E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

অপহরণের ৭ দিনেও সন্ধান মেলেনি আদিবাসী সৃষ্টি বর্মনের

২০২১ এপ্রিল ০৭ ১৪:৩৪:১৪
অপহরণের ৭ দিনেও সন্ধান মেলেনি আদিবাসী সৃষ্টি বর্মনের

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : মধুুপুরে আদিবাসী কোচ সম্প্রদায়ের ৭ম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত এক কিশোরীকে অপহরণের ৭ দিন অতিবাহিত হলেও তার কোন সন্ধান মেলেনি। অপহৃতা সৃষ্টি বর্মন’র বাবা রাম চন্দ্র বর্মন বাদী হয়ে মধুপুর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। 

জানা যায়, গত ৩১ মার্চ রাতে সুবকচনা গ্রামের হাতেম আলীর ছেলে আবদুল মান্নান (২১) অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরদিন সকালে অপহৃতা কিশোরীর বাবা থানায় গিয়ে আবদুল মান্নান সহ ৫’জনকে আসামী করে মধুপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। রহস্যজনক কারণে পুলিশ ঘটনার ৪ দিন পর রোববার (৪ এপ্রিল) রাতে মামলাটি রেকর্ড করেন। সাত দিনেও সৃষ্টি বর্মন উদ্ধার না হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছে মেয়েটির পরিবার।

স্থানীয় পীরগাছা সেন্ট পৌলস উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ওই কিশোরীকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্যক্ত করত মান্নান। উপরন্তু অপহরণের হুমকিও দিত সে। এ বিষয়ে মেয়েটি নিজেই মধুপুর থানায় দুই মাস আগে একটি জিডি করেছিল। বুধবার রাতে মেয়েটি নিখোঁজ হওয়ার পর অনেক খোঁজাখুঁজি করেও না পেয়ে পরিবারের সদস্যরা মান্নানের বাড়ি যান। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি।

মধুপুর কোচ আদিবাসী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক গৌরাঙ্গ বর্মণ অনতিবিলম্বে অপহৃতা কিশোরীকে উদ্ধারের দাবি জানিয়েছেন। টাঙ্গাইল জেলা কোচ আদিবাসী ইউনিয়নের সভাপতি রতন কুমার বর্মণ বলেন, অপহরণের এ ঘটনা দুঃখজনক। মেয়েটিকে দ্রুত উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তিনি।

ফুলবাগচালা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল করিম বেনু জানান, ওই যুবক আগে থেকেই মেয়েটিকে উত্যক্ত করত। দুই মাস আগে আমি থানায় আমার উপস্থিতিতে ভূক্তভোগি ওই কিশোরী জিডি করেছিল।

মধুপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তারিক কামাল বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযুক্ত মান্নানকে গ্রেপ্তার ও অপহৃত কিশোরীকে উদ্ধারে চেষ্টা চলছে।

(আরকেপি/এসপি/এপ্রিল ০৭, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

০৬ মে ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test