ম্যালেরিয়া সহ পরিবেশ-সম্পর্কিত এনসিডিগুলি মোকাবেলায় স্বাস্থ্যের মাত্রাগুলিকে ন্যাপে অন্তর্ভুক্ত করার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছেন। তিনি জলবায়ু পরিবর্তনকে স্বাস্থ্যের প্রতিকূল প্রভাবের সাথে যুক্ত করেন, বিশেষ করে উপকূলীয় এলাকায় যেখানে পানির লবণাক্ততা এনসিডিতে অবদান রাখে। এটি অন্তর্নিহিত পরিবেশগত কারণগুলিকে মোকাবেলা করে স্বাস্থ্য সমস্যাগুলি মোকাবেলা করার জন্য একটি সামগ্রিক পদ্ধতির পরামর্শ দেয়।

গবেষণা ও কর্ম: মন্ত্রী সাবের হোসেন গবেষণা ও কর্মের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন, গবেষণা প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে একটি বৈশ্বিক অংশীদার হিসেবে অবস্থান করছে। তিনি উপকূলীয় অঞ্চলে নিরাপদ পানীয় জল নিশ্চিতকরণ এবং টেকসই বৃদ্ধির জন্য একটি ব্যাপক ডেল্টা পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে চলমান প্রকল্পগুলির উল্লেখ করেছেন। এই উদ্যোগগুলি পরিবেশগত ঝুঁকি হ্রাস এবং জনস্বাস্থ্য রক্ষার দিকে একটি সক্রিয় অবস্থান নির্দেশ করে।

স্বাস্থ্যসেবার জন্য সরকারের প্রতিশ্রুতি: স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলির নিয়ন্ত্রণ: ডাঃ সামন্ত লাল সেন অননুমোদিত স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলির বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থান এবং সরকারী ও বেসরকারী উভয় ক্ষেত্রেই মানসম্পন্ন চিকিত্সা নিশ্চিত করার গুরুত্ব সম্পর্কেও সম্প্রতি আলোচনা করেছেন। তিনি বেসরকারী স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে অনিয়মের প্রতি সরকারের জিরো-টলারেন্স নীতি তুলে ধরেন, যা বোর্ড জুড়ে স্বাস্থ্যসেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতির ইঙ্গিত দেয়।

অনুসন্ধানী দৃষ্টিকোণ থেকে বিষয়গুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় এনএপি-তে স্বাস্থ্য বিবেচনার একীকরণ পরিবেশগত কারণ এবং জনস্বাস্থ্যের মধ্যে জটিল ইন্টারপ্লে মোকাবেলার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে। জলবায়ু পরিবর্তন এবং এনসিডিগুলির মধ্যে যোগসূত্র স্বীকার করে, সরকার একটি অগ্রগতি-চিন্তামূলক পদ্ধতি প্রদর্শন করে যা স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জের বহুমুখী প্রকৃতিকে স্বীকৃতি দেয়। এই নিবন্ধটি পরিবেশগত ঝুঁকিগুলিকে কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে এবং স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহের উন্নতির জন্য গবেষণা, নীতি প্রণয়ন এবং অবকাঠামো উন্নয়নে টেকসই বিনিয়োগের পক্ষে সমর্থন করে।

অধিকন্তু, স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সরকারের প্রতিশ্রুতি সরকারি এবং বেসরকারি উভয় ক্ষেত্রেই গুণমান এবং অ্যাক্সেসযোগ্যতা নিশ্চিত করার গুরুত্বের ওপর জোর দেয়। মান প্রয়োগ করে এবং প্রতিষ্ঠানগুলোকে জবাবদিহি করার মাধ্যমে, সরকার স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার প্রতি আস্থা বাড়াতে পারে এবং সকল নাগরিকের জন্য স্বাস্থ্যের ফলাফল উন্নত করতে পারে।

উপসংহারে, নিবন্ধে উল্লিখিত উদ্যোগগুলি বাংলাদেশের স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় একটি সক্রিয় পদ্ধতির ইঙ্গিত দেয়। জাতীয় পরিকল্পনা কাঠামোতে স্বাস্থ্য বিবেচনাকে একীভূত করে এবং স্বাস্থ্যসেবা অবকাঠামো ও নিয়ন্ত্রণকে অগ্রাধিকার দেওয়ার মাধ্যমে, সরকার জনস্বাস্থ্য রক্ষা এবং টেকসই উন্নয়নের প্রচারে প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করে।

লেখক: মুক্তিযোদ্ধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি মেম্বার, প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ নর্থ আমেরিকান জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক, কানাডার বাসিন্দা।

পাঠকের মতামত:

১৮ এপ্রিল ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test