মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারে বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধান কল্পে গোলটেবিল বৈঠকে মনু-ধলাই খনন, বাঁধ নির্মাণ, আশ্রয় কেন্দ্র নির্মান সহ দ্রুত প্রকল্প গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন বক্তারা।

রবিবার (১জুলাই) রাত ৮টার দিকে শহরের অভিজাত বীনা রেস্টুরেন্টে বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধান কল্পে গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে অনলাইন নিউজ পোর্টাল রেডটাইমস ডটকম ডটবিডি ।

রেড টাইমস এর স্টাফ রিপোর্টার মোঃ আব্দুল কাইয়ুম এর সঞ্চালনায় ও প্রধান সম্পাদক কবি সৌমিত্র দেব’র সভাপতিত্ত্বে আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখেন, প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও বীর মুক্তিযুদ্ধা সৈয়দ মহসিন আলী ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা সানজিদা শারমিন, কলামিস্ট ও ব্যাংকার এড: মোঃ আবু তাহের, মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক শর্মিলা দেব, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আব্দুল মুসাব্বির , ব্লুমিং রোজেস বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিষ্টিক বিদ্যালয়ের পরিচালক ডি.ডি রয় বাবলু, সমাজকর্মী চৌধুরী মোহাম্মদ মেরাজ, স্কুল শিক্ষক প্রদীপ চন্দ্র নাহা, দৈনিক যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি হোসাইন আহমদ, বাংলা নিউজের ডিষ্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট মাহমুদ এইচ খান, ফটোনিউজ বিডির সম্পাদক এমদাদুল হক, সাংবাদিক মোসাহিদ আহমদ, মাওঃ মতিউর রহমান , সৈয়দ ময়নুল হক রবিন, মোস্তাক চৌধুরী, কবি পুলক কান্তি ধর ও কবি অসিত দে প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ১৯৮৪ সালের ভয়াবহ বন্যার পর জেলার প্রধান নদনদীর প্রতিরক্ষাবাঁধ রক্ষার কার্যকর কোন উদ্যেগ না নেয়ায় বার বার বন্যার কবলে পরতে হচ্ছে মনু-ধলাই পাড়ের হাজার হাজার মানুষকে। প্রতিবছর বন্যার পানিতে এই অঞ্চলের অধিকাংশ জায়গা তলিয়ে গেলেও দীর্ঘদিন যাবত স্থানীয় নদনদী রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নেই কোন উদ্যোগ। দিনে দিনে সিলেট বিভাগের অন্যান্য নদীর মত উজান থেকে আসা স্রোতের সাথে পলি পরে ভরাট হয়ে গেছে নদীর মনু ও ধলাই নদীর তলদেশ। দিন দিন নদীর নাব্যতা সঙ্কট প্রকট আকার ধারণ করেছে। নদীর গভীরতা কমে যাওয়ায় কমেছে পানি প্রবাহ আর এই পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় দ্রুত জমছে পলি। এসময় বক্তারা আরো বলেন, এবছর ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বয়ে যাওয়া সৃষ্ট বন্যায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির প্রেক্ষিতে জেলার সাধারণ মানুষকে বন্যার হাত থেকে রক্ষায় এবং স্থায়ী সমাধানের লক্ষে মনু এবং ধলাই নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ ঠিক রাখতে নদী পুর্ন:খনন , শক্তিশালী বাঁধ নির্মান , বন্যার সময় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মান করতে হবে।

কলামিস্ট এড: আবু তাহের তার বক্তব্যে বলেন, মনুনদী সহ সিলেটের নদনদীগুলোর বিপর্যয়কর পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করতে হলে নদীর নাব্যতা রক্ষার জন্য ড্রেজিং এবং পুর্নঃখনন জরুরী, নদীর পাড় দখলমুক্ত করা ও নদী রক্ষার জন্য আর্ন্তজাতিক সহযোগীতা চাওয়া সহ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫(সংশোধিত ২০১০) এবং পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা আইন ১৯৯৫ এর বাস্তবায়ন করার প্রদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

(একে/এসপি/জুলাই ০২, ২০১৮)