E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুত হচ্ছে বস্ত্র শিল্প

২০২২ অক্টোবর ০১ ১৩:৩৩:০৭
চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুত হচ্ছে বস্ত্র শিল্প

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুত হচ্ছে বস্ত্র শিল্প। এই শিল্পকে অধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর ও বেগবান করে গড়ে তুলতে বস্ত্র অধিদপ্তর ‘সিএটি-সিএএম’ শীর্ষক পাইলট প্রকল্প গ্রহন করেছে। এই প্রকল্পের আওতায় টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে কর্মরত টেকনিক্যাল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। এই প্রশিক্ষণ গ্রহন করে তারা টেক্সটাইল কলেজের শিক্ষার্থীদের বস্ত্র শিল্পের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পর্কে শিক্ষা দিতে পারছেন। এছাড়া বস্ত্র শিল্প সংশ্লিষ্টদের প্রযুক্তিগত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিয়ে এই শিল্পকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে উপযোগি করতে উদ্যোগ নিয়েছে বন্ত্র অধিদপ্তর।

বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ নুরুজ্জামান এসব তথ্য জানিয়েছেন।

ওই কর্মকর্তা বলেন, স্টিম ইঞ্জিন অবিস্কারের মধ্য দিয়ে বিশ্বে প্রথম শিল্প বিপ্লব হয়েছে। বিদ্যুৎ আবিস্কারের মধ্য দিয়ে ২য় ও কম্পিউটার আবস্কিারের মধ্য দিয়ে ৩য় শিল্প বিপ্লব ঘটেছে। এর কোনটাই আমরা গ্রহন করতে পারিনি। বস্ত্রশিল্প আমাদের দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প। প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকেই এই শিল্প আমাদের ঐতিহ্যের সাথে মিশে আছে। বর্তমানে এই শিল্প জাতীয় অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রেখে চলেছে। এই শিল্পকে বেগবান করতে এই পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারদেশে ৮টি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ করে দিয়েছেন। এখানে বিশ্বের সব অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ও ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। আমরা বস্ত্র শিল্পকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুত করতে এখনই পরিকল্পনা গ্রহন করে বাস্তবায়ন করছি। ইতিমধ্যে আমরা দুইটি ট্রেনিং সম্পন্ন করেছি। এর মাধ্যমে দেশের বস্ত্র শিল্পের ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হবে। সেই সঙ্গে বিশ্বের লেটেস্ট প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটানো হচ্ছে এই শিল্পে। এই শিল্পের ওপর নির্ভর করে বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশের তালিকায় স্থান পাবে। সেই ভাবেই আমরা প্রস্তুত হচ্ছি।

গোপালগঞ্জে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বস্ত্র অধিদপ্তর কর্তৃক গৃহীত ‘সিএটি এবং সিএএম’ শীর্ষক পাইলট প্রকল্প ৫ দিনব্যাপী (২য় ব্যাচের) প্রশিক্ষণ কর্মশালা সমাপ্ত হয়েছে।

গোপালগঞ্জ শেখ রেহানা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে প্রশিক্ষণ শেষে শুক্রবার রাতে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন প্রধান অতিথি বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ নুরুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বস্ত্র অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোঃ সাইফুর রহমান ।

গোপালগঞ্জ শেখ রেহানা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে অধ্যক্ষ ইঞ্জিনিয়ার নয়ন চন্দ্র ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাপনী অনুষ্ঠানে কলেজের সহকারী অধ্যপক ড.এবিএম ফখরুল আলম, প্রশিক্ষক মনিরুজ্জামান চৌধূরী, মোঃ মফিজুর রহমান, প্রশিক্ষণার্থী তোফা আক্তার, আল আমিন সহ আরো অনেকে বক্তব্য রাখেন।

পরে প্রশিক্ষনার্থীদের হাতে সনদপত্র তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ নুরুজ্জামান।

এই প্রশিক্ষণে সারাদেশের ৫ টি টেক্সটাইল ইঞ্জিািনয়ারিং কলেজের ১০ টেকনিক্যাল কর্মকর্তা ও কর্মচারী অংশ নেন।

প্রশিক্ষণার্থী তোফা আক্তার বলেন, আমি ফোরম্যান হিসেবে টাঙ্গাইলের কালিহাতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে কর্মরত। আমি দেশের বাইরেও একটি প্রশিক্ষণ গ্রহন করেছি। এই পর্যন্ত আমি যত প্রশিক্ষণ নিয়েছি, তার মধ্যে এটি শ্রেষ্ঠ। এটি আমি সুন্দরভাবে আয়ত্ত করতে পেরেছি। এখানে কম্পিউটার নির্ভর ডিজাইন, ম্যানুফ্যাকচারিং, লেইন এবং কাটিং মেসিন সহ অত্যাধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। প্রশিক্ষণ লভ্য জ্ঞান শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারব। বস্ত্র শিল্পকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগি করতে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেব। বস্ত্র অধিদপ্তরের এই উদ্যোগকে আমি অভিনন্দন জানাই। এই ডায়নামিক উদ্যোগ গ্রহন করার জন্য আমি বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স্যারকে ধন্যবাদ জানাই।

প্রশিক্ষক মনিরুজ্জামান চৌধূরী বলেন, বস্ত্র শিল্পের উন্নয়নে বর্তমান সরকার অনেক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে। সেই সাথে বস্ত্র অধিদপ্তর চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এখন থেকে কাজ শুরু করে দিয়েছে। প্রশিক্ষণার্থীরা সুন্দরভাবে এই প্রশিক্ষণ গ্রহন করেছেন। আমরাও তাদের সর্বোচ্চ দেওয়ার চেষ্টা করেছি। এখন এটি কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশ দ্রুত বস্ত্র শিল্প থেকে সুফল পাবে।

গোপাগঞ্জ শেখ রেহানা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের অধ্যক্ষ ইঞ্জিনিয়ার নয়ন চন্দ্র ঘোষ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়তে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ গুলো বস্ত্র শিল্পের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। এখান থেকে দক্ষ জনগোষ্ঠি তৈরী হচ্ছে। তাদের চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগি করে গড়ে তোলা হচ্ছে। এই প্রজম্মই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের বস্ত্র শিল্পকে উন্নতির চরম শিখড়ে পৌঁছে দেবে বলে আমার বিশ্বাস।

(টিকেবি/এএস/অক্টোবর ০১, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

৩০ নভেম্বর ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test