E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

রায়পুরে বিষাক্ত কেমিকেল মিশ্রিত কলা বিক্রি চলছেই

২০১৪ মে ০৭ ১৭:১৩:২৯
রায়পুরে বিষাক্ত কেমিকেল মিশ্রিত কলা বিক্রি চলছেই

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে প্রশাসনের নজরদারির অভাব কিংবা ভ্রাম্যমাণ আদালতের নিষ্ক্রিয়তার কারণে পৌর শহরসহ আশপাশ এলাকায় কিছুতেই বন্ধ হচ্ছে না কার্বাইড মিশ্রিত কলা বিক্রি। অন্যান্য বছরের ন্যায় এ বছর অসাধু ফল বিক্রেতারা অতি মুনাফা লাভের আশায় ফলমূলে বিষাক্ত কেমিকেল ব্যবহার করে দ্রুত পাকানো কিংবা পাকানো ফলকে দীর্ঘদিন স্থায়ীত্ব দেয়ার জন্য এ পন্থা অবলম্বন করছে। এতে করে অসাধু ফল বিক্রেতারা শুধু বিষাক্ত কার্বাইড মিশ্রিত কলাই নয় অত্যধিক পরিমাণে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকারক ফরমালিনযুক্ত আঙ্গুর ও বিভিন্ন ফলমূল বিক্রি করছে বীরদর্পে। স্বাস্থ্য সচেতন ব্যক্তিবর্গসহ পর্যবেক্ষকমহল এ বিষয়ে প্রশাসনের নিস্ক্রিয়তাকে রহস্যজনক বলে মন্তব্য করছেন।

আইনকে তোয়াক্কা না করে অতি মুনাফা লাভের আশায় রায়পুরে বিষাক্ত কার্বাইড মিশ্রিত কলা বিক্রির হিড়িক চলছে। বেশি মুনাফা লাভের আশায় কলা বিক্রেতারা ১৮ থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপরিপক্ক কাঁচা কলা পাকানোর জন্য ব্যবহার করছে বিষাক্ত কার্বাইড। যদিও এখন বর্ষা আসার আগেই বাগানের অনেকটা অপরিপক্ক কলা বিক্রি করে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় এ কাজ থেকে স্বয়ং কলা চাষিরাও বিরত থাকছেন না। তারা বাগানের গাছ থেকে কলা কেটে এনে তাতে প্রয়োগ করছে বিষাক্ত কার্বাইড মিশ্রিত পানি। অন্য কলায় না হলেও বিশেষ করে সাগরকলাতে মিশানো হচ্ছে কার্বাইড। শুধু তাই নয় বিভিন্ন ফলের দোকানে বিক্রির জন্য রাখা আঙ্গুর শুকিয়ে অনেকটা কিচমিচের আকার ধারণ করেছে তবুও তা থোকা থেকে ঝরে পড়ছে না।
কারণ অতিমাত্রায় এতে মিশানো হয়েছে ফরমালিন। বিশেষজ্ঞ ডাক্তররা বলেন, এসব ফল লিভার ক্যান্সার, কিডনি ক্যান্সার ও দৃষ্টি ধ্বংসকারী। রায়পুর পৌর শহরের পীর ফয়জুল্ল্যা সড়কে, নতুন বাজার, সরকারি কলেজ রোড, খাসের হাট বাজার, হায়দরগঞ্জ বাজার, মিতালী বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় কলার আড়তে চলছে কার্বাইড মিশ্রিক কলা বিক্রির হিড়িক। শুধু তাই নয় গ্রামেগঞ্জের বাজারে, অলিতে-গলিতে এমনকি বাড়িঘরের দুয়ারে দুয়ারে ভ্যান গাড়ি কিংবা মাথায় ঝুঁড়ি নিয়ে বিক্রি হচ্ছে এসব কলা। বিশেষ করে অপরিপক্ক কলা বগুড়া, রংপুরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে এনে পাকানো হচ্ছে। যোগাযোগ করা হলে রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মোস্তাফা খালেদ বলেন, কার্বাইড মিশ্রিত বিভিন্ন ফলমূল খেলে মানুষের কিডনি নষ্ট হয়ে যাওয়ার অনেকটা সম্ভাবনা বেশি। সব বেশি ক্ষতি হয় শিশুদের। এই অবৈধ ব্যবসার বিরুদ্ধে জনগণকে প্রতিবাদ করতে আসতে হবে এবং সচেতন হতে হবে। এ ব্যাপারে কথা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আলম বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে শীঘ্রই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
(পিকেএস/এএস/মে ০৭, ২০১৪)

পাঠকের মতামত:

২২ জুলাই ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test