E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

ভাস্কর্যকে ইস্যু করে সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র

২০২০ নভেম্বর ২৪ ১৫:২১:২৪
ভাস্কর্যকে ইস্যু করে সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র

স্টাফ রিপোর্টার : আলেম-ওলামা নামের কতিপয় সাম্প্রদায়িক মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ মন-মগজের মানুষগুলো একটা সময় ‘আমরা সবাই তালেবান, বাংলা হবে আফগান’ স্লোগান দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র বানাতে ষড়যন্ত্র করেছিল। এখন নতুন করে ভাস্কর্যকে প্রতীমার সাথে তুলনা করে ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে মূলত বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র করছে।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ১১টার সময় জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বর থেকে ‘ভাস্কর্য আর মূর্তি এক নয়’-শিরোনামে জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন আওয়ামী ওলামা লীগ। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশব্যাপী এ কর্মসূচী হাতে নিয়েছে বলে সংগঠন থেকে জানানো হয়।

জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ উদ্ধোধন করে বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম’র (বোয়াফ) সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, লালমনিরহাট জেলায় কোরআন অবমাননার তথাকথিত অভিযোগ তুলে মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করে নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে ছাঁই করা আর কুমিল্লা মুরাদনগরে সনাতন ধর্মালম্বীদের বাড়ী ঘরে আগুন লাগানোর পর ভাস্কর্যের অপব্যাখ্যা, বিতর্ক-একই সূত্রে গাঁথা। জঙ্গি মতাদর্শের মানুষগুলো জনমনে বিভ্রান্ত ছড়িয়ে দেশের মাঝে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির ষড়যন্ত্রে নেমেছে। এখানে ভাস্কর্যকে ইস্যু করে মূলত বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতির পাশাপাশি ইতিহাস-ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার মাধ্যমে জঙ্গি রাষ্ট্র পাকিস্তান-আফগানিস্তানের মত ব্যর্থ রাষ্ট্র করার চক্রান্ত করছে।

কবীর চৌধুরী তন্ময় আরও বলেন, একটি মহল পরিকল্পিতভাবে মিথ্যাচার করলেও এদেশের মানুষ সত্যের পক্ষে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এদেশের মানুষ বরাবরই স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রত্যাখ্যান করেছে, সব সময়ই করবে। তবে সরকারের উচিত হবে, দেশ ও দেশের সংস্কৃতির উপর আঘাকারী ব্যক্তি ও মহলকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা, কঠোর-দৃষ্টান্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা এবং জঙ্গি মতাদর্শের ঔদ্ধত্য-সাহসের মূল উৎপাটন করতে উদ্যোগ গ্রহণ করা।

একমাত্র রাজাকার ও রাজাকারের বংশধররাই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিয়ে বিষোদগাড় করবে। দেশবিরোধী জঙ্গি-মৌলবাদগোষ্ঠীকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে আওয়ামী ওলামা লীগের নেতাকর্মীরা বলেন, আমরা জনসচেতনতার লক্ষ্যে রাজধানীসহ দেশের প্রতিটি জেলায় আমাদের লিফলেট বিতরণ চলবে। সেসাথে ইসলামের সঠিক প্রচার ও প্রকাশ কর্মসূচী তৃণমূল জনগোষ্ঠীর কাছে তুলে ধরার চেষ্টাও থাকবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের সভাপতি হাফেজ মাওলানা সুলাইমানের সভাপতিত্বে সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুফতি আল্লামা খলিলুর রহমান জিহাদী, সাধারণ সম্পাদক শাইখ মাওলানা আলমগীর হোসাইন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিনুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রবিউল আলম সিদ্দিকী ও হাফেজ মাওলানা আখতার হোসাইন ফারুকী, প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক ক্বারী আবু সিদ্দিক রতন, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা জাকির হোসাইনসহ অন্যান্য নেতাকর্মী লিফলেট বিতরণ কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেন।

আলেম-ওলামা নামের কতিপয় সাম্প্রদায়িক মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ মন-মগজের মানুষগুলো একটা সময় ‘আমরা সবাই তালেবান, বাংলা হবে আফগান’ স্লোগান দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র বানাতে ষড়যন্ত্র করেছিল। এখন নতুন করে ভাস্কর্যকে প্রতীমার সাথে তুলনা করে ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে মূলত বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র করছে।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ১১টার সময় জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বর থেকে ‘ভাস্কর্য আর মূর্তি এক নয়’-শিরোনামে জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন আওয়ামী ওলামা লীগ। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশব্যাপী এ কর্মসূচী হাতে নিয়েছে বলে সংগঠন থেকে জানানো হয়।

জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ উদ্ধোধন করে বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম’র (বোয়াফ) সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, লালমনিরহাট জেলায় কোরআন অবমাননার তথাকথিত অভিযোগ তুলে মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করে নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে ছাঁই করা আর কুমিল্লা মুরাদনগরে সনাতন ধর্মালম্বীদের বাড়ী ঘরে আগুন লাগানোর পর ভাস্কর্যের অপব্যাখ্যা, বিতর্ক-একই সূত্রে গাঁথা। জঙ্গি মতাদর্শের মানুষগুলো জনমনে বিভ্রান্ত ছড়িয়ে দেশের মাঝে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির ষড়যন্ত্রে নেমেছে। এখানে ভাস্কর্যকে ইস্যু করে মূলত বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতির পাশাপাশি ইতিহাস-ঐতিহ্যকে ধ্বংস করার মাধ্যমে জঙ্গি রাষ্ট্র পাকিস্তান-আফগানিস্তানের মত ব্যর্থ রাষ্ট্র করার চক্রান্ত করছে।

কবীর চৌধুরী তন্ময় আরও বলেন, একটি মহল পরিকল্পিতভাবে মিথ্যাচার করলেও এদেশের মানুষ সত্যের পক্ষে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এদেশের মানুষ বরাবরই স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রত্যাখ্যান করেছে, সব সময়ই করবে। তবে সরকারের উচিত হবে, দেশ ও দেশের সংস্কৃতির উপর আঘাকারী ব্যক্তি ও মহলকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা, কঠোর-দৃষ্টান্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা এবং জঙ্গি মতাদর্শের ঔদ্ধত্য-সাহসের মূল উৎপাটন করতে উদ্যোগ গ্রহণ করা।

একমাত্র রাজাকার ও রাজাকারের বংশধররাই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিয়ে বিষোদগাড় করবে। দেশবিরোধী জঙ্গি-মৌলবাদগোষ্ঠীকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে আওয়ামী ওলামা লীগের নেতাকর্মীরা বলেন, আমরা জনসচেতনতার লক্ষ্যে রাজধানীসহ দেশের প্রতিটি জেলায় আমাদের লিফলেট বিতরণ চলবে। সেসাথে ইসলামের সঠিক প্রচার ও প্রকাশ কর্মসূচী তৃণমূল জনগোষ্ঠীর কাছে তুলে ধরার চেষ্টাও থাকবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের সভাপতি হাফেজ মাওলানা সুলাইমানের সভাপতিত্বে সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মুফতি আল্লামা খলিলুর রহমান জিহাদী, সাধারণ সম্পাদক শাইখ মাওলানা আলমগীর হোসাইন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিনুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রবিউল আলম সিদ্দিকী ও হাফেজ মাওলানা আখতার হোসাইন ফারুকী, প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক ক্বারী আবু সিদ্দিক রতন, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা জাকির হোসাইনসহ অন্যান্য নেতাকর্মী লিফলেট বিতরণ কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেন।

(পিআর/এসপি/নভেম্বর ২৪, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

২২ জানুয়ারি ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test