E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Technomedia Limited
Mobile Version

প্রধান শিক্ষকের দাবী পূরণে ব্যর্থ, প্রবেশ পত্র পেলেন না এসএসসি পরীক্ষার্থী

২০২৪ ফেব্রুয়ারি ১৮ ১৮:২৩:৪৯
প্রধান শিক্ষকের দাবী পূরণে ব্যর্থ, প্রবেশ পত্র পেলেন না এসএসসি পরীক্ষার্থী

একে আজাদ, রাজবাড়ী : দরিদ্র শিল্পী খাতুন অন্যের বাসায় গৃহ পরিচালিকার কাজ করেও স্বপ্ন দেখেছিলেন ছেলে রিপন এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে। তাইতো সুদে টাকা ঋণ করে প্রধান শিক্ষকের হাতে-পায়ে ধরে ২ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে ছিলেন। তবে শিক্ষকের ভুলে নিমিষেই শেষ হয়ে গেলো সেই স্বপ্ন, দেওয়া হলো না পরীক্ষা।

ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মেঘনা হাই স্কুলের এসএসসি-২০২৪ পরীক্ষার্থী রিপন শেখ এর সাথে।সে মেঘনা গ্রামের দিনমজুর অলিল ও শিল্পী দম্পত্তির ছেলে।

প্রধান শিক্ষকের বিচারের দাবীতে শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে পরীক্ষার্থী রিপনের মা শিল্পী খাতুন।

অভিযোগে বলা হয়, এসএসসির টেস্ট পরীক্ষায় রিপন তিন বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। যে কারণে তাকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার জন্য ওই স্কুলের তৎকালীন প্রধান শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুস চার হাজার টাকা দাবি করেন। তবে মা শিল্পী খাতুন সুদে টাকা ঋণ করে প্রধান শিক্ষকের হাতে-পায়ে ধরে ২ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে আসেন।

যথারীতি এস এস সি পরীক্ষা শুরুর আগের দিন (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিদ্যালয় থেকে অন্য সকল পরীক্ষার্থীকে প্রবেশপত্র দেওয়া হলেও রিপনকে দেওয়া হয়নি।সেখান থেকে প্রধান শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুসের কাছে গিয়ে প্রবেশপত্র চাইলে তিনি জানান তোর ফরম ফিলাপের টাকা জমা দেওয়ার কথা মনে নেই আমার।

রিপনের মা শিল্পী খাতুন জানান, কাঁদতে কাঁদতে রিপন স্কুল থেকে বাড়িতে আসলে বিষয়টি শুনে তিনি ছুটে যান প্রধান শিক্ষকের কাছে। তবে প্রধান শিক্ষক তাকে দেখেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন এবং পাগল-ছাগল বলে স্কুল থেকে বের করে দেন। বর্তমানে তার ছেলে রিপন নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে দিয়েছে এবং আত্মহত্যাসহ দূরে কোথাও চলে যাওয়ার চেষ্টা করছে।

প্রধান শিক্ষক আব্দুল কুদ্দুসের সাথে পরিক্ষার্থীর প্রবেশপথ না পাওয়ার বিষয়ে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ঢাকা আছি।আমার নামে লিখত অভিযোগ দিয়েছে ওই ছাত্রের মা।ইউএনও যা করার করবে। এখানে সাংবাদিকের কাজ কি!

এ বিষয়ে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্যার আমাকে তদন্ত খুব দ্রুত প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বলেছেন। আমি সাবেক সবে প্রধান শিক্ষক ও শিল্পী খাতুন কে ২৫ তারিখে দুপুর দুইটায় মেঘনা হাই স্কুলে উপস্থিত থাকার জন্য বলেছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ জাফর সাদিক চৌধুরী অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

(একে/এসপি/ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২৪ মে ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test