E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

'নির্ধারিত সময়েই উন্মুক্ত হবে পদ্মা সেতু'

২০১৭ সেপ্টেম্বর ৩০ ১৭:২০:৪৮
'নির্ধারিত সময়েই উন্মুক্ত হবে পদ্মা সেতু'

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : হতাশার কুয়াশা ভেদ করে, দেশীয় ও বিদেশী ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করে, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা, বিশ্ব মানবতার রোল মডেল, বিশ্বরত্ন শেখ হাসিনার একক নেতৃত্বে পদ্মা বহুমূখি সেতু এখন মাথা উঁচু করে সারা বিশ্বের কাছে ক্রমেই দৃশ্যমান হয়ে উঠছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার সকালে পদ্মা সেতুর শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টে ৩৭ ও ৩৮ নং পিলারের উপর স্প্যান স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পদ্মাসেতুর কাজ শেষ হবে। ইতোমধ্যে পদ্মাসেতুর ৪৭ দশমিক ৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, বিশ্ব ব্যাংক পদ্মাসেতু নির্মাণ কাজ থেকে সরে যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় সাহসিকতায় নিজস্ব অর্থায়নে আমরা পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করেছিলাম। সে সময় পদ্মা সেতুর আকাশে কালোমেঘ ছিল, ছিল সীমাহীন হতাশা । আজ হতাশার কালো মেঘ সরে গেছে। মন্ত্রী জানান, সেতুর সার্বিক অগতি হয়েছে ৪৯ শতাংশ। তিনি বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে আরো একটি স্প্যান বসানো হবে। আমরা আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাগুপ্তা ইয়াসমীন এমিলি এমপি ,পদ্মাসেতুর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সামরিক কর্মকর্তা মেজর জেনারেল সাঈদ মাসুদ, সেতু বিভাগের সচিব খোন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রকল্প পরিচালক মোঃ সফিকুল ইসলাম, শরীয়তপুর জেলা জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল হোসাইন খান, পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অনল কুমার দে প্রমূখ।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের এবং ৩ হাজার টনের অধিক ওজনের স্প্যানটি ৪ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন একটি ক্রেনে তুলে মাওয়া ঘাট এলাকা থেকে জাজিরার নাওডুবা এলাকায় আনা হয় গত মঙ্গলবার। ৪ দিনের প্রস্তুতি শেষে শনিবার স্প্যানটি তোলা হয় পিলারের উপর। এ সেতুতে মোট পিলার হবে ৪২টি। মোট স্প্যান বসানো হবে ৪১টি। আগামাী ডিসেম্বরের মধ্যে আরো ১টি স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে সেতু বিভাগ । পদ্মা সেতুর প্রতিটি পিলারের নিচে ৬টি করে পাইল বসানো হচ্ছে। এ সেতুতে মোট ২৪০টি পাইল বসানো হবে। এ পাইল গুলো ৯৬ মিটার থেকে ১২৮ মিটার মাটির গভীরে বসানো হচ্ছে। এ পর্যন্ত ৬৮টি পাইল বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। দ্বিতল বিশিষ্ট এই সেতুর নিচ দিয়ে চলবে রেল গাড়ি আর উপর দিয়ে যাতায়াত করবে গণ পরিবহন। পানির স্তর থেকে ৬০ ফিট উঁচু হবে মূল সেতু। সেতুর প্রস্থ্য হবে ৭২ ফিট বা ৪ লেন। চার হাজারেরও বেশী দেশী বিদেশী জনবল দিন-রাত করে সেতু নির্মানের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

(কেএনআই/অ/সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test