E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

মুন্সীগঞ্জে ভুয়া ডিগ্রিধারীকে ছেড়ে দিলেন মেডিকেল অফিসার, ইউএনও দিলেন অর্থদণ্ড

২০২৪ জানুয়ারি ২৮ ১৭:০১:২৬
মুন্সীগঞ্জে ভুয়া ডিগ্রিধারীকে ছেড়ে দিলেন মেডিকেল অফিসার, ইউএনও দিলেন অর্থদণ্ড

টঙ্গীবাড়ী প্রতিনিধি : লৌহজংয়ে ভুয়া ডিগ্রি ব্যবহারের সত্যতা পেয়েও কৌশলে ডাক্তারকে ছেড়েদেন মেডিকেল অফিসার, ডাকিয়ে এনে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে ভুয়া ডিগ্রি ব্যবহারের অপরাধে ডাক্তারকে লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্ম্যমান আদালত।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মালিরঅংক বাজারে গত ২৫ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে ইসলামী জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে চেম্বারের সময় তাকে সনাক্ত করে স্থানীয় সাংবাদকর্মীরা। সংবাদকর্মীরা তাকে বিভিন্ন ডিগ্রির বিষয় জানতে চাইলে তিনি নিজেকে ১০০% সত্য বলে দাবী করেন। ঘটনার বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ নাজমুস সালেহীন মেডিকেল অফিসার ডা. তাহারাত কে ঘটনাস্থলে পাঠালে মেডিকেল অফিসার তাহারাত বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে চেক করে এবং তার ব্যবহৃত পেড এ পদবী গুলো দেখে সংবাদকর্মীদের বলেন, উনার বিএমডিসি ঠিক আছে। সামান্য কিছু ত্রুটি আছে তিনি পরবর্তিতে সংশোধন করে নিবেন বলে সংবাদকর্মীদের চোখ ফাকি দিয়ে কৌশলে উক্ত ডাক্তারকে সরিয়ে দেন।

কিন্তু ডাক্তার আব্দুস সালাম হাওলাদারের ব্যবহৃদ পেড ভুয়া ডিগ্রি লেখা থাকলেও তিনি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চেক না করেই তাকে কৌশলে সরিয়ে দেন। ভুয়া ডিগ্রিধারী চিকিৎসকে আইনের আওয়ায় আসার ব্যবস্থা না করে তিনি সরিয়ে দেন অন্যত্র।

কিন্তু স্থানীয় সংবাদকর্মীদের কাছে উপযুক্ত প্রমাণ থাকায় সংবাদকর্মীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়াদী অবগত করলে শনিবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসেন উক্ত ডাক্তারকে অরজিনাল কাগজপত্র সহ নিজ কার্যালয়ে ডাকিয়ে আনেন। কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে দেখতে পান, ডা. আব্দুস সালাম হাওলাদার একজন এমবিবিএস ডাক্তার। যার বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন নং- এ-৬৯৫৬৫। কিন্তু নিজের নামের সাথে বিসিএস (স্বাস্থ্য), এফসিপিএস (মেডিসিন) ডিগ্রি ব্যবহার করেছেন তিনি, যাহার কোনো উপযুক্ত কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।

আরো জানা যায়, ডা. আব্দুস সালাম হাওলাদার ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এম-৪২ ব্যাচের স্টুডেন্ট ছিলেন বলেও তিনি নিজ মুখেই সংবাদকর্মীদের জানান।

নামের সাথে ভুয়া ডিগ্রি (পদবি) ব্যবহার করে রোগীদের সাথে প্রতারণার দায়ে লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ডা. আব্দুস সালাম হাওলাদারকে মেডিক্যাল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ অনুযায়ী ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইলিয়াস শিকদার।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসেন বলেন, ডা. আব্দুস সালাম হাওলাদার ভুয়া পদবি ব্যবহার করায় তাকে মেডিক্যাল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ অনুযায়ী জরিমানা করা হয়।

তবে ভুয়া ডিগ্রিধারী ডা. আব্দুস সালাম হাওলাদারকে শতভাগ সনাক্ত করতে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করেন ইসলামিয়া হসপিটাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার।

কৌশলে ভুয়া ডিগ্রি ব্যবহারকারী চিকিৎসককে সরিয়ে দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বিষয়টি এরিয়ে গিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ নাজমুস সালেহীন বলেন, যে মেডিকেল অফিসার গিয়েছিল সে তো মেডিকেল অফিসার, স্বাস্থ্যের প্রশাসন না। বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে চেক করলে তার ছবি ভাসছে। এজন্য হয়তো প্রাথমিক ভাবে নিশ্চিত এতটুকু করেছিল। আমি ইউএনও স্যারের সাথে এবিষয় কথা বলেছি ঐ ডাক্তারকে ভুয়া ডিগ্রি ব্যবহারের পালিশমেন্ট বাবদ জরিমানা করা হয়েছে তিনি আর এখানে আসতে পারবেন না।

(এনডি/এসপি/জানুয়ারি ২৮, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২৫ জুলাই ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test