E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

 

শ্রমিকের অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক

২০২৪ এপ্রিল ৩০ ১৫:৫৩:০৪
শ্রমিকের অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক

ডা. মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ


পহেলা মে বুধবার বিশ্ব শ্রমিক দিবস। বিশ্বের শ্রমজীবি মানুষের অধিকার ও দাবি আদায়ের দিন। মে দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘মালিক-শ্রমিক গড়বো দেশ, স্মার্ট হবে বাংলাদেশ’। প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে প্রতি বছর পয়লা মে বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হয় দিবসটি। এটি আন্তর্জাতিক শ্রমিক আন্দোলনের উদযাপন দিবস। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শ্রমজীবী মানুষ এবং শ্রমিক সংগঠনসমূহ রাজপথে সংগঠিতভাবে মিছিল ও শোভাযাত্রার মাধ্যমে দিবসটি পালন করে থাকে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ৮০টি দেশে পয়লা মে জাতীয় ছুটির দিন। 

স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে ১ মে’কে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘মে দিবস’ হিসেবে স্বীকৃতি দেন। একইসঙ্গে সরকারি ছুটিও ঘোষণা করেন।

আরো অনেক দেশে এটি বেসরকারিভাবে পালিত হয়। ১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের যে মার্কেটের শ্রমিকরা উপযুক্ত মজুরি আর দৈনিক আট ঘণ্টা কাজের দাবিতে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন। কল-কারখানা তখন গিলে খাচ্ছিল শ্রমিকের গোটা জীবন। অসহনীয় পরিবেশে প্রতিদিন ১৬ ঘণ্টা কাজ করতে হতো। সপ্তাহজুড়ে কাজ করে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য একেবারে ভেঙে যাচ্ছিল। শ্রমজীবি শিশুরা হয়ে পড়েছিল কঙ্কালসার। তখন দাবি উঠেছিল, কল-কারখানায় শ্রমিকের গোটা জীবন কিনে নেয়া যাবে না। দিনে ৮ ঘণ্টা শ্রম দাবিতে শুরু হওয়া আন্দোলনের সময় ওই বছরের ১ মে শ্রমিকরা ধর্মঘট আহবান করে। প্রায় তিন লাখ মেহনতি মানুষ ওই সমাবেশে অংশ নেয়। আন্দোলনরত ক্ষুদ্ধ শ্রমিকদের রুখতে গিয়ে একসময় পুলিশ বাহিনী শ্রমিকদের মিছিলে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে পুলিশের গুলিতে ১১ জন নিরস্ত্র শ্রমিক নিহত হন। আহত ও গ্রেফতার হন আরো অনেক শ্রমিক। পরবর্তীতে প্রহসনমূলক বিচারের মাধ্যমে গ্রেফতারকৃত শ্রমিকদের মধ্য থেকে ছয়জনকে আন্দোলনে অংশ নেয়ার অপরাধে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। কারাগারে বন্দীদশায় এক শ্রমিক নেতা আহত হন। এতে বিক্ষোভ আরো প্রকট আকারে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

মে দিবসের তাৎপর্যপূর্ণ অবদান আজকের শ্রমিক শ্রেণিকে আগলে রেখেছে। যে কোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামী চেতনা এখন শ্রমজীবিদের ভূষণ। ১৮৮৬ সালের রক্তঝরা সেই ১ মে এখন সবার কাছে অবিচার ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে জোর সংগ্রামের শপথ গ্রহণের দিন। সামনে এগিয়ে যাওয়ার মূলমন্ত্র।১৮৮৬ থেকে ২০২৪। শ্রমের মর্যাদা, মূল্য ও ন্যায্য মজুরি শুধু নয়, যুক্তিসঙ্গত কর্ম সময় নির্ধারণের আন্দোলনের ১৩৮ বছর। গত ১৩৮ বছরে অনেক পরিবর্তন হয়েছে মানুষের সমাজ ও সভ্যতার। কিন্তু, এই প্রশ্নের আজো উত্তর খুঁজতে হয়, এতো উন্নতি-অগ্রগতি সাধিত হলেও শ্রমিকের অধিকার কি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে?

শ্রমের পরিচয়: শ্রম শব্দের আভিধানিক অর্থ মেহনত, দৈহিক খাটুনী, শারীরিক পরিশ্রম ইত্যাদি। অর্থনীতির পরিভাষায়, “পারিশ্রমিকের বিনিময়ে উৎপাদনকার্যে নিয়োজিত মানুষের শারীরিক ও মানসিক সকল প্রকার কর্ম-প্রচেষ্টাকে শ্রম বলে।আর মানবতার কল্যাণ, নৈতিক উন্নয়ন, সৃষ্টির সেবা ও উৎপাদনে নিয়োজিত সকল কায়িক ও মানসিক শক্তিকে শ্রম বলে।” বাহ্যত এ শ্রম উৎপাদন কার্যে ব্যবহৃত হোক কিংবা পারিশ্রমিক না থাকুক অথবা সে পারিশ্রমিক নগদ অর্থ হউক কিংবা অন্য কিছু এবং শ্রমের পার্থিব মূল্য না থাকলেও পারলৌকিক মূল্য থাকবে।

শ্রমের প্রকারভেদ: ইসলামে সাধারণত শ্রমকে তিন শ্রেণিতে বিভক্ত করা যায়। যথা:

১. শারীরিক শ্রম: শারীরিক শ্রম হলো পুঁজিবিহীন জীবিকা অর্জনের জন্য দৈহিক পরিশ্রম। যেমন: রিক্সাচালক, দিনমজুরদের দৈনন্দিন শ্রম।

২. শৈল্পিক শ্রম: শৈল্পিক শ্রম বলতে যে কাজে শিল্প ও কৌশলবিদ্যাকে অধিক পরিমাণে খাটানো হয়। যেমন- চিত্রশিল্পী, হস্তশিল্প, স্থাপনা ইত্যাদি।

৩. বুদ্ধিবৃত্তিক শ্রম: বুদ্ধিবৃত্তিক শ্রম বলতে ঐ সকল পুঁজিহীন শ্রমকে বুঝায়, যেগুলোতে দেহের চেয়ে মস্তিস্ককে বেশি খাটানো হয়। যেমন- শিক্ষকতা, চিকিৎসক, আইন পেশা ইত্যাদি।

শ্রমিকের পরিচয়: শ্রমিকের ইংরেজি প্রতিশব্দ লেবার আর আরবিতে বলা হয় আমেল। সাধারণ অর্থে যারা পরিশ্রম করে তাদেরকেই শ্রমিক বলা হয়। প্রচলিত অর্থে সমাজে বা রাষ্ট্রে যারা অন্যের অধীনে অর্থের বিনিময়ে পরিশ্রম করে তাদেরকে শ্রমিক বলা হয়। একজন প্রেসিডেন্টও শ্রম দিয়ে থাকেন, আবার একজন দিনমজুরও শ্রম দিয়ে থাকেন, এ অর্থে সবাই শ্রমিক।

সাধারণত দৃষ্টিতে শ্রমিক বলতে কারখানায় কায়িক শ্রমে নিয়োজিত কেউ, রিকশা চালক, কুলি-মজুর সহ হাজারো পেশায় নিয়োজিত কোটি কোটি শ্রমিক যারা মূলত কায়িক শ্রমে নিয়োজিত। কিন্তু শ্রম আইনে সবাই শ্রমিক কিনা কিংবা শ্রম আইনের আওতায় সবাই পড়েন কিনা সেটি বিবেচনার দাবি রাখে। বাংলাদেশের শ্রম আইনের ২(৬৫) ধারায় বলা হয়েছে “শ্রমিক” অর্থ শিক্ষাধীনসহ কোন ব্যক্তি, তাহার চাকুরীর শর্তাবলী প্রকাশ্য বা উহ্য যে ভাবেই থাকুক না কেন, যিনি কোন প্রতিষ্ঠানে বা শিল্পে সরাসরিভাবে বা কোন ঠিকাদার-এর (যে নামেই অভিহিত হউক না কেন) মাধ্যমে মজুরি বা অর্থের বিনিময়ে কোন দক্ষ, অদক্ষ, কায়িক, কারিগরী, ব্যবসা উন্নয়নমূলক অথবা কেরানীগিরির কাজ করার জন্য নিযুক্ত হন, কিন্তু প্রধানতঃ প্রশাসনিক (তদারকি কর্মকর্তা) বা ব্যবস্থাপনামূলক কাজে দায়িত্বপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তি ইহার অন্তর্ভুক্ত হইবেন না।

মালিকের পরিচয়: অর্থনীতির পরিভাষায়, যারা সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কারখানায় কর্মকর্তার অধীনে শ্রমিক-কর্মচারী হিসেবে কাজ করেন, তারাই শ্রমিক-শ্রমজীবী মানুষ। আর যারা শ্রমিকদের কাজে নিয়োগ করেন, তাদের নিকট থেকে যথাযথভাবে কাজ আদায় করেন এবং শ্রমের বিনিময়ে মজুরি বা বেতন-ভাতা প্রদান করেন, তারাই মালিক।

শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের দিবস পয়লা মে চলে গেল আবার দেশ ও বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়ে। প্রশ্ন অনেক কিন্তু উত্তর সুদূর পরাহত। কিছুতেই ভুলতে পারছিনা রানা প্লাজার সেই চরম ট্রাজেডিকে। সাভারের রানা প্লাজার বহুতল ভবন ধ্বসে সেদিন মারা গিয়েছিলো শত শত শ্রমিক। পঙ্গু ও নিখোঁজ ছিল অসংখ্য জন। যা দগদগে ঘার মতো আমাদের সকলের মনে আজও বিরাজমান। এদেশের শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানের অর্থলিপ্সু মালিকেরা আগেও দেয়নি, এত প্রতিবাদ, প্রতিরোধ আন্দোলন, সংগ্রামের পর এখনও সেই অবস্থার চিত্র সন্তোষজনকভাবে বদলায়নি। চরম ঝুঁকির মধ্যে বাধ্যতামূলকভাবে কাজ করার হীন প্রবণতা এখনও বিরাজমান। নিরাপদ কর্ম সহায়ক পরিবেশ, নিরাপত্তার অভাব এবং দূর্ঘটনা প্রতিরোধ এবং উদ্ধারের জন্য দক্ষ প্রশিক্ষণ ও পর্যাপ্ত যুগোপযোগী উদ্ধার সামগ্রী না থাকায় এই শিল্পের ভাবমূর্তি ও গার্মেন্টস শিল্পের কর্ম পরিবেশ কে বারবার প্রশ্নবিদ্ধ করছে।

প্রাপ্ত্য তথ্যানুসারে দেশে মোট জনসংখ্যা ১৭ কোটি ১৫ লাখ ৯০ হাজার। যেখানে নারী ৮ কোটি ৭৩ লাখ ৯০ হাজার এবং পুরুষ ৮ কোটি ৪২ লাখ জন।দেশের ৬৫ শতাংশ মানুষ কর্মক্ষম। ২০২৩ সাল শেষে শুধু যুব শ্রমশক্তি ২ কোটি ৬২ লাখ ৮০ হাজার। এক বছরের ব্যবধানে শ্রমশক্তিতে প্রবেশ করেছে প্রায় ৩ লাখ যুব জনগোষ্ঠী। সম্প্রতি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ত্রৈমাসিক শ্রমশক্তি জরিপের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

১৫ বা তদূর্ধ্ব বয়সী কর্মে নিয়োজিত এবং বেকার জনগোষ্ঠীর সমষ্টিকে শ্রমশক্তি বলা হয়। এর মধ্যে যাদের বয়স ১৫ থেকে ২৯ বছরের মধ্যে, তাদের যুব শ্রমশক্তি হিসেবে গণ্য করা হয়। জরিপের তথ্য বলছে, দেশে বর্তমানে ৭ কোটি ৩৪ লাখ ৬০ হাজার জনগোষ্ঠী শ্রমশক্তির আওতায় রয়েছে।

সর্বশেষ জনশুমারির হিসাবে বাংলাদেশে ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সী জনগোষ্ঠী ৪ কোটি ৭৫ লাখের কাছাকাছি, কিন্তু যুব শ্রমশক্তি মাত্র ২ কোটি ৬২ লাখ ৮০ হাজার; অর্থাৎ প্রায় অর্ধেক যুবক শ্রমশক্তির বাইরে অবস্থান করছে।

দেশে প্রতি বছরই শ্রমশক্তি বাড়ছে। ২০২২ সালের শেষ প্রান্তিকে দেশে শ্রমশক্তি ছিল ৭ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার। এক বছরের ব্যবধানে এই শ্রমশক্তি বেড়েছে ১ লাখ ১০ হাজার। বর্তমানে ৭ কোটি ৩৪ লাখ ৬০ হাজার শ্রমশক্তির মধ্যে সবচেয়ে বেশি পুরুষ। ডিসেম্বর শেষে দেশে পুরুষ শ্রমশক্তি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ৮ লাখ ১০ হাজার, যেখানে নারী শ্রমশক্তির সংখ্যা ২ কোটি ৫৪ লাখ ৫০ হাজার।

মোট শ্রমশক্তি যেমন বেড়েছে। দেশে যুব শ্রমশক্তিও বেড়েছে। বর্তমানে দেশে ২ কোটি ৬২ লাখ ৬০ হাজার যুব শ্রমশক্তির মধ্যে পুরুষ ও নারী প্রায় সমান। ডিসেম্বর শেষে যুবদের মধ্যে পুরুষ শ্রমশক্তি রয়েছে ১ কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজার। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৩০ লাখ ৩০ হাজার। একই সময়ে দেশে এ বয়সী নারী শ্রমশক্তি রয়েছে ১ কোটি ৩১ লাখ। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ১ কোটি ২৯ লাখ ৪০ হাজার।

আর বিভিন্ন খাতে শ্রমিক নয় কোটি ৬২ লাখ। এর মধ্যে পুরুষ সাত কোটি ১২ লাখ এবং নারী দুই কোটি ৫০ লাখ। বিবিএসের জরিপ অনুসারে পেশার দিক থেকে কর্মক্ষেত্রে কৃষক, মৎস্যজীবীর সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যানুসারে দেশে দুই কোটি ৭৪ লাখ কৃষক ও মৎস্যজীবী এই পেশায় নিয়োজিত। এরপরই রয়েছে উৎপাদন ও পরিবহণ শ্রমিক। এই খাতের শ্রমিকের সংখ্যা এক কোটি ৩০ লাখ। আর সরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন এক কোটি ৩৭ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী। তবে স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে এই সংখ্যা আট লাখ ৮৭ হাজার। এ ছাড়া স্থানীয় সরকার পর্যায়ে কাজ করেন তিন লাখ ৬৮ হাজার লোক। ৩২ লাখ ৮৪ হাজার লোক নিয়োজিত আছেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোয়। আর বিভিন্ন এনজিওতে কাজ করছেন ছয় লাখ ৮৮ হাজার লোক। গেরস্থালিতে কাজ করেন এক কোটি ১৮ লাখ নারী-পুরুষ।আর কর্মে নিয়োজিত শ্রমশক্তির ৯০ শতাংশ তাঁর পেশায় সন্তুষ্ট নয়। এই শ্রমিক অসন্তুষ্টির প্রভাব শুধু প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন ক্ষমতা বা সেবার মানের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে এমন নয়, এর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব প্রতিফলিত হয় সমাজ জীবন, রাজনৈতিক জীবন, পারিবারিক জীবন এবং ব্যক্তি জীবনে।

আমাদের দেশে একজন কর্মজীবীর কর্মক্ষেত্রে অসন্তুষ্টির বহুবিধ যৌক্তিক কারণ থাকতে পারে। তবে মোটাদাগের কারণগুলো যদি বলি তাহলো-যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ না পাওয়া, পরিশ্রম অনুযায়ী মজুরি না পাওয়া, নির্ধারিত সময়ে মজুরি না পাওয়া, প্রাপ্ত মজুরি দিয়ে প্রাত্যহিক ব্যয় নির্বাহ করতে না পারা, জবরদস্তি করে অতিরিক্ত পরিশ্রম করানো, ছুটি না পাওয়া, নিরাপদ কর্মপরিবেশ না পাওয়া, মর্যাদা না পাওয়া, প্রয়োজনীয় বিশ্রাম এবং বিনোদনের অভাব সর্বোপরি চাকরির কোনো নিশ্চয়তা না থাকা।পরবর্তীতে আন্দোলনরত শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয় যুক্তরাষ্ট্র সরকার। ১৮৮৯ সালের ১৪ই জুলাই ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে ১ মে শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। পরবর্তী বছর অর্থাৎ ১৮৯০ সাল থেকে ১ মে বিশ্বব্যাপী পালন হয়ে আসছে ‘মে দিবস’ বা ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস’।

আর মে দিবস আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি লাভের মাধ্যমে সারা বিশ্বের শ্রমিক শ্রেণির মাঝে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। মালিক-শ্রমিক সম্পর্কের ওপর এ দিবসের প্রভাব সূুদূর প্রসারী। এর প্রভাবে শ্রমিকদের দৈনিক কাজের সময় ১৬ ঘন্টা থেকে নেমে আসে ৮ ঘন্টায়। বিশ্বের সব দেশের শ্রমিকরা এর মাধ্যমে তাদের শ্রমের উপযুক্ত মর্যাদা পেতে শুরু করে। নিজেদের অধিকার আদায়ে তারা এগিয়ে যায় সামনে। মেহনতি মানুষ মুক্তি পেতে শুরু করে তাদের শৃঙ্খলিত জীবন থেকে। বিশ্বের ইতিহাসে সংযোজিত হয় সামাজিক পরিবর্তনের আরেকটি নতুন অধ্যায়। মে দিবস হচ্ছে গোটা পৃথিবীর শ্রমজীবি সমাজের বৈপ্লবিক পরিবর্তন সুচনা করার দিন। শ্রেণি-বৈষম্যের বেঁড়াজালে যখন তাদের জীবন বন্দি ছিল তখন মে দিবসের প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে খুলে যায় তাদের শৃঙ্খল। এ ফলে আস্তে আস্তে লোপ পেতে লাগলো সমাজের শ্রেণি-বৈষম্য। পুঁজিবাদের দূর্বল দিকগুলোকে পুঁজি করা অবৈধ অর্থলোভীদের আগ্রাসী দংশন থেকে রেহাই পেল কোটি কোটি শ্রমিক। বৈষম্য ও শোষণমুক্ত একটি সমাজ গোটা বিশ্বকে উপহার দিল এই মে দিবস। মালিকপক্ষের সাথে শ্রমিকের যে উঁচু-নিচু সম্পর্ক ছিল তা এক সময় সমতলে চলে আসলো শুধুমাত্র মে দিবসের স্বীকৃতির ফলেই। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি নিম্ম মধ্য আয়ের দেশ। এই দেশে শ্রমজীবি মানুষের সংখ্যা অনেক। বর্তমানে মে দিবসের সম্মানার্থে বাংলাদেশেও ১ মে সরকারী ছুটির দিন। এদিন শ্রমিকরা মহা উৎসাহ ও উদ্দীপনায় পালন করে মে দিবস। তারা তাদের পূর্বসূরীদের স্মরণে আয়োজন করে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের। শ্রমিক সংগঠনগুলো মে দিবসে আয়োজন করে নানা ধরনের সাংস্কৃতিক ও কল্যাণমুখী কর্মসূচির। বাংলাদেশের শ্রমিকরা এদিন আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপন করে মহান মে দিবস।

পরিশেষে বলতে চাই, আমাদের দেশে শ্রমিকের অধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত নয়, নানা ক্ষেত্রে নানাভাবে উপেক্ষিত। অনেক কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকরা নিরাপত্তাহীন ও ন্যায্য মজুরিবঞ্চিত। দেশের সবচেয়ে শ্রমঘন শিল্প গার্মেন্টস খাতে শ্রমিকদের জন্য সর্বনিম্ন মজুরি নির্ধারিত হলেও সর্বক্ষেত্রে তা অনুসৃত হচ্ছে না। অন্যান্য শিল্পক্ষেত্রের অবস্থা আরো নাজুক। বহু প্রতীক্ষার পর দেশে একটি শ্রম আইন প্রণীত হয়েছে যেখানে কৃষি শ্রমিকরা স্বীকৃতি পেয়েছেন। মহিলা ও পুরুষ গৃহকর্মীদেরও শ্রমিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার নীতিমালা হচ্ছে। এগুলো আশার কথা। তবে এর বাইরেও অধিকার বঞ্চিত রয়ে গেছেন অনেক অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে শ্রমিকরা। শিল্পক্ষেত্রে সুস্থ অবস্থা তৈরির জন্য ও শ্রমিকের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা, প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা ও উন্নত জীবনমানের নিশ্চয়তা দেয়ার কোনো বিকল্প নেই। আজকের দিনে আমাদের প্রত্যাশা- শিল্প মালিক, সরকারসহ সংশ্লিষ্ট সবাই অঙ্গীকারাবদ্ধ হবেন যে, সুস্থ শিল্প বিকাশের স্বার্থে শ্রমিকের মর্যাদা ও ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠায় শ্রম আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা হবে। অন্যতম প্রধান শ্রম খাত গার্মেন্টস শিল্পে শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত করা সময়ের দাবি। দেশের অর্থনীতির আরেকটি বড় নিয়ামক বিদেশে কর্মরত অভিবাসী শ্রমিকদের পাঠানো রেমিট্যান্স। প্রবাসে এবং স্বদেশে ওই শ্রমিকদের অধিকার সংরক্ষণ ও সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার ব্যাপারেও রাষ্ট্রকে দায়িত্বশীল ভূমিকা নিতে হবে।তাই মে দিবসে সকল শ্রমজীবি মানুষ তাদের ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করার মাধ্যমে উন্নয়নমুখী পরিবর্তন সূচনার অঙ্গিকারের প্রয়াস পায়। জয় হোক সাম্যের, জয় হোক মেহনতি মানুষের। আর মহান মে দিবসে দেশের সব শ্রমজীবী মানুষের প্রতি রইল আমাদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

লেখক : কলাম লেখক ও গবেষক, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, জাতীয় রোগী কল্যাণ সোসাইটি।

পাঠকের মতামত:

১৮ জুন ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test