রিয়াজুল রিয়াজ, ফরিদপুর : ফরিদপুরে জেলা ছাত্রদলের কর্মিসভা থেকে ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সৈয়দ আদনান হোসেন অনু'কে গ্রেফতারের ঘটনায় সংগঠনটির পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে।

ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক শেখ এনামুল করিম সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৩ মে ২০২৪ ইং তারিখে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কর্মি সম্মেলন ফরিদপুর শহরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মুন্সী আব্দুর রউফ পৌর কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলন চলাকালে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাকিবুল ইসলাম রাকিব ও সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দীন নাছির সহ ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতে ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সৈয়দ আদনান হোসেন অনু'কে গ্রেফতার করা হয়। এই গ্রেফতারে ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হাসান কায়েস তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। এবং অবিলম্বে ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সৈয়দ আদনান হোসেন অনু'র নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে।

উল্লেখ্য, ফরিদপুর বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পৌর মিলনায়তনে গত বৃহস্পতিবার সকালে প্রথমে ফরিদপুর মহানগর ছাত্রদল ও বিকেলে জেলা ছাত্রদলের কর্মিসভা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলের সভায় সভাপতিত্ব করার কথা ছিল ফরিদপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আদনান হোসেন অনু'র।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল চারটার কিছুক্ষণ পর আনদান হোসেন অনু উক্ত মিলনায়তনে এসে ঢুকলে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার একদল পুলিশ মিলনায়তনস্থল ঘিরে ফেলেন।

বিকেল সাড়ে চারটার দিকে আদনান হোসেন অনুকে পুলিশ সদস্যরা নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে জেলা বিএনপি ও জেলা ছাত্রদলের নেতাকর্মী বাধা দেন। এ সময় জেলা বিএনপির সদস্যসচিব এ কে কিবরিয়া স্বপনের সঙ্গে পুলিশের বাদানুবাদ হয়। পুলিশ সদস্যরা জেলা ছাত্রদল নেতাকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসেন।

এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব এ কে কিবরিয়া স্বপন বলেন, পুলিশ জানিয়েছে আদনান একটি হত্যা মামলার আসামি। তবে পুলিশ ওই সময় আমাদের কোনো গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখাতে পারেনি। পুলিশ চাইলে অন্য জায়গা থেকেও তাঁকে গ্রেপ্তার করতে পারত। উদ্দেশ্যমূলকভাবে কর্মিসভা থেকে আমাদের জেলা ছাত্রদল নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, যাতে জেলা ছাত্রদলের আয়োজন বাধাগ্রস্ত হয়।

(আরআর/এসপি/মে ২৬, ২০২৪)