E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Transcom Foods Limited
Mobile Version

পাবনায় এখনও বসেনি পিসিআর ল্যাব

২০২১ এপ্রিল ১৯ ১২:০৩:৪১
পাবনায় এখনও বসেনি পিসিআর ল্যাব

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি : পুরাতন বৃহত্তর পাবনা জেলায় পিসিআর ল্যাব এখনও বসেনি। ফলে করোনার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে দীর্ঘসূত্রিতার কারণে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লেও সনাক্ত হচ্ছে না।

অথচ গত বছরের ৪ জুলাই পাবনা জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা ঈশ্বরদী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধকল্পে এক মতবিনিময় সভায় বলেছিলেন, ‘করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য অচিরেই পাবনায় ৩টি পিসিআর মেশিন স্থাপন করা হবে। সরকারি অর্থায়নে ১টি এবং রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের অর্থায়নে আরো ২টি মেশিন বসানোর পরিকল্পনা ইতোমধ্যেই গ্রহন করা হয়েছে।’ এরই মধ্যে ১০ মাস অতিক্রম হলেও পাবনায় একটিও পিসিআর ল্যাব এখনও স্থাপন হয়নি। অথচ পূর্বতন বৃহত্তর পাবনা জেলার অর্ন্তগত মহকুমা বর্তমানে সিরাজগঞ্জ জেলায় পিসিআর ল্যাব স্থাপন হয়েছে।

জেলার ৯টি উপজেলায় প্রায় ৩০ লাখ মানুষের বসবাস। গুরুত্বপূর্ণ ঈশ্বরদীতে বর্তমানে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ৬০০ রাশিয়ান নাগরিকসহ প্রায় ২৮ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে কর্মরত রয়েছে। ঈশ্বরদী ইপিজেডেও বিদেশীসহ প্রায় সাড়ে ১২ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী কর্মরত। গুরুত্ব বিবেচনায় পিসিআর ল্যাব স্থাপন অত্যন্ত জরুরী। বর্তমান ৯টি উপজেলার সরকারি স্বাস্থ্য কেন্দ্র হতে সংগৃহীত নমুনা জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় সিরাজগঞ্জে পিসিআর ল্যাবের মাধ্যমে পরীক্ষা হয়। সীমিত পরিসরে নমুনা সংগ্রহের পর রিপোর্ট পেতে সময় লাগছে ৪-১০ দিন। এরই মধ্যে করোনার বিস্তার ঘটলেও পরীক্ষার সুযোগ না থাকায় পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করার আশংকা রয়েছে।

জানা গেছে, পাবনায় পিসিআর ল্যাব স্থাপন না হওয়ায় ঢাকা ও বগুড়ার ৬টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমতি নিয়ে ঈশ্বরদীর রূপপুর এলাকায় বুথ স্থাপন করে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্মরতদের নমুনা পরীক্ষা করছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে এজন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। এসব বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে ফেমাস স্পেশালাইজড, টিএমএসএস, বিএমএফআর, এএনজেড, নিউ গ্রীণ সিটি হসপিটাল এন্ড ডায়াগানেষ্টিক সেন্টার এবং ডিএনএ সলিউশন। ৬টি বুথে নমুনা সংগ্রহরে পর ঢাকা ও বগুড়া থেকে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এদিকে ঈশ্বরদী ইপিজেডে কর্মরতদের নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী ও বগুড়া থেকে পরীক্ষা করা হচ্ছে। এসব পরীক্ষায় ব্যয়ের পরিমাণ ২-৩ হাজার টাকা।

তিনটি পিসিআর ল্যাব স্থাপনের প্রতিশ্রুতির অগ্রগতির বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা: আব্দুল মোমেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘একটি ল্যাবই স্থাপন হচ্ছে না, আবার তিনটি। তবে পাবনা মেডিকেল কলেজে একটি ল্যাব বসানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। ল্যাবের অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে। সরকার মেশিন সরবরাহ করলে কাজ শুরু হতে পারে।’ পাবনায় এখন প্রতিদিন প্রায় ২৫০ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য সিরাজগঞ্জের এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে পাঠানো হচ্ছে এবং রিপোর্ট পেতে ৪-৫ দিন সময় লাগছে বলে জানান তিনি। তবে রিপোর্ট পেতে ৮-১০ সময় লাগার কথা ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন।

পিসিআর ল্যাব স্থাপনের বিষয়ে জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ জানান, এখন পর্যন্ত ফিজিক্যালি ডেভেলপমেন্ট নেই। তবে অবকাঠামোগত প্রস্ততি চলছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাতে কোন মেশিন নেই। বিদেশ থেকে মেশিন আসলে পাবনায় পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

এদিকে বৃহস্পতিবার রূপপুর পারমাণবিকের নিকিমথ কোম্পানীতে কর্মরত শ্রমিক বিপুল হোসেন করোনায় মারা যান। ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: আসমা খান শনিবার ওই কোম্পানীর আরো ১৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

এই অবস্থায় করোনা পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়াবহ আকার ধারণ করে ছড়িয়ে পড়লেও পাবনা জেলায় পরীক্ষার ব্যবস্থা নেই।

(এসকেকে/এসপি/এপ্রিল ১৯, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

০৭ মে ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test