Pasteurized and Homogenized Full Cream Liquid Milk
E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

শিরোনাম:

জলাবদ্ধতায় অনাবাদি থাকছে কয়েক হাজার বিঘা ফসলি জমি

২০১৯ জুলাই ১০ ১৮:০৩:১০
জলাবদ্ধতায় অনাবাদি থাকছে কয়েক হাজার বিঘা ফসলি জমি

নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় একটি খালের অভাবে জলাবদ্ধতায় কয়েক হাজার বিঘা ফসলি জমি অনাবাদি পড়ে থাকে। ওই মাঠে প্রায় ১ কিলোমিটার একটি খাল খনন করা হলে জমিগুলোতে তিনটি ফসল উৎপাদন করা সম্ভব। এতে করে এলাকার আর্থ সামাজিক উন্নয়ন হবে বলে মনে করছেন স্থানীয় কৃষকরা। বিষয়টি নিয়ে কৃষি বান্ধব সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, উপজেলার বালুভরা ইউনিয়ন পরিষদের কুশারমুড়ী মাঠের পানি নিষ্কাশনের জন্য একটি ড্রেনেজ ব্যবস্থা ছিল। মাঠের পানি ওই ড্রেন দিয়ে বের হয়ে মাঠের পশ্চিম পাশ দিয়ে খলসি ও নিহনপুর গ্রামের মধ্য দিয়ে মাগুরা গ্রামে অবস্থিত মাগুরা বিলে চলে যেত। এতে করে ওই মাঠের চাঁনপুর, মির্জাপুর, দোনইল, খলসি, পাইকপাড়াসহ কয়েকটি গ্রামের প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার বিঘা জমির ফসলের কোন সমস্যা হতো না। ফলে মাঠে বোরো, আমন ও পাটের আবাদ করা হতো।

কিন্তু ১৫ থেকে ২০ বছর আগে মাগুরা গ্রামের শেষ প্রান্তে ওই ড্রেনের মুখ বন্ধ করে মাটি ভরাট করে দিয়ে সেখানে একটি বাড়ি নির্মাণ করা হয়। এতে করে কুশারমুড়ী মাঠের পানি বের হয়ে খলসি গ্রাম পর্যন্ত যেতে পারলেও মাগুরা বিলে যেতে পারেনা। ফলে পানি বের হয়ে যাওয়ার বিকল্প কোন পথ না থাকায় মাঠে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

এতে করে সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার কারণে মাঠে বোরো, আমন ও পাটের ফসল ডুবে যায়। এভাবে কৃষকরা প্রতি বছর ক্ষতিগ্রস্থ হতে শুরু হলে আমনের আবাদ করা ছেড়ে দেন। পরবর্তীতে আবার পাটের আবাদ করাও ছেড়ে দেন কৃষকরা। সর্বশেষ শুধু একটিমাত্র বোরো আবাদ করা হয়। বোরো ধান পাকার সময় বৃষ্টি হলে জমিতে হাঁটু পানিতে এই ধান কাটতে হয়। এতে করে তিন ফসলি জমি এখন এক ফসলে পরিনত হয়েছে। পানি জমে থাকায় জমিতে কচুরি পানার স্তুপ জন্মেছে।

খাবারের জন্য স্থানীয়রা এ মাঠ থেকে মাছ শিকার করে থাকেন। কুশারমুড়ী বিলের উত্তর পাশ দিয়ে প্রায় ১ কিলোমিটার খাল খনন করে মরা নদীতে পানি নেমে দেয়া হলে এই অবস্থার উন্নতি হবে। এভাবে খাল খনন করে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা হলে আবারও জমিতে তিন ফসলের আবাদ করা সম্ভব হবে।

এ ব্যাপারে বদলগাছী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম আলী বেগ সাংবাদিকদের বলেন, যেহেতু পূর্বে মাঠের পানি নিষ্কাশনে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ছিল। মাঠটি পরিদর্শণ করে স্থানীয় জনসাধারন এবং সরকারি সহযোগিতায় প্রকল্পের মাধ্যমে জলাবদ্ধতা দূরীকরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

(বিএম/এসপি/জুলাই ১০, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

১৬ জুলাই ২০১৯

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test