E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

পুঁথিগত বিদ্যা নয়, বিশ্ববিদ্যালয় হোক গবেষণা আর সৃজনশীলতার দ্বার

২০১৯ ডিসেম্বর ০৫ ১৬:২৩:৪৪
পুঁথিগত বিদ্যা নয়, বিশ্ববিদ্যালয় হোক গবেষণা আর সৃজনশীলতার দ্বার

নিউজ ডেস্ক : রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় হলো জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। যেখানে ছাত্রদের অন্তর্নিহিত মেধার সৃজনশীল বিকাশের সকল আয়োজন নিশ্চিত করা হয়। কেবল পুঁথিগত বিদ্যা নয়, বরং দেশ-বিদেশের সর্বশেষ তথ্যসমৃদ্ধ শিক্ষা, গবেষণা এবং সৃজনশীল কর্মকাণ্ডে যাতে শিক্ষার্থীরা সম্পৃক্ত হতে পারে, সে দ্বার উন্মোচন করবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত চতুর্থ সমাবর্তনে সভাপতি হিসেবে যোগদিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘প্রকৌশল শিক্ষা যদিও হাতেকলমে, তবুও এখানেও সৃজনশীলতার প্রচুর সুযোগ রয়েছে। প্রকৌশলীদের জ্ঞানের ভিত্তি সুদৃঢ় করতে যুগোপযোগী পাঠক্রম ও উন্নত পাটদানের ব্যবস্থা থাকতে হবে।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশের জন্য ছাত্র-শিক্ষক বন্ধুত্বমূলক সম্পর্ক বজায় থাকা আবশ্যক। শিক্ষকদের হতে হবে স্নেহশীল ও অভিভাবকতুল্য। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার মহান উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে এবং একটি জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখবে।’

এবারের সমাবর্তনে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করা দুই হাজার ২৩১ জন শিক্ষার্থীকে ডিগ্রি প্রদান করা হচ্ছে। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী।

সমাবর্তন উপলক্ষে গ্র্যাজুয়েটদের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠেছে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) সবুজ চত্বর। প্রাণের ক্যাম্পাসে জীবনটাকে একটু উপভোগ করতে শত ব্যস্ততার মাঝেও ছুটে এসেছেন তারা। রেখে যাওয়া স্মৃতিগুলোকে মুহূর্তের জন্য ফিরে পেয়ে উচ্ছ্বসিত গ্র্যাজুয়েটরা।

৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশের উন্নয়ন ব্যাহত করা হয় উল্লেখ করে বলে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘ইতোমধ্যেই স্বাধীনতার ৪৮ বছর পার করেছি। মহান মুক্তিযুদ্ধে রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তির যে লক্ষ্য ছিল, তা আমরা এখনও পুরোপুরি অর্জন করতে পারিনি। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে সে পথ রুদ্ধ করে দেয়া হয়েছে। বন্ধ হয় বাকস্বাধীনতা, চিন্তা ও মতামতের স্বাধীনতা।’

তিনি বলেন, “নানা চড়াই-উৎড়াই পেরিয়ে আজ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীকে সামনে রেখে একটি তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক জ্ঞাননির্ভর দেশ গঠনে ‘রূপকল্প ২০২১’ ও ‘রূপকল্প ২০৪১’ ঘোষণা করেছেন।”

রাষ্ট্রপতি বলেন, ’বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ। এদেশে রয়েছে বিপুল মানবসম্পদ, উর্বর কৃষিখাত ও সম্ভাবনাময় প্রকৃতিকসম্পদ। জনবহুল এ দেশটিকে সমৃদ্ধশালী করতে হলে প্রয়োজন পরিকল্পিত উপায়ে সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার। প্রকোশলীরা হলেন উন্নয়নের কারিগর। তাদের মেধা-মননে প্রণীত হবে উন্নয়নের রূপরেখা।’

(ওএস/এসপি/ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

১১ আগস্ট ২০২০

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test