E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

সুবর্ণচরে যুবলীগ নেতা ও তার পরিবারের ওপর হামলার অভিযোগ

২০২১ জানুয়ারি ২২ ১৭:৫৯:২১
সুবর্ণচরে যুবলীগ নেতা ও তার পরিবারের ওপর হামলার অভিযোগ

নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালী সুবর্ণচরে যুবলীগ নেতা ইদ্রিস ও তার পরিবারকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে, আহতরা বর্তমানে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ভুক্তভোগী সুবর্ণচর উপজেলার ২নং চরবাটা ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিস বলেন, "গত ১৫ ই জানুয়ারি আমার মেঝ ভাই খলিলসহ স্বপরিবার নিকট আত্নীয়র বিয়ে বাড়িতে দাওয়াতে যাই। ১৬ তারিখ সকাল ১০ আমার মেঝ ভাই খলিল বিয়ে বাড়ী থেকে নিজ বাড়ীতে গোসলের কাপড়চোপড় নিতে আসেন দেখেন তার ঘরের ভেতর শোকেসের তালা ভাঙ্গা।

ঘরের বাহিরে গিয়ে দেখেন রান্না ঘর গিয়ে কেউ সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে চুরির ঘটনা ঘটায়। তখন তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে ঘটনা দেখতে পাই। তখন তাদের বাডির পাশে দেখতে পাই কয়েকটি ছেলে খেলা করতেছে। খেলা থেকে ইউনুস (১১) নামে একটা ছেলে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। তাকে ধরার পরে ছেলেটি তার বাবা সহ কয়েটি ছেলের নাম বলতেছে। নাম বলা অবস্থায় তার মামা সাহেদ তার স্ত্রীসহ ছেলেটা কে ধমক দিয়ে নিয়ে যায়। তখন আমি ঘটনাটি স্থানীয় ইউনিয়ন মেম্বারসহ গন্যমান্যকে জানাই এতে তারা ঘটনাটি ভালোভাবে তদন্ত করে পরেরদিন বিকালে বিচারের কথা বলে।

বিচারক হিসাবে চরমজিদ গ্রামের রাহাদ মাঝি, স্বপন কন্টেক্টার,ও লিটন সহ অনেকজন বসেন। এতে হঠাৎ করে বিবাদী বিচার না বসার আপত্তি জানাই। তার পর আমি সঠিক বিচারের জন্য আইনের আশ্রয় নেই, উক্ত ঘটনার বিষয়ে চরজব্বার থানায় লিখিত অভিযোগ করে বাড়ীতে এলে তারা মামলার বিষয়টি জানতে পারেন এবং
পূনরায় তারা সালিশের মাধ্যমে বিষয়টি মিমাংশার জন্য ১৮ ই জানুয়ারি সকাল ১০ টায় আমার বাড়ীর সামনে স্থানীয় রহমতের দোকান ঐ সালিশ বৈঠকের আয়োজন করে।

বিচারক হিসেবে ছিলেন, রাহা মাঝি, লিটন, কামাল, রাজিব কন্টেকটার রাশেদ, কোকরা মেহরাজ। তখন তারা অপরাধীর পক্ষ নিয়ে কথা বললে আমি প্রতিবাদ করি এতে উপরোক্ত বিচারক ২০ থেকে ৩০ জনের অজ্ঞাত লাঠিয়াল বাহিনি পূর্বপরিকল্পিতভাবে আমার ওপর অতর্কিত হামলা করে ঘটনার খবর শুনে আমাকে বাঁচাতে আমার মেজো ভাইয়ের শাশুড়ি রোশন আরা(৫৫), আমার শশুর হানিফ, বড় ভাই ইস্রাফিল খলিলসহ ৬/৭ জন এলাকাবাসী এলে তাদেরকেও দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে, অভিযুক্তরা মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ঘটনার ভিডিও
ধারন করেছে বলে বিচারে উপস্থিত থাকা হাতিয়ার বাসিন্ধা তাজুল ইসলাম সম্পদকেও মারধর । পরে এলাকাবাসী আমাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। আমি ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত পূর্বক দোষীদের শাস্তি দাবী করছি"।

ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি বোরহান বলেন, আমরা বিচারের উপস্থিত ছিলাম তারা ইদ্রিস ও তার পরিবারকে অতর্কিত হামলা করে, এটি একটি ন্যাক্কার জনক ঘটনা"।

অভিযুক্তদের মুঠো ফোনে পাওয়া না যাওয়ায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে চরজব্বার থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ ইব্রাহিম খলিল বলেনএ বিষয়ে আমার কাছে কেউ আসেনি , অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে"।

(এস/এসপি/জানুয়ারি ২২, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

০১ মার্চ ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test