E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

দিনাজপুরে করোনা পরিস্থিতিতেও ঘরে ধান তুলতে ব্যস্ত কৃষক

২০২০ মে ২৬ ১৬:২২:৫০
দিনাজপুরে করোনা পরিস্থিতিতেও ঘরে ধান তুলতে ব্যস্ত কৃষক

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর : উত্তরের শষ্যভান্ডার দিনাজপুরে  এবার বরেন্দ্র বহুমুখি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সেচ সুবিধা পাওয়ায় এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কৃষক বোরো’র ভালো ফলন পেয়েছেন। তাই, করোনার প্রতিকুল পরিস্থিতেও কৃষক ঘরে ধান তোলা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। ধানের ন্যায্য মূল্য পেলে কৃষক করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। তবে, ইতোমধ্যে খাদ্য বিভাগ  অ্যাপের মাধ্যমে কৃষকের কাছে ধান কেনা শুরু করেছে। সরকারের সংগ্রহ অভিযানে প্রকৃতভাবে কৃষকরা ধান দিতে পারলে উপকৃত হবে বলে প্রত্যাশা করছেন কৃষি বিভাগ।

কৃষাণ-কৃষাণী ধান কাটছেন,বাহুকায় বেঁধে,কাঁধে চেপে নিয়ে যাচ্ছেন উঠোনে। করোনার প্রতিকুল পরিস্থিতেও সমান তালে চলছে, ধান কাটা, ধান মাড়াই ও ঝাড়ার উৎসব।

দিনাজপুরে এবার এক লাখ ৭১ হাজার ৩’শ ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও চাষ হয়েছে আরো বেশী জমিতে। বরেন্দ্র বহুমুখি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সেচ সুবিধা পাওয়ায় এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কৃষক এবার বোরো’র ভালো ফলন পেয়েছেন। রাষ্ট্রীয় পুরস্তারপ্রাপ্ত বিরল পুরিয়া গ্রামের কৃষক মো.মতিউর রহমান এবার ধানের ভালো ফলন পেয়েছেন তারা। কৃষক ধানের ভালো দাম পেলে আগামীতে ধান চাষে আগ্রহ বাড়বে বলে তার দাবী।

এদিকে বরেন্দ্র বহুমুখি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিএমডিএ দিনাজপুর জেলায়-এক হাজার ৬’শ ৮৮টি গভীর নলকূপের মাধ্যেমে ৬৮ হাজার ২’শ হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষে সেচ সহায়তা দিয়েছে। প্রাণঘাতি করোনা পরিস্থিতিতেও কর্তৃপক্ষ প্রতিনিয়ত গভীর নলকূপ মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষন করে কৃষকদের সেচ সুবিধা সচল রেখেছে বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর বরেন্দ্র বহজমূখি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিএমডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাবিবুর রহমান খান। তিনি জানান, তাদের সহায়তায় সেচ সুবিধা নিশ্চিত হওয়ায় কৃষক বোরোর ভালো ফলন পেয়েছেন। ধান ঘরে তুলতে পেরে আনন্দিত কৃষক।

তাবে, সদর উজেলার ঝাঞ্জিরা গ্রামের কৃষক দবিরুল উসলাম জানিয়েছেন, ধানের ন্যায্য মূল্য পেলে করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন তারা।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে,দিগন্ত বিস্তৃত জুড়ে এখন পাকা ধানের সমারোহ। শ্রমিক সংকট হলেও করোনাভাইরাসের কারণে কৃষক পরিবার নিজেই দূরত্ব বজায় রেখে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ করছেন। কেউ কেউ আবার কম্বাইন হারভেষ্টার দিয়ে যান্ত্রিক পদ্ধতিকে ধান কাটা ও মাড়াই এর কাজ করছেন।

এ বিষয়ে কৃষককে সহায়তা ও মাঠ পর্যায়ে সরজমিনে পরামর্শ দিচ্ছে, বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও কৃষি বিভাগ বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো, তৌহিদুল ইকবাল।

ইতোমধ্যে খাদ্য বিভাগ অ্যাপের মাধ্যমে কৃষকের কাছে ধান কেনা শুরু করেছেন বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. আশ্রাফুল আলম।

দিনাজপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো.রেজাউল ইসলাম জানিয়েছেন,সদর উপজেলার এবার ২ হাজার ৪’শ ৯ মেট্রিক টন বোরো ধান কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ক্রয় করা হবে। আর এ ধান ক্রয় শুরু হয়েছে। সংগ্রহ অভিযান চলবে,৩১ আগষ্ট পর্যন্ত।

বরেন্দ্র বহুমুখি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সহায়তায় সেচ সুবিধা পাওয়ায় এবার এ অঞ্চলে বোরোর ভালো ফলন পেয়েছেন কৃষক। করোনার এই প্রতিকুল পরিবেশেও কৃষক ঘরে ধান তুলছেন। কৃষক যদি এ ধানের ভালো দাম পায়,তবে করোনা পরিস্থিতির ক্ষতি তারা পুষিয়ে নিতে পারবেন, এমনটাই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

(এস/এসপি/মে ২৬, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

১৩ জুন ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test