E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

সংবাদ প্রকাশের পর লক্ষীকুন্ডার ইটভাটায় অভিযান

২০২১ জানুয়ারি ১৪ ১৩:০৩:০৭
সংবাদ প্রকাশের পর লক্ষীকুন্ডার ইটভাটায় অভিযান

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি : বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্টে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে ঈশ্বরদীর প্রত্যন্ত লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নের অবৈধ ইটভাটায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়েছে।

বুধবার দুপুরের পর হতে সন্ধ্যা পর্যন্ত পরিবেশ অধিদপ্তর ও পাবনা জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ৫টি ইটভাটায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের নেতৃত্ব দেন ঢাকা পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রোজিনা আক্তার এবং পাবনা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম। এসময় ১টি ভাটা ভাংচুর এবং ৪টি ভাটায় জরিমানা ও কাঁচা ইট ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার পি এম ইমরুল কায়েস এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মল্লিক ভাটায় কাউকে না পাওয়ায় ওই ভাটা গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়া আতিয়ারের ভাটায় ১ লাখ টাকা, রাজার ভাটায় ২ লাখ টাকা, সেন্টুর ভাটায় ৩ লাখ টাকা এবং তাজের ভাটায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়াও এসব ভাটার তৈরীকৃত কাঁচা ইটও এসময় বিনষ্ট করা হয়।

তিনি আরো জানান, লক্ষীকুন্ডা একটি প্রত্যন্ত ও চরাঞ্চল এলাকা। বিপুল সংখ্যক ইটভাটায় একযোগে অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব নয়। অবৈধ ইটভাটায় অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত: ‘এক লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়নেই ৫২টি অবৈধ ইটভাটা, কৃষিজমি ও পরিবেশ বিনষ্ট করে ইটভাটায় পোড়ানো হচ্ছে কাঠ’ শিরোনামে অনলাইন ও প্রিন্টে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

ঈশ্বরদী পৌর শহর থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরে প্রত্যন্ত পদ্মা নদীর তীরে লক্ষীকুন্ডায় ইউনিয়নে গড়ে উঠেছে এসব ইটভাটা। লক্ষীকুন্ডার তিনটি গ্রাম কামালপুর, দাদাপুর ও বিলকেদার গ্রামে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষি জমির ওপর এসব ইট ভাটায় ইট পোড়ানো হয়। ভাটা নির্মাণের জন্য চিমনির উচ্চতা ও আনুষঙ্গিক যে নির্দেশনা রয়েছে তা অধিকাংশ ভাটা মালিকারা মানেননি।

ভাটাগুলোতে জ্বালানি হিসেবে কয়লার পরিবর্তে কাঠ ব্যবহার হচ্ছে। এখানে রয়েছে ৫০টি অটোফিস এবং দুটি জিকজ্যাক (হাওয়া) ভাটা। অটোফিস ভাটায় কাঠ দিয়ে ইট পোড়ানো হয়। এসব ভাটা দিয়ে নির্গত কালো ধোঁয়া অনবরত এলাকার পরিবশে দূষণ করছে। বেশির ভাগ ভাটার মালিকরা ইট তৈরির জন্য অবৈধ উপায়ে পদ্মার চর থেকে মাটি সংগ্রহ করে থাকেন। কাঠ দিয়ে এতোগুলো ভাটায় ইট পোড়ানোর ফলে পরিবেশ দূষণ এবং কৃষি ফসলের উপর প্রভাব পড়ছে। সরকারকে ভ্যাট-ট্যাক্স কিছুই দেয় না ভাটার মালিকরা। ফ্রিতেই পরিবেশ দূষণ করে অবাধে এই ইটভাটাগুলো অবৈধভাবে কয়েকবছর যাবত পরিচালিত হচ্ছে।

(এসকেকে/এসপি/জানুয়ারি ১৪, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

০৪ মার্চ ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test