E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

মৌলভীবাজারে আগুনে পুড়ল বসতঘর, সব হারিয়ে ফুলেছা বেগমের মাতম

২০২৪ মে ২২ ১৭:২৮:১১
মৌলভীবাজারে আগুনে পুড়ল বসতঘর, সব হারিয়ে ফুলেছা বেগমের মাতম

মোঃ আব্দুল, কাইয়ুম, মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারে বৈদ্যুতিক মিটার থেকে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে অসহায় এক গৃহিণীর বসতঘর। 

বুধবার (২২ মে) দুপুর ২ টার দিকে সদর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের জগন্নাথপুর এলাকায় ঘটে নির্মম এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে ওই এলাকার মৃত আফু মিয়ার বসত ঘরের বৈদ্যুতিক মিটার থেকে প্রথমে আগুন লাগার দৃশ্য দেখতে পান আফু মিয়ার স্ত্রী ফুলেছা বেগম। এর পর আগুন দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে পুরো বসত ঘরে। এসময় আশপাশের বাড়ির লোকজনের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। আগুন নেভাতে এগিয়ে আসেন স্থানীয়রাও। মুহুর্তেই আগুনের লেলিহান শিখায় ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয় সেমিপাকা টিনের বসত ঘরটি। পুড়ে যায় কৃষি জমি ইজারার জন্য জমানো নগদ ৩০ হাজার টাকা, ধান-চাল ও জায়গা-জমির গুরুত্বপূর্ণ কাগজ সহ প্রয়োজনীয় ব্যবহারী সব জিনিসপত্র।

সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, আগুন লাগার তথ্য প্রথমে ৯৯৯ নাম্বারে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পান মৌলভীবাজার ফায়ার সার্ভিসের কার্যালয়ের দ্বায়িত্বরত কর্মকর্তারা। এর পর দ্রুত আগুন নেভাতে রওনা হন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। তবে সরু রাস্তা থাকায় ফায়ার সার্ভিসের পানির ট্যাংকারবাহী বড় গাড়িটি ঘটনাস্থলে প্রবেশ করতে পারেনি। ফলে আগুন নেভাতে বেশ বেগ পেতে হয় ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের। দুপুর পৌনে ৩ টার দিকে ছোট গাড়িগুলো দিয়ে আগুন নিভাতে শুরু করেন ফায়ার সার্ভিস সদস্যরা। প্রায় আধাঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও ততক্ষণে সম্পূর্ণ ঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

খবর পেয়ে দ্রুত সেখানে ছুটে যান মৌলভীবাজার সদর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী তাজুল ইসলাম তাজ সহ এলাকার লোকজন। এসময় আগুনে পুড়ে ঘর হারিয়ে বিলাপ করতে থাকা ফুলেছা বেগমের হাতে নগদ অর্থ তুলে দেন সাবেক এই জনপ্রতিনিধি। আশ্বাস দেন পাশে থাকার।

গৃহিণী ফুলেছা বেগম জানান, ঘরের বৈদ্যুতিক মিটার থেকে প্রথমে তিনি আগুন লাগার দৃশ্য দেখতে পান। মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে পুরো ঘরে।

মৌলভীবাজার ফায়ার সার্ভিস কার্যালয়ের স্টেশন কর্মকর্তা যীশু তালুকদার জানান, বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত। এ ঘটনায় প্রায় ২ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি। তিনি আরও জানান, রাস্তা সরু থাকায় আমাদের বড় গাড়িটি প্রবেশ করতে পারেনি। সেখানে পানির কোন উৎসও পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন চৌধুরী বলেন, বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে এ ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে আমাদের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে গেছেন। তিনি বলেন, এ ঘটনায় প্রাথমিক পর্যায়ে কিছু চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। পরে আবেদন করলে টিন সহ অন্যান্য সহায়তা দেয়া হবে।

জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম বলেন, আমি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

(একে/এসপি/মে ২২, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

১৭ জুন ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test